সংবাদ শিরোনাম:
ধনবাড়ীতে প্রাইভেটকার চাপায় নিহত ১ আহত ৪ ভূঞাপুরে ৩৭টি পূজা মন্ডপে পৌর মেয়রের আর্থিক অনুদান টাঙ্গাইল শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলমগীর সম্পাদক রৌফ সাফ জয়ী কৃষ্ণা রানী সরকার ও কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটনকে সংবর্ধনা দিয়েছে টাঙ্গাইল জেলা ক্রীড়া সংস্থা ভাসানীর মাজারে ন্যাপ ভাসানীর পুষ্পস্তবক অর্পণ গোপালপুরে কৃষ্ণাকে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সংবর্ধনা নাগরপুরে এবারের দুর্গোৎসব হবে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় বজ্রপাত প্রতিরোধে বাতিঘর আদর্শ পাঠাগারের উদ্যোগে তালবীজ বপন বিএনপির মিথ্যাচার করে দেশে একটি অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করছে -কৃষিমন্ত্রী হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় তৃতীয় স্থান অর্জনকারী তাকরীমকে সংবর্ধনা
আজ মির্জাপুরের দানবীর রনদা প্রসাদ সাহা সহ সাতজন হত্যা রায়

আজ মির্জাপুরের দানবীর রনদা প্রসাদ সাহা সহ সাতজন হত্যা রায়

প্রতিদিন প্রতিবেদক মির্জাপুর : মুক্তিযুদ্ধের সময় মির্জাপুর কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা রণদাপ্রসাদ সাহা, তাঁর ছেলে ভবানী প্রসাদ সাহাসহ সাতজনকে হত্যা তরা হয়।

এ ঘটনায় দায়ের করা হত্যা মামলার রায় দীর্ঘ দিন পর আজ বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) প্রদান করা হবে।

বুধবার (২৬ জুন) বিচারপতি শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ মামলার রায়ের জন্য দিন ধার্য করেন।

মুক্তিযুদ্ধের সময় দানবীর রণদাপ্রসাদ সাহা, তাঁর ছেলেসহ সাতজনকে হত্যার ঘটনায় টাঙ্গাইলের মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ মামলা করা হয়। গত বছর ১১ ফেব্রুয়ারী অভিযোগ আমলে নেওয়ার পর ১২ ফেব্রুয়ারী মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউশন।

২৮ মার্চ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে তাঁর বিচার শুরু করার আদেশ দেন ট্রাইব্যুনাল। এক বছরের বেশি সময় পর বুধবার আসামি পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষ হলে ট্রাইব্যুনাল মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ রাখেন।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন সরকারি কৌঁসুলি রানা দাশগুপ্ত। আসামিপক্ষে ছিলেন গাজি এম এইচ তামিম।

উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধের সময় উপমহাদেশের প্রখ্যাত দানবীর, মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, নারী শিক্ষা ও নারী জাগরণের অগ্রপথিক দানবীর রনদা প্রসাদ সাহা হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছিলেন। তার জন্ম টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে। আজীবন আর্ত মানবতার সেবায় কাজ করেছেন তিনি।

টাঙ্গাইল সহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় প্রতিষ্ঠা করেছেন একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ দাতব্য চিকিৎসালয়। মহান মুক্তিযুদ্ধে রয়েছে তার গুরুত্বপুর্ন ভুমিকা। তিনি তার প্রতিষ্ঠিত হাসপাতালে মুক্তিযুদ্ধের ময়দানে আহত মুক্তিযোদ্ধাদের দিয়েছেন চিকিৎসা। পাকিস্থানী হয়েনাদের থাবায় আহত নির্যাতিত নিরীহ বাঙ্গালীদের খুজে খুজে এনে দিয়েছেন চিকিৎসা এবং আশ্রয়। এ কারনে দানবীর রনদা প্রসাদ সাহাকে হত্যার পরিকল্পনা করে পাকিস্থানী হয়েনারা।

৭১ সালের ৭ মে স্থানীয় রাজাকার মাহবুবুর রহমানের নেতৃত্বে রাজাকাররা হত্যাযজ্ঞ চালায় গোটা মির্জাপুরে। তারা সেদিন রনদাপ্রসাদ সাহাকে ধরতে আক্রমন করে তার বাড়ী ও হাসপাতালসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে। তাকে ধরতে না পেরে রাজাকার বাহিনী জালিয়ে দেয় কয়েকটি গ্রাম। হত্যা করে বহু বাঙ্গালীকে।

রাজাকার মাহবুবুর রহমান ৭ মে মধ্যরাতে নারায়ণগঞ্জের স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় পাকিন্থানি হানাদার বাহিনীর ২০-২৫ জন সদস্যকে নিয়ে রণদা প্রসাদ সাহার বাসায় অভিযান চালায়।

অভিযানে রণদা প্রসাদ সাহা, তাঁর ছেলে ভবানী প্রসাদ সাহা, রণদা প্রসাদের ঘনিষ্ঠ সহচর গৌর গোপাল সাহা, রাখাল মতলব ও রণদা প্রসাদ সাহার দারোয়ানসহ সাতজনকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরে সবাইকে হত্যা করে মরদেহ নদীতে ফেলে দেওয়া হয়। এরপর তাদের মরদেহ আর পাওয়া যায়নি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840