সংবাদ শিরোনাম:
মধুপুরে বাসে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের দায়ে জরিমানা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে মাভাবিপ্রবি পরিবারের শ্রদ্ধা নিবেদন টাঙ্গাইলে আওয়ামীলীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী উদযাপিত বাসাইলে বজ্রাঘাতে কৃষকের মৃত্যু অচিরেই দেখা যাবে বিএনপি খণ্ডবিখণ্ড হয়ে পড়েছে: সাবেক কৃষিমন্ত্রী টাঙ্গাইলে প্রাইভেটকার-মাহিন্দ্রার সংঘর্ষে নিহত ২ স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে শিক্ষার পাশাপাশি খেলাধুলার বিকল্প নেই: শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী টাঙ্গাইলে ২হাজার ৮২টি ঈদুল আজহার জামাতের মাঠ প্রস্তুত টাঙ্গাইলে গরুর হাটের নিরাপত্তা ও মহাসড়কের যানজট নিরসনে কাজ করছে RAB টাঙ্গাইলে ১০৮ বোতল বিদেশী মদসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক
টাঙ্গাইলে চার উপজেলায় নির্বাচিত হলেন যারা

টাঙ্গাইলে চার উপজেলায় নির্বাচিত হলেন যারা

প্রতিদিন প্রতিবেদক:  টাঙ্গাইলে চারটি উপজেলা পরিষদের নির্বাচন বুধবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে জেলার সখীপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে অধ্যক্ষ সাঈদ আজাদ, বাসাইল উপজেলায় কাজী অলিদ ইসলাম, মির্জাপুর উপজেলায় তাহরীম হোসেন সীমান্ত ও গোপালপুর উপজেলায় কেএম গিয়াস উদ্দিন বিজয়ী হয়েছেন। রাতে নির্বাচনের সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তা এ ফলাফল ঘোষণা করেন।

সখীপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও বোয়ালী ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ সাঈদ আজাদ (আনারস) প্রতীকে ৩৭ হাজার ৭৯১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের মনোনীত (গামছা) প্রতীকের প্রার্থী সাবেক পৌর মেয়র ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক সানোয়ার হোসেন সজীব ১৯ হাজার ৪১২ ভোট পেয়েছেন। এছাড়াও উপজেলা পরিষদের দুই বারের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শওকত শিকদার (কাপ-পিরিচ) প্রতীকে ১৫ হাজার ৯৭৯ ভোট পেয়েছেন।

বাসাইল উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি কাজী অলিদ ইসলাম (আনারস) প্রতীকে ২৮ হাজার ৮৫৪ ভোট পেয়ে পুনরায় বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান কাজী শহিদুল ইসলাম (দোয়াত কলম) প্রতীকে ১৭ হাজার ৬৫৯ ভোট পেয়েছেন। এছাড়াও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী মতিউর রহমান গাউস (মোটরসাইকেল) প্রতীকে ১২ হাজার ৬৪০ ভোট পেয়েছেন।

মির্জাপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রয়াত এমপি একাব্বর হোসেনের ছেলে ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাহরীম হোসেন সীমান্ত (আনারস) প্রতীকে ৫৫ হাজার ৬৪৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস-চেয়ারম্যান এস এম মোজাহিদুল ইসলাম মনির (কাপ পিরিচ) প্রতীকে ৩১ হাজার ৮৮৪ ভোট পেয়েছেন। এছাড়াও জেলা বিএনপির সাবেক সদস্য ও বাংলাদেশ ইট প্রস্তুতকারী কেন্দ্রীয় মালিক সমিতির সভাপতি ফিরোজ হায়দার খান (মোটরসাইকেল) প্রতীকে ২১ হাজার ৬৬৪ ভোট পেয়েছেন।

গোপালপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি কেএম গিয়াস উদ্দিন (দোয়াত-কলম) প্রতীকে ৩৩ হাজার ৫১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মো. আইয়ুব খান (হেলিকপ্টার) প্রতীকে ৯ হাজার ৫৪৪ ভোট পেয়েছেন। এছাড়াও আব্দুল মোমেন (ঘোড়া) প্রতীকে ২ হাজার ৭৬৮ ভোট পেয়েছেন, শামসুল আলম (আনারস) প্রতীকে ২ হাজার ২৮ ভোট পেয়েছেন, মাহমুদুল হাসান (কাপ পিরিচ) প্রতীকে ৯৫৭ ভোট পেয়েছেন। এর আগে কোন প্রকার বিশৃংখলা ছাড়াই শান্তিপুর্ণভাবে সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহন চলে। চার উপজেলায় নির্বাচনে ২০ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী, ১৩ জন ভাইস চেয়ারম্যান ও ১১ জন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মতিয়ূর রহমান জানান, নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপুর্ণ করতে ৪ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, ৩৩ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ৮ প্লাটুন বিজিবিসহ পর্যাপ্ত সংখ্যক আইনশৃংখলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840