টাঙ্গাইলের সাংবাদিক রেফাজ কারাগারে ।। রয়েছে নানা অনিয়ম ও দূনীতির অভিযোগ

টাঙ্গাইলের সাংবাদিক রেফাজ কারাগারে ।। রয়েছে নানা অনিয়ম ও দূনীতির অভিযোগ

প্রতিদিন প্রতিবেদক : দ্বিতীয় স্ত্রীর নির্যাতন ও যৌতুক মামলায় টাঙ্গাইলের সাংবাদিক রেফাজুর রহমানকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। এছাড়াও সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে জেলার বিভিন্ন স্থানে অনিয়ম ও দূনীতির অভিযোগে প্রেসক্লাব থেকে বহিস্কার করা হয়েছে।

তার প্রকাশনা ও সম্পাদনায় টাঙ্গাইল থেকে প্রকাশিত দৈনিক কালের স্রোত পত্রিকায় কর্মরত সকল কর্মচারীরা সহ ভোক্তভোগীরা তার অপকর্মের বিষয়গুলো তুলে ধরে বিচারের দাবী জানিয়েছেন।

একই সাথে তার সম্পাদনায় প্রকাশিত পত্রিকাটি বন্ধের দাবী জানিয়েছেন।

রোববার দুপুরে টাঙ্গাইল সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জামিন আবেদন করেন টাঙ্গাইল থেকে প্রকাশিত দৈনিক কালের স্রোত পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক রেফাজুর রহমানসহ অপর তিন আসামী।

তবে উচ্চ আদালতের দেয়া জামিন শর্তে প্রাপ্ত সময় শেষের দিন নিম্ন আদালতে হাজির হয়ে এ জামিন আবেদন করলে অপর তিন জনের জামিন মঞ্জুর করলেও মামলার প্রধান আসামী রেফাজুর রহমান এর ওই জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালতের বিচারক আব্দুল্লাহ আল মাসুম এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদালত পরিদর্শক আনোয়ারুল ইসলাম।

এ মামলার আসামী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম চাকলাদার জানান, দায়েরকৃত মামলায় উচ্চ আদালতে জামিনপ্রাপ্তির শেষ দিনেই এ মামলার অন্যতম আসামী রেফাজুর রহমানসহ অপর আসামীরা হাজির হন।

তবে বিচারক এ মামলায় রেফাজকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিলেও অপর তিন আসামীর জামিন মঞ্জুর করেছেন। এ মামলার পুনরায় জামিন আবেদন করা হবে বলেও জানান তিনি।

তবে বিভিন্ন লোককে চাকুরি ও বিদেশ পাঠানোর প্রলোভন দেখিয়ে অর্থ আত্মসাৎ এবং নারী নির্যাতন ও নৈতিক স্খলনের অভিযোগে ও গঠণতন্ত্র বিরোধী কার্যকলাপে লিপ্ত থাকায় গত ২ মার্চ রাতে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় সর্বসম্মতিক্রমে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাব থেকে রেফাজুর রহমানকে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এর আগে একই অভিযোগে রেফাজুর রহমানকে ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধি পদ থেকে অব্যাহতি দেন। রেফাজুর রহমান টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি টাঙ্গাইল থেকে প্রকাশিত দৈনিক কালের ¯্রােত পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন।

টাঙ্গাইল প্রেসক্লাব সূত্র জানায়, রেফাজুর রহমান দীঘদিন যাবৎ সাংবাদিকতার নাম ভাঙিয়ে চাকুরি দেয়াসহ বিদেশে লোক পাঠানোর প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন লোকের কাছ থেকে অর্থ আত্মসাৎ করছিলেন।

এ ব্যাপারে বেশকয়েকজন ভুক্তভোগী প্রেসক্লাবে অভিযোগ করেন, রেফাজ তাদের অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। তবে এ স্বত্তেও তাদের টাকা ফেরৎ চাইতে গেলে তিনি সাংবাদিকতার প্রভাব খাটিয়ে পুলিশ ও রাজনৈতিক শক্তি ব্যবহার করে হয়রানির ভয় দেখাতো।

দেলদুয়ার উপজেলার রূপসী গ্রামের রবিউল আলম অভিযোগ করেন, তার ছোট ভাই আব্দুল্লাহ আল মামুনকে সুইডেন পাঠানোর কথা বলে তিন লাখ টাকা নেন রেফাজুর রহমান। টাকা নেয়ার বিপরীতে রেফাজুর রহমান সোনালী ব্যাংক, ভিক্টোরিয়া রোড শাখার একটি চেক প্রদান করেছেন।

পরবর্তীতে রেফাজুর রহমান ঢাকায় গিয়ে রবিউল আলমের ভাইয়ের কাছ থেকে পয়তাল্লিশ হাজার টাকা নেন। রবিউল আলম তার ভাইকে বিদেশ পাঠানোর তাগাদা দিলে রেফাজুর রহমান টালবাহানা করতে থাকেন।

