সংবাদ শিরোনাম:
রংপুরে শুরু হয়েছে শেখ হাসিনা অনুর্ধ্ব-১৫ টি টোয়েন্টি প্রমীলা ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চশমা প্রতীক নিয়ে সাংবাদিক আতিক জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ও জনসমর্থনে এগিয়ে ঘাটাইলে সেলাই মেশিন মার্কায় ভোট চাইলেন পৌর মেয়র আব্দুর রশীদ মিয়া টাঙ্গাইলে পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ দেবরের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ ; কাভার্ড ভ্যান জব্দ সাফল্য অর্জনেও ব্যতীক্রম নয় জমজ দুই বোন,  লাইবা ও লামিয়া দুজনেই পেলেন জিপিএ- ৫ নাগরপুরে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার রাজপথে, প্রতিবাদ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত এক স্কুল থেকে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেল জমজ দুই বোন মির্জাপুরে ধান চাল সংগ্রহ কার্যক্রমের উদ্বোধন টাঙ্গাইলে মাদ্রাসা ও কারিগরি প্রতিষ্ঠানের গার্ল-ইন- স্কাউটের সদস্যদের ডে ক্যাম্প
এডিস মশা ও দূর্গন্ধ টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় পয়ঃনিস্কাশনের নালায়

এডিস মশা ও দূর্গন্ধ টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় পয়ঃনিস্কাশনের নালায়

মোঃ আবু জুবায়ের উজ্জল : দীর্ঘ দিন পরিস্কার না করায় টাঙ্গাইল শহরের প্রধান পয়ঃনিস্কাশনের নালাটি (সেন্ট্রাল ড্রেন) ময়লার দূর্গন্ধ ভাগারে পরিনত হয়ে এডিস মশার জম্ম দিচ্ছে।

এতে বাড়ছে ডেঙ্গু সহ বিভিন্ন রোগ জীবানু।শিক্ষার্থী, শিশু ও বৃদ্ধ নিয়ে আতংকে পৌরবাসী।

নালাটিতে জমে থাকা পানি ও বর্জ্যরে স্তুপের কারনে এটি এখন মশার বংশ বিস্তারের প্রজনন ক্ষেত্রে পরিনত হয়েছে।

পৌর কর্তৃপক্ষ দীর্ঘদিন ধরে এই নালাটির ময়লা আবর্জনা অপসারনের না করায় এটি এখন জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি এবং পরিবেশ বিপর্যয়ের কারন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

শহরবাসির আশংকা এই ভাগার থেকে এডিস মশার বংশ বিস্তার ঘটতে পারে। তারপরও এটি পরিস্কারের উদ্যোগ নেই পৌর কর্তৃপক্ষের।

বৃহস্পতিবার (২৯ আগস্ট) দুপুরে পৌর এলাকার প্যাড়াডাইস পাড়া খাল পাড় রোড়ে লৌহজং নদীর কাছে নালাটির উৎস মুখ থেকে বিশ্বাস বেতকা ঢাকা রোডের গোডাউন ব্রিজ পর্যন্ত সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, প্রায় দুই কিলোমিটার দীর্ঘ নালাটি ময়লা আবর্জনা, পলিথিন সহ বিভিন্ন ধরনের ময়লায় ভরে আছে।

পার্কবাজার, নিরালারমোড় ও শহরের তিনটি হোটেল ফেলানো বর্জ্য থেকে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। ময়লা আবর্জনার মধ্যে জমে থাকা পানিতে মশার লার্ভা দেখা যায়। পুরো নালাটিই এখন মশক প্রজনন ক্ষেক্ষে পরিনত হয়েছে।

পাকা নালা তৈরি করার পর নালার বিভিন্ন অংশে উপর পৌরসভা দোকান নির্মান করেছে। ফলে দোকানের নিচের অংশে আবর্জনার স্তুপ হলেও সহজেই এগুলো পরিস্কার করা যায় না।

নালাটি নির্মানের পর দু’বার এটি পরিস্কার করেছে পৌরসভা। সর্বশেষ ২০১৪ সালে এটি পরিস্কার করা হয়। এরপর বিগত পাঁচ বছরে আর পরিস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়নি। পৌর সভার সুত্রে জানা যায়, নালাটি পরিস্কার করতে প্রায় ৪০ থেকে ৫০ লাখ টাকা খরচ হবে।

টাঙ্গাইল পৌর এলাকার (৬নং ওয়ার্ড) প্যাড়াড়াইস পাড়ার আরাফাত রহমান জানান, দীর্ঘ দিন হলো নালাটি পরিস্কার করা হয় না। বৃষ্টি হলে নালার র্বজ্য থেকে দূগন্ধ ছড়ায়। তখন এলাকায় থাকায় দায় হয়ে দাড়ায়।

আমাদের জোর দাবী থাকবে যত দ্রুত সম্ভব এই নালাটি পরিস্কার করা হোক।

টাঙ্গাইল নাগারিক কমিটির সদস্য সচিব মীর মেহেদী জানান, নিয়মিত পরিস্কার না করায় এটি শহরবাসির দুর্ভোগের কারন হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটি যেন মশা উৎপাদনের অভায়ারণ্য।

ভিক্টোরিয়া রোডের ব্যবসায়ী কাজী বজলুর রহমান জানান, এই নালা থেকে নানা রোগ জীবানু ছড়াচ্ছে। এটি জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) টাঙ্গাইল অঞ্চলের জ্যেষ্ঠ গবেষনা কর্মকর্তা সোমনাথ লাহিড়ী জানান, নালাটি নিয়মিত পরিস্কার না করায় এটি জনস্বাস্থ্যের জন্য শতভাগ হুমকির কারন হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই এটি পরিস্কারের উদ্যোগ নেয়া প্রয়োজন।

টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র জামিলুর রহমান জানান, কেন্দ্রীয় নালাটি ময়লা আবর্জনায় ভরে গেছে এটি ঠিক। খুব দ্রুত এটি পরিস্কারের উদ্যোগ নেয়া হবে।

এছাড়া নালার মধ্যে ময়লা আবর্জনা যাতে না ফেলা হয় সে জন্য পৌর নাগরিকদেরও সচেতনতা বৃদ্ধির উদ্যোগে নেয়া হবে।

পৌর সভার সুত্রে জানা যায় , বৃটিশ আমলে শহরের পশ্চিম দিকে প্যাড়াডাইস পাড়ায় লৌহজং নদী থেকে একটি খাল খনন করে ভিক্টোরিয়া রোডের পাশ দিয়ে শহরের পশ্বিম প্রান্তে বুড়াই বিল পর্যন্ত নেয়া হয়।

শহরের পানি ও পয়:নিস্কাশনের জন্য খালটি খনন করা হয়েছিল। পরবর্তীতে ১৯৯৬ সালে এই খালটিকে দুই মিটার প্রশস্ত পাকা নালায় পরিনত করা হয়। যা এখন কেন্দ্রীয় নালা হিসেবে পরিচিত।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840