সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে ১৬ সরকারি প্রতিষ্ঠানে উড়ছে না জাতীয় পতাকা টাঙ্গাইলে ওয়ালটনের নন স্টপ মিলিয়নিয়ার অফার উপলক্ষে র‌্যালী কালিহাতীতে আওয়ামীলীগ-সিদ্দিকী পরিবার মুখোমুখি টাঙ্গাইলের তিন উপজেলায় মাঠ-ঘাট চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বজ্রপাতে দুই ভাইয়ের মৃত্যু রংপুরে শুরু হয়েছে শেখ হাসিনা অনুর্ধ্ব-১৫ টি টোয়েন্টি প্রমীলা ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চশমা প্রতীক নিয়ে সাংবাদিক আতিক জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ও জনসমর্থনে এগিয়ে ঘাটাইলে সেলাই মেশিন মার্কায় ভোট চাইলেন পৌর মেয়র আব্দুর রশীদ মিয়া টাঙ্গাইলে পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ দেবরের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ ; কাভার্ড ভ্যান জব্দ সাফল্য অর্জনেও ব্যতীক্রম নয় জমজ দুই বোন,  লাইবা ও লামিয়া দুজনেই পেলেন জিপিএ- ৫
টাঙ্গাইলে চরাঞ্চল গুলোতে বাড়ছে ক্ষতিকারক তামাক চাষ

টাঙ্গাইলে চরাঞ্চল গুলোতে বাড়ছে ক্ষতিকারক তামাক চাষ

মো.আবু জুবায়ের উজ্জল:- টাঙ্গাইলের চরাঞ্চল গুলোতে বাড়ছে ক্ষতিকারক তামাক চাষ। কৃষি সম্প্রসারন কৃষকদের নিরুৎসাহিত না করার কারনে এই তামাক চাষ বাড়ছে বলে মনে করছে স্থানীয়রা।

এতে করে হুমকি পড়ছে চরাঞ্চলের মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা। আগে যে সব জমিতে মশুর, মাস কালাই, বাদাম ও ভুট্টা চাষ হতো এবার সেসব ক্ষেতের অধিকাংশেই চাষ হচ্ছে তামাক। বিশেষ করে যমুনা ও ধলেশ্বরী নদীর চরাঞ্চলে তামাকের চাষ হচ্ছে বেশি। টোব্যাকো কোম্পানীর প্রলোভনে পড়ে অধিক লাভের আশায় কৃষকরা ঝুঁকছেন এ চাষে। অথচ তামাক চাষ করতে গিয়ে জমির উর্বরাশক্তি নষ্ট করাসহ কৃষক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ছে।

টাঙ্গাইল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায় টাঙ্গাইল সদর উপজেলার চরাঞ্চলে তামাক চাষ হচ্ছে। যমুনা, ধলেশ্বরী নদীর তীর ঘেষা এসব চরাঞ্চলে বর্ষাকালে পলি পড়ে। ফলে এসব এলাকার জমি উর্বর হওয়ায় আগে মশুর ও মাস কালাই, ভূট্টা, বাদাম, কাঊন, গম, আলু, আখ চাষ হতো বেশি।

কিন্তু এসব এলাকার অনেক জায়গায় কয়েক বছর ধরে তামাক চাষ হচ্ছে। বহুজাতিক ও দেশীয় টোব্যাকো কোম্পানীর প্রলোভনে পড়ে বেশি লাভের আশায় কৃষকরা আগ্রহী হয়ে উঠছে এ ‘বিষপাতা’ চাষে। কয়েকটি টোব্যাকো কোম্পানি, বিড়ি, সিগারেট ও জর্দা কোম্পানী তাদের প্রতিনিধির মাধ্যমে স্থানীয় কৃষকদের তামাক চাষে উদ্বুদ্ধ করছে। তারা কৃষকদের অধিক মুনাফার পাশাপাশি সার, বীজ ও সেচের জন্য নগদ টাকা মূলধন (ঋণ) হিসেবে দিচ্ছে। নানা সুযোগ-সুবিধা পাওয়ায় কৃষকও তামাক চাষে ঝুঁকছে।

টাঙ্গাইল সদরের কাকুয়া, হুগড়া, কাতুলী, মামুদনগর, চর পৌলী, দেলদুয়ার উপজেলার এলাসিন, দেউলী, লাউহাটি, নাগরপুরের পাকুটিয়া, ভাদ্রা, বেকরা, আটগ্রাম, সলিমাবাদ, ধুবুরিয়া, মোকনা, বনগ্রাম, শাহজানীসহ বিভিন্ন এলাকায় তামাক চাষ হচ্ছে।

তামাক চাষি মো.আকবার মিয়া জানান, তিনি এ বছর ৮ একর জমিতে তামাক চাষ করেছেন। প্রতি একরে তামাক চাষে খরচ হয়েছে প্রায় এক হাজার টাকা। এ তামাক বিক্রি করে লাভ হবে প্রতি একরে এক হাজার থেকে দেড় হাজার টাকা। তামাক চাষ করলে শুধু শরীরে খাটতে হয়, পুঁজি লাগেনা। তামাক শুকিয়ে কোম্পানীকে বুঝিয়ে দিলে লাভটা ঘরে আসে। তিনি জানান, এই জমিতে কালাই, বাদাম, চিনা চাষ করলে মূলধন ছাড়াও নিজের পাশাপাশি শ্রমিক লাগে। খরচ শেষে বিক্রি করে তামাকের চেয়ে অর্ধেকের চেয়ে কম লাভ হয়। তাই তিনি তামাক চাষ করছেন। আজিজুল, শহীদুল সাজেদুল, আজগর আলী, রশিদ মিয়া, আন্নেছ আলীর বক্তব্যও একই রকম। তাদের সবার একই কথা, তামাক চাষে জমি ও শরীরের ক্ষতি হলেও অধিক লাভের জন্যই তারা তামাক চাষ করছেন।

টাঙ্গাইলের সিভিল সার্জন ডা. শরীফ হোসেন খান বলেন, তামাক চাষ এবং তামাক পাতা শুকানো থেকে শুরু করে প্রক্রিয়াজাত করার সঙ্গে যুক্ত থাকলে বিভিন্ন চর্ম রোগে আক্রান্তসহ শ্বাসকষ্ট হতে পারে। এমনকি ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও থাকে।

টাঙ্গাইল জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, তামাক চাষে সরকারি কোন বিধি-নিষেধ নেই। তাই তামাক চাষের বিরুদ্ধে কঠোর হওয়া যাচ্ছে না। তবে এ ব্যাপারে কৃষকদের নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। আগের চেয়ে তামাক চাষ আস্তে আস্তে কমে যাচ্ছে। এ বছর টাঙ্গাইল জেলায় ২৩৫ হেক্টর জমিতে তামাক চাষ হচ্ছে বলে তিনি জানান।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840