সংবাদ শিরোনাম:
মির্জাপুরে পুলিশ হেফাজতে এক ব্যক্তির মৃত্যু, আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করে এলাকাবাসী টাঙ্গাইল পৌর ভবনের সামনে স্থাপিত জাতির জনকের ভাস্কর্য ভেঙ্গে ফেলার এক বছরেও তা প্রতিস্থাপন হয়নি মাদক বিক্রির দায়ে মহিলা লীগ নেত্রী বহিস্কার সখীপুরে কৃষি মেলার উদ্বোধন নাগরপুরে সামাজিক সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত মধুপুরে বাল্য বিবাহ ও মাদক প্রতিরোধক বিষয়ক প্রশিক্ষণ ঘাটাইলে দায়িত্বে অবহেলার কারনে দুই শিক্ষককে অব্যাহতি ভূঞাপুরে আড়াই বছর পর ছাত্রলীগের কমিটি গঠন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হলেন ফজলুর রহমান খান জামিয়া আশরাফিয়া দারুল উলুম টাঙ্গাইল মাদ্রাসার আনুষ্ঠানিক ভাবে যাত্রা শুরু
টাঙ্গাইলে ‘সূত্রহীন’ ধর্ষণ ও হত্যা মামলার রহস্য উদ্ঘাটন করলো পিবিআই

টাঙ্গাইলে ‘সূত্রহীন’ ধর্ষণ ও হত্যা মামলার রহস্য উদ্ঘাটন করলো পিবিআই

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে সূত্রহীন (ক্লু-লেস) খোদেজা খাতুন ