সংবাদ শিরোনাম:
কালিহাতী ভুক্তা গ্রামে নদী খননের নামে অবৈধভাবে বাংলা ড্রেজার দিয়ে বালু বিক্রির মহোৎসব

কালিহাতী ভুক্তা গ্রামে নদী খননের নামে অবৈধভাবে বাংলা ড্রেজার দিয়ে বালু বিক্রির মহোৎসব

প্রতিদিন প্রতিবেদক: নদী খনন প্রকল্পের নাম ব্যবহার করে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার সহদেবপুর ইউনিয়নের ভুক্তা গ্রামের মৃত হালিম বেপারীর ছেলে তোফাজ্জলের নেতৃত্বে পৌলি-ঝিনাই নদী থেকে দীর্ঘদিন ধরে বালু বিক্রি করে আসছে। এছাড়াও ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী নেতাদের নাম ভাঙ্গিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নিজ এলাকায় আদিপত্য বিস্তার করে রেখেছে বালু খেকো তোফাজ্জল হোসেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, পৌলি-ঝিনাই নদীতে ৭ থেকে ৮টি ড্রেজার মেশিন বসানো হয়েছে। এরমধ্যে তিন থেকে চারটি বাংলা ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করে সেই বালু রাতের আধারে ভেকুর মাধ্যমে শত শত ট্রাকে জেলার বিভিন্ন প্রান্তে বিক্রি করা হচ্ছে। আর রাতের আধারে বালু বিক্রি করায় প্রশাসনের চোখকে খুব সহজেই ফাঁকি দেয়া সমম্ভ হচ্ছে বলে জানান এলাকাবাসী। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয়রা জানান, বালু ব্যবসায়ী তোফাজ্জল ৫-৬ বছর পূর্বেও সিএনজি চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করত। কয়েক বছর যাবৎ অবৈধ মাটি ও বালু ব্যবসা করে তিনি রাতারাতি অনেক টাকা পয়সার মালিক হয়ে উঠেছে। সেই সাথে এ অবৈধ টাকা দিয়ে এলাকায় আদিপত্য বিস্তার করেছে। তার এ অবৈধ ব্যবসার প্রতিবাদ করায় গতবছর এক যুবককে সন্ত্রাসী দ্বারা হামলা করেন। গ্রামে প্রভাব বিস্তার থাকায় ওই এলাকার মানুষ তার বিরুদ্ধে কোন প্রতিবাদ করার সাহস পায় না। এদিকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও বিক্রির ফলে নদী পাড়ের কাঁচা রাস্তা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। নদী পাড়ের জনগণ অবৈধ বালু খেকোর হাত থেকে তাদের ভিটে মাটি রক্ষার জন্য প্রশাসনের কাছে জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এ ব্যাপারে কালিহাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুল হোসেন জানান, নদী খনন প্রকল্পটি পানি উন্নয়ন বোর্ডের হওয়ায় অনেক অসাধু ব্যবসায়ীরা সুবিধা নিচ্ছে। এ প্রকল্পের আওতায় কেউ যদি বালু বিক্রি করে থাকে তবে তদন্ত সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840