এক পর্যায়ে রেফাজুর রহমানের কাছে টাকা ফেরত চাইলে তিনি টাকা ফেরত না দিয়ে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন। ফলে বাধ্য হয়ে শেষ পর্যন্ত তিনি টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

সদর উপজেলার বাঘিল ইউনিয়নের ফজলুল হক নামক এক ব্যক্তি অভিযোগ করেন, তার ছেলেকে মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকুরির জন্য রেফাজুর রহমানের সাথে পাঁচ লাখ টাকার চুক্তি হয়। অগ্রীম দেড় লাখ টাকা দেন। চাকুরি দিতে না পারায় রেফাজুর রহমান ৮০ হাজার টাকা ফেরত দেন। বাকী ৭০ হাজার টাকা ফেরত দিচ্ছেন না। টাকা চাইতে গেলে নানাভাবে হুমকি দেয়।

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার বড়বেলতা গ্রামের রফিকুল ইসলাম প্রেসক্লাব সভাপতি/ সাধারণ সম্পাদক বরাবর অভিযোগ করেন– তার ভাই, বোনসহ ১০ জনকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ও সিভিল সার্জনের কার্যালয়ে ৪র্থ শ্রেণিতে কর্মচারী পদে চাকুরি দেয়ার কথা বলে তিন লাখ ৫০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেছেন রেফাজুর রহমান। তিনি চাকুরিও দিতে পারেন নাই, টাকাও ফেরত দিচ্ছেন না। এখন টাকা চাইতে গেলে নাশকতার মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়ার ভয় দেখায়।

রেফাজুর রহমানের মালিকানাধীন দৈনিক কালের স্রোত পত্রিকায় কর্মরত এক মহিলা সাংবাদিক অভিযোগ করেন রেফাজুর রহমানের স্ত্রী দুই সন্তান থাকার পরেও তাকে বিয়ে করেছেন এবং ফুসলিয়ে আট লাখ টাকা নিয়েছেন। তাকে নিয়ে শহরের একটি রেষ্টহাউজে রাত্রি যাপন করতে গেলে পুলিশ তাদের এক কক্ষ থেকে আটক করে। পরে রেফাজ ওই মহিলা সাংবাদিককে বিয়ে করতে বাধ্য হন।

পরে তালাক দেয়ার জন্য তাকে নানাভাবে নির্যাতন করা শুরু করে। এ ঘটনায় দ্বিতীয় দফায় বিবাহ বন্ধনের দাবিপ্রাপ্ত স্ত্রী নাজমা আক্তার চলতি বছরের ৪ জানুয়ারী টাঙ্গাইল সদর থানায় নির্যাতন ও যৌতুকের অভিযোগ এনে একটি মামলাও দায়ের করেছেন।

রেফাজুর রহমানের মালিকানাধীন ও তার সম্পাদনায় প্রকাশিত দৈনিক কালের স্রোত পত্রিকার বার্তা সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালনকারী ও ক্লাব সদস্য আরিফ উর রহমান টগর প্রেসক্লাব সভাপতি/ সাধারণ সম্পাদক বরাবর এক দরখাস্তে জানান, কালের ¯্রােত পত্রিকায় কর্মরত থাকাকালে রেফাজুর রহমানের কাছে তার বেতন ভাতা বাবদ ১১ লাখ ৪৭ হাজার টাকা পাওনা রয়েছে। এই বকেয়া বেতনের দাবি করাসহ রেফাজের বিভিন্ন অপকর্মের সম্পৃক্ত না হওয়ায় নানাভাবে ক্ষতি সাধনের চেষ্টা করছেন।

এর প্রেক্ষিতে ও অভিযোগ তদন্তে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠণ করা হয়। পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট এই তদন্ত কমিটি তদন্তকালে রেফাজুর রহমানের বিরুদ্ধে আনা সবগুলো অভিযোগের সত্যতার প্রমাণ পায়। পরে তদন্ত শেষে ওই কমিটি রিপোর্ট প্রেসক্লাব কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেন।

এ তদন্ত প্রতিবেদনে শনিবার (২ মার্চ) রাতে কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় প্রেসক্লাবের সভাপতি জাফর আহমেদের সভাপতিত্বে এ বিষয়ে আলোচনার পর রেফাজুর রহমানকে সর্বসম্মতিক্রমে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। রেফাজুর রহমানের সদস্য পদ বাতিল হওয়ায় গঠণতন্ত্র অনুযায়ী তার পত্রিকার কোঠা থেকে প্রেসক্লাবের অপর সদস্য নাজমা আক্তার এর পদটিও চলে যায়।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840