কালিহাতীতে ৭ই মার্চ পালনকালে শিক্ষকদের মারপিট করে প্রতিষ্ঠানে তালা লাগিয়েছেন বিএনপি সমর্থিত অধ্যক্ষ ও ইউপি চেয়ারম্যান॥ ছাত্র-শিক্ষক ও অভিভাবকদের বিক্ষোভ

কালিহাতীতে ৭ই মার্চ পালনকালে শিক্ষকদের মারপিট করে প্রতিষ্ঠানে তালা লাগিয়েছেন বিএনপি সমর্থিত অধ্যক্ষ ও ইউপি চেয়ারম্যান॥ ছাত্র-শিক্ষক ও অভিভাবকদের বিক্ষোভ

মনির হোসেন কালিহাতী : কালিহাতীতে ৭ই মার্চ পালন করতে চাওয়ায় শিক্ষকদের এলোপাথালী মারপিট করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিয়েছেন বিএনপি সমর্থিত অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তাফা ও গভর্নিং বডির সদস্য স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শুকুর মাহমুদ।

তাৎক্ষনিক প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা ক্ষিপ্ত হয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সমবেত হয়।

এ সময় অধ্যক্ষ ও গভর্নিং বডির সদস্যের দ্রুত বিচারের দাবীতে বিক্ষোভ শুরু করেন পরিস্থিতি সামাল দিতে কোন প্রকার নোটিশ ছাড়াই প্রতিষ্ঠানটি ছুটি ঘোষণা করে তালা লাগিয়ে চলে যায় অধ্যক্ষ।

এ ঘটনা ছড়িয়ে পরায় স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মী সমর্থক এবং অভিভাবকদের মাঝে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

বৃহস্পতিবার (৭ই মার্চ) সকালে কালিহাতী উপজেলার নারান্দিয়া টিআরকেএন স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উদযাপন অেনুষ্ঠান শুরু করলে এ মারপিটের ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, উপজেলার নারান্দিয়া টিআরকেএন স্কুল এন্ড কলেজে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উদযাপন শুধু মাইক বাজিয়ে দায় সারা ভাবে পালনের উদ্যোগ নেন অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তাফা।

এ ব্যাপারে উক্ত প্রতিষ্ঠানের সহকারি প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলাম দিবসটি প্রতি বছরের ন্যায় যথাযথ মর্যাদায় বড় আকারে পালনের প্রস্তাব দেন।

এ প্রস্তাবে অধ্যক্ষ রাজি না হওয়ায় অধ্যক্ষ ও সহকারি প্রধান শিক্ষকের মাঝে বাদানুবাদের এক পর্যায়ে অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফা সহকারি প্রধান শিক্ষক মো. নজরুল ইসলামকে নাকে ঘুষি মেরে রক্তাক্ত করে এবং উপর্যুপরি কিলঘুষি মারতে থাকে।

এক পর্যায়ে সহকারি শিক্ষক আব্দুর রহিম ছাড়াতে গেলে তাকেও অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তাফা কিলঘুষি মেরে মেঝেতে ফেলে দেয়। এ সংবাদ পেয়ে প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডির সদস্য স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে অধ্যক্ষের পক্ষ হয়ে শিক্ষকদের গালমন্দ করতে থাকে এবং সহকারি শিক্ষক আব্দুর রহিম ও মো. সাকিবকে কিলঘুষি মেরে আহত করে।

ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়লে সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা, ছাত্র-ছাত্রীরা সমবেত হয়ে উক্ত অধ্যক্ষ ও গভর্নিং বডির সদস্যের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করে। এক পর্যায়ে তারা অধ্যক্ষকে অবরুদ্ধ করে রাখে এবং শিক্ষকদের মারপিটের বিচার চায়।

পরিস্থিতি সামাল দিতে কর্তৃপক্ষ তৎক্ষনাত স্কুল ছুটি ঘোষণা করে গেটে তালা লাগিয়ে দেয়।

পরে সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা একত্রিত হয়ে ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে প্রতিষ্ঠানের সভাপতি মোজহারুল ইসলাম তালুকদারের বাড়িতে যায়। তাকে না পেয়ে তারা তার সহধর্মিনী রেখা আক্তারের কাছে বিচার প্রার্থনা করে এবং অবিলম্বে অধ্যক্ষের বহিষ্কার এবং গভর্নিং বডির সদস্য স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শুকুর মাহমুদের বিচার চায়।

আহত সহকারি প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলাম জানান, “অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফা টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) নির্বাচনী এলাকার ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ইঞ্জিনিয়ার লিয়াকত আলীর ছোট ভাই বিএনপি ও জামায়াতের দোষর।

প্রতি বছর বড় আকারে ৭ই মার্চ পালিত হলেও এবার তিনি দায়সারাভাবে উদ্যোগ নেন, এর বিরোধিতা করায় তিনি আমাকে মারপিট করেন।”

কথা হয় অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফা ও গভর্নিং বডির সদস্য ইউপি চেয়ারম্যান শুকুর মামুদের হাতে মারপিট খাওয়া সহকারি শিক্ষক আব্দুর রহিমের সাথে। তিনি সাংবাদিকদের জানান, “ অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফা যখন নজরুল স্যারকে মারতেছিলেন তখন আমি ছাড়াতে যাই।

তখন অধ্যক্ষ স্যার আমাকে কিলঘুষি মারে। পরে অধ্যক্ষ গভর্নিং বডির সদস্য শুকুর মাহমুদকে ডেকে আনলে তিনি এসেই কোন কিছু বোঝার আগেই আমাকে এবং সহকারি শিক্ষক সাকিবকে মারপিট করেন।

আমরা শিক্ষকরা প্রতিষ্ঠানের সভাপতির কাছে গিয়েছিলাম। তাকে না পেয়ে তার সহধর্মিনীর কাছে বিচার দিয়ে এসেছি। আমি এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।”

অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ অস্বীকার করেন।

মারামারিতে অংশগ্রহণকারী গভর্নিং বডির সদস্য ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শুকুর মাহমুদের মুঠো ফোনে চেষ্ঠা করলে তার সহধর্মীনী ফোনটি রিসিভ করে পরে ফোন দিতে বলে।”

৭ই মার্চকে কম গুরুত্ব দেয়ায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। এ ঘটনায় এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

নারান্দিয়া টিআরকেএন স্কুল এন্ড কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি ও কালিহাতী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোজহারুল ইসলাম বলেন, “ঘটনাটি আমি জেনেছি। ঘটনাটি যাতে আর বৃদ্ধি না পায় সে জন্য আমি ব্যবস্থা নিবো।”

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840