সংবাদ শিরোনাম:
মির্জাপুরে পুলিশ হেফাজতে এক ব্যক্তির মৃত্যু, আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করে এলাকাবাসী টাঙ্গাইল পৌর ভবনের সামনে স্থাপিত জাতির জনকের ভাস্কর্য ভেঙ্গে ফেলার এক বছরেও তা প্রতিস্থাপন হয়নি মাদক বিক্রির দায়ে মহিলা লীগ নেত্রী বহিস্কার সখীপুরে কৃষি মেলার উদ্বোধন নাগরপুরে সামাজিক সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত মধুপুরে বাল্য বিবাহ ও মাদক প্রতিরোধক বিষয়ক প্রশিক্ষণ ঘাটাইলে দায়িত্বে অবহেলার কারনে দুই শিক্ষককে অব্যাহতি ভূঞাপুরে আড়াই বছর পর ছাত্রলীগের কমিটি গঠন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হলেন ফজলুর রহমান খান জামিয়া আশরাফিয়া দারুল উলুম টাঙ্গাইল মাদ্রাসার আনুষ্ঠানিক ভাবে যাত্রা শুরু
টাঙ্গাইলে সহকারী পুলিশ সুপারের বিরুদ্ধে স্ত্রী পেটানোর অভিযোগ

টাঙ্গাইলে সহকারী পুলিশ সুপারের বিরুদ্ধে স্ত্রী পেটানোর অভিযোগ

বিশেষ প্রতিবেদক: নির্মম ও নির্দয়ভাবে মধ্যযুগীয় কায়দায় স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে টাঙ্গাইলের এক সহকারী পুলিশ সুপারের বিরুদ্ধে। তার নাম রুবেল হক। তিনি টাঙ্গাইলের মহেড়া পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারে কমান্ড্যান্টের স্টাফ হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। তিনি চাপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার তেররশিয়া গ্রামের জারজিস আলী মধুর ছেলে। এ ঘটনায় মির্জাপুর থানায় মামলা না নেওয়ায় রুবেলসহ চারজনকে আসামী করে টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে মামলা করেন নির্যাতনের শিকার ওই নারী।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০২১ সালের ৩১ মে নওগাঁ জেলার ধামইরহাট থানার চকযাদু গ্রামের আফজাল হোসেনের মেয়ে সায়মা সুলতানা সিমির সাথে সহকারী পুলিশ সুপার রুবেলের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই রুবেল যৌতুকের জন্য বিভিন্ন সময় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতেন। রুবেল ও তার পরিবার ২০ লাখ টাকা যৌতুক হিসেবে দাবি করেন। এ ঘটনায় সিমির পরিবার বিয়ের সময় ১০ লাখ টাকা ও ১২ ভরি স্বর্ণ রুবেলকে দেয়। কিন্ত তার পরেও রুবেল ও তার পরিবার সিমির উপর অত্যাচার ও নির্যাতন অব্যাহত রাখে। নারায়নগঞ্জ থাকাকালীন সময়ে ২০২১ সালের ১৮ আগস্ট শারীরিকভাবে ব্যাপক নির্যাতন করেন রুবেল। এ ঘটনায় নারায়নগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহণ করতে হয়। তখন বিষয়টি নারায়নগঞ্জের পুলিশ সুপারকেও জানান সিমি। অভিযোগের বিষয়টি জানতে পেরে রুবেল সিমিকে আরো মারধর করেন। সিমি তার ঢাকার বোনের বাসায় আসলেও সেখানে এসেও রুবেল তাকে মারধর করে। এ ঘটনায় ৩১ অক্টোবর পল্টন থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন সিমি। এর কিছুদিন পর রুবেল টাঙ্গাইলের মহেড়া পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারে বদলী হয়ে আসেন। মহেড়া অফির্সাস কোয়াটারে থাকাকালীন সময়ে চলতি বছরের ১ মে সামান্য কথা কাটাকাটি নিয়ে ব্যাপক মারধর করেন। শরীরের বিভিন্ন গোপন অংশে মারধর করেন যাতে তিনি কাউকেও দেখাতে না পারেন। এছাড়াও মারধর করে সিমির হাত ভেঙে দেয়া হয়। পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসা না নেয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করায় তিনি টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহণ করেন। তাকে ডির্ভোস দিয়ে চলে না যাওয়ায় দিন দিন পাশবিক নির্যাতনের পরিমাণও বাড়াতে থাকে রুবেল। সেই সাথে রুবেলের সাথে থাকতে হলে আরো ৫০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। মহেড়া অফির্সাস কোয়ার্টারে রুবেলের বাবা, মা ও তার বোন থাকতো। তারাও রুবেলের সাথে মারধর করতেন। তাদের নির্যাতনে মারাত্বক আহত হয়ে গত ৯ আগষ্ট ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সিমি চিকিৎসা নেন। এর আগে গত ৩ জুলাই রুবেলের নির্মম নির্যাতনে শিকার হয়ে গুরুত্বর আহত হয়ে ৯৯৯ কল করেন। পরে মির্জাপুর থানা থেকে উপ-পরিদর্শক মোশারফ হোসেন এসে ঘটনা তদন্ত করেন। এসব ঘটনা তিনি মহেড়া পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের কমান্ড্যান্টকে জানান। তার কাছে থেকেও কোন সুবিচার না পেয়ে সিমি গত ৬ সেপ্টেম্বর টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে সহকারী পুলিশ সুপার রুবলে হক, তার বাবা জারজিস আলী মধু, মা নাসিমা বেগম ও বোন নাসরিন খাতুনের নামে মামলা দায়ের করেন।

