সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলের ৭০ কিলোমিটার ফোরলেন।।স্বস্তিতে যাত্রীরা

টাঙ্গাইলের ৭০ কিলোমিটার ফোরলেন।।স্বস্তিতে যাত্রীরা

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলের দুই ফ্লাইওভার ও চার আন্ডারপাস খোলে দেওয়া হয়েছে এবং মহাসড়কে গাজিপুর ভোগড়া থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত প্রায় ৭০ কিলোমিটার ফোরলেন কাজের প্রায় ৯০ ভাগ সমাপ্ত হওয়ায় এবার ঈদে ঘরমুখো মানুষের চলাচল অনেকটা স্বস্তির হবে।

প্রতি ঈদেই ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যানঝটে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয় ঘরমুখো মানুষের। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আন্ডারপাস উদ্বোধন করেছেন। এসব আন্ডারপাস ব্যবহারও করা হচ্ছে।

মহাসড়কের দুইদিকে বর্ধিত কাজেরও প্রায় ৬০ ভাগ সমাপ্ত হয়েছে। এছাড়াও মহাসড়কে যাত্রীদের চলাচল নির্বিঘ্ন করতে টাঙ্গাইল জেলা পুলিশ নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন।

তবে এত কিছুর পরেও ঈদে যানঝটের আশংকা একেবারে উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছেনা। কারন মহাড়কের বিভিন্ন স্থানে যেমন রাবনা ফ্লাইওভার ও করটিয়া আন্ডারপাস মেরামতের কাজ চলছে।

এ মেরামত কাজের জন্যে যানঝটের কিছুটা আশংকা রয়েছে। এছাড়াও জামুর্কি বাজার এলাকা ও বাঐখোলা এলাকার প্রায় ৪শ’ মিটার সড়কে ছোট ছোট গর্ত রয়েছে। যদিও আগামী দুই-একদিনের মধ্যে এসব সমস্যা সমাধানের করা হবে বলে জানিয়েছে সড়ক ও জনপথ বিভাগ।

চারলেন প্রকল্পের প্রকল্প ব্যবস্থাপক অমিত কুমার চক্রবর্তী জানান, মহাসড়কের বর্তমান যে চিত্র তাতে ঈদে যানজটের কোন আশংকা নেই বললেই চলে। ছোট খাটো যে সমস্যা রয়েছে তা দু-এক দিনের মধ্যেই দুর করা হবে। বঙ্গবন্ধুসেতু-ঢাকা মহাসড়কে এবার ঈদে নির্বিঘ্নে যানবাহন চলাচল করবে বলেও আশা করেন তিনি।

এদিকে বঙ্গবন্ধুসেতুর পুর্ব প্রান্তে টোল প্লাজায় টোল আদায় যন্ত্রে কোন রকম সমস্যার সৃষ্টি হলে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হওয়ার আশংকা রয়েছে। আর যদি এ সমস্যা দীর্ঘস্থায়ী হয় তবে যানজট ৩০/৪০ কিলোমিটার পর্যন্তও দীর্ঘ হতে পারে।

যানজট এড়াতে বঙ্গবন্ধুসেতুর পণ্যবাহি ট্রাকের ওজন স্কেলটি সচল রাখতে আগে থেকেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন বলে মনে করছেন অনেকে।

বঙ্গবন্ধুসেতু কতৃপক্ষের এক প্রকৌশলী জানান, বঙ্গবন্ধুসেতুর টোল প্লাজার সফট ওয়ার সিষ্টেম সচল রাখতে সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে। এ সিষ্টেমের দায়িত্বরত প্রকৌশলীরা ২৪ ঘন্টাই তাদের দায়িত্ব পালন করবে।

সে কারনে সেতু পুর্ব প্রান্তে ঈদে যানজটের তেমন আশংকা নেই বলেও জানান ওই প্রকৌশলী।

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক দিয়ে উত্তরবঙ্গের ১৬টি জেলাসহ বৃহত্তর ময়মনসিংহের ২৬টি জেলার অন্তত ৯০টি সড়কের যানবাহন চলাচল করে থাকে।

এই মহাসড়ক দিয়ে যান চলাচল নির্বিঘ্ন করতে ২০১৩ সালে দুই লেনের এই মহাসড়কটি চার লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্প হাতে নেয় সরকার। ২০১৬ সালে প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ শুরু হয়।

প্রকল্পটি ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারীর মধ্যে শেষ হওয়ার কথা ছিল। তবে দুটি সার্ভিস লেন, ২৯টি নতুন ব্রিজ, চারটি ফ্লাইওভার ও ১৪টি আন্ডারপাস সংযুক্ত হওয়ায় নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করা সম্ভব হয়নি বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

ঈদে ঘরমুখো মানুষের চলাচল নির্বিঘ্ন করতে এবং মহাসড়ক যানজটমুক্ত রাখতে টাঙ্গাইল জেলা পুলিশের পক্ষ থেকেও নেয়া হয়েছে নানা পদক্ষেপ।

টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় জানান, মহাসড়ক যানজটমুক্ত রাখতে এবং যাত্রীদের নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রেখে এবার ঈদে সাত শতাধিত পুলিশ মহাসড়কে নিয়োজিত থাকবে। পুলিশের ৪০টি ভ্রাম্যমান দল সার্বক্ষনিক দায়িত্ব পালন করবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840