সংবাদ শিরোনাম:
গোপালপুরে আটককৃত জামায়াত নেতাদের নাশকতার পরিকল্পনা ছিলো

গোপালপুরে আটককৃত জামায়াত নেতাদের নাশকতার পরিকল্পনা ছিলো

প্রতিদিন প্রতিবেদক : বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব থানা এলাকায় নাশকতার পরিকল্পনার অভিযোগে জামায়াত-শিবিরের ৩৬ জন নেতাকর্মীকে আটকের পর বুধবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বিপিএম জানান, তাদের কাছে থেকে বিভিন্ন ধরনের জিহাদি বই ও লিফলেট উদ্ধার করা হয়েছে।

আটককৃতদের মধ্যে একজন গোপালপুর উপজেলা জামাতের আমিরসহ কয়েকজনের নামে পূর্ব থেকেই দেশের বিভিন্ন থানায় নাশকতার মামলা রয়েছে।

পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, মঙ্গলবার বনভোজনের নামে তারা যমুনা নদীতে নাশকতার পরিকল্পনা করছিলো।

ওই সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গোপালপুর উপজেলা জামাতের আমির গোলাম মোস্তফা রঞ্জুসহ ৩ জনকে আটক করা হয়।

তাদের দেয়া তথ্য অনুযায়ি বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে জামাত শিবিরের ৩৬ জন নেতা কর্মীকে আটক করা হয়। তাদের কাছে বিভিন্ন ধরনের জিহাদি বই, লিফলেট পাওয়া গেছে।

পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বিপিএম আরো জানান, তাদের পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য পূর্বে তারা বনভোজনের নামে সেতু এলাকায় রেকি করেছে।

এর আগেও তারা নৌকা ভ্রমনে গিয়ে সরকার উৎখাতে বিভিন্ন ধরনের পরিকল্পনা করে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে রিমান্ড আবেদন করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে টাঙ্গাইলের বিভিন্ন মিডিয়ার সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

গ্রেফতারকৃতরা হলো, গোপালপুর উপজেলা জামায়াতের আমীর ও গোপালপুরের মির্জাপুর গ্রামের মৃত খন্দকার মাহবুবুর রহমানের ছেলে গোলাম মোস্তফা রঞ্জু (৫৪),

গড়ালিয়া গ্রামের মৃত তৈয়ম শেখের ছেলে মো. হাসেন আলী (৫৫), বেতবাড়ী গ্রামের মো. মজিবর রহমানের ছেলে মহিউদ্দিন (২২), দক্ষিণ গোপালপুরের আছর আলীর ছেলে মো. ফারুক হোসেন (৩০),

গংগাপাড়া গ্রামের মনছব আলীর ছেলে আব্দুল মজিদ(৪৮), উত্তর গোপালপুরের বাহার আলীর ছেলে মো. ইনছান আলী (২০), কোনাবাড়ী গ্রামের আ. ছামাদের ছেলে মো. আমিনুল ইসলাম (৪৮),

নবগ্রামের মৃত মোছাবালী মুন্সীর ছেলে মো. আব্দুল মালেক (৬০), গাইবান্ধা জেলার গাইবান্ধা সদরের পূর্বপাড়ার মৃত মফিজুল হকের ছেলে মো. শাহজাহান (৬২),

গোপালপুর উপজেলার কোনাবাড়ী গ্রামের মৃত আ. জব্বারের ছেলে নুর মোহাম্মদ (৬৪), বিষ্ণুপুর গ্রামের মৃত মেছের আলীর ছেলে আব্দুল আলীম (৩২),

লক্ষীপুরের মৃত মোয়াজ্জেম হোসেনের ছেলে মো. হেলাল উদ্দিন (৬০), সোনামুই গ্রামের মৃত দুদু শেখের ছেলে মো. শিব্বির আহম্মেদ (৫৯), গংগা পাড়ার মৃত সাদের আলীর ছেলে মো. বাদশা মিয়া (৫৪),

হাজেরাবাড়ীর মৃত মুনসুব আলীর ছেলে ইউনুস আলী (৩৫), ভুটিয়া গ্রামের মৃত সরব উদ্দিনের ছেলে মো. আলাউদ্দিন (৫৫), জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার মালিপাড়া গ্রামের মৃত মনছের আলীর ছেলে মো. নজরুল ইসলাম (৪৫),

গোপালপুর উপজেলার মধুপুর ভট্ট গ্রামের মৃত জোবেদ আলীর ছেলে গোলাম মোস্তফা (৪৫), বাখুরিয়াবাড়ী গ্রামের মৃত জাবেদ আলীর ছেলে আব্দুল জলিল (৬০), বেড়াডাকুরী গ্রামের মৃত আব্দুস সোবাহানের ছেলে মো. আব্দুস সবুর (৭০),

খানপাড়ার মৃত আব্দুল মতিনের ছেলে আব্দুল কাইয়ুম (৪২), দক্ষিণ গোপালপুর চরপাড়ার মোজাম্মেল হোসেনের ছেলে মো. সোহাগ (১৯), চাতুটিয়ার আব্দুল আজিজের ছেলে মাসুদ করিম (৪০),

মির্জাপুর উত্তরপাড়ার মৃত খোরশেদ আলমের ছেলে মো. নাছির উদ্দিন (২৪), মধ্য মন্দিরা গ্রামের মো. সাহেব আলীর ছেলে মো. আশরাফ আলী (৪৪), ঝাওয়াইল গ্রামের মৃত পাচু মাহমুদ মুন্সীর ছেলে আলহাজ্ব আব্দুল হাকিম (৭৭),

ভূঞাপুর উপজেলার ফলদা চরপাড়া গ্রামের মৃত হযরত আলীর ছেলে আব্দুল আলিম (৩২), গোপালপুর উপজেলার পাকুটিয়া গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে মো. ছানোয়ার হোসেন (২৭),

পলশিয়া গ্রামের মৃত পাষান আলীর ছেলে মো. জুলহাস উদ্দিন (৫৬), কোনাবাড়ীর মো. হেকমত আলীর ছেলে মো. ফরমান আলী (২৮), একই এলাকার মৃত লাল মাহমুদের ছেলে মো. হেকমত আলী (২৮),

জোতবাগল গ্রামের মো. নাজিম উদ্দিনের ছেলে মো. বিজয় হোসেন মাসুদ (৩০), মোহনপুর গ্রামের মৃত শুক্কুর মাহমুদের ছেলে নাঈম খন্দকার (৪৪), কোনাবাড়ীর মৃত পাষান আলীর ছেলে মো. আশরাফ আলী (৬৭),

জোতবাগল গ্রামের মো. নিজাম উদ্দিনের ছেলে মো. রাসেল রানা (২০) এবং সোনামুই গ্রামের কোরবান আলীর ছেলে ফরহাদ হোসেন(৩০)।

গ্রেফতারকৃতদের অধিকাংশের বাড়ি গোপালপুর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে এবং অধিকাংশই শিক্ষকতা পেশায় জড়িত।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840