নির্যাতনের শিকার সায়মা সুলতানা সিমি বলেন, রুবেল প্রতারণা করে আমাকে বিয়ে করেছেন। তিনি এর আগেও একাধিক বিয়ে করেছেন। সে পরকিয়ায় আসক্ত। আমার সামনেই সে অন্য মেয়ের সাথে চ্যাটিং করে। বাধাঁ দিতে গেলেই ব্যাপক মারধর করে। ডির্ভোস দেয়ার জন্য প্রতিনিয়ত মারধর করেন এবং বলেন নিজে থেকে চলে না গেলে তোকে মেরে ফেলা হবে। রুবেল ও তার প্রেমিকা আমাকে হত্যা করার পরিকল্পনা করেছে। যাতে তারা বিয়ে করতে পারে। তার পরেও আমি সব সময়ই তার সাথে থেকে মানিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেছি। কোয়ার্টারে সবার সামনেই তারা আমাকে মারধর করত। এছাড়াও সে দম্ভ করে বলে আমি পুলিশ অফিসার। আমার কিছুই হবে না। এ ঘটনায় আমি গত ১ সেপ্টেম্বর মির্জাপুর থানায় মামলা করতে যাই। ওসি মামলা নিতে অপরাগতা প্রকাশ করে। পরে আদালতে মামলা দায়ের করি। আমার উপর যে নির্যাতন ও অত্যাচার হয়েছে এর সুষ্ঠ বিচার চাই।

মির্জাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম বলেন, সায়মা সুলতানা সিমি নামের এক নারী একটি অভিযোগ পত্র নিয়ে এসেছিলেন। ঘটনাটি যেহেতু দাম্পত্য কলহের তাই আমি টাঙ্গাইল পুলিশ সুপারকে অবগত করি। তাকে মামলা গ্রহণের জন্য নিষেধ করা হয়নি। আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধানের জন্য বলা হয়েছিলো।

সায়মা সুলতানা সিমির আইনজীবী মইদুল হোসেন শিশির বলেন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক শুনানী শেষে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটকে ঘটনার তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার বলেন, এটি থানায় মামলা নেওয়ার আগেই আদালতের মাধ্যমে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়। সেখানে ৮ সেপ্টেম্বর বসার তারিখ ছিল কিন্তু সিমি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ৬ তারিখে মামলা করে ফেলেছে। যার কারণে মামলা নেওয়া সম্ভব হয়নি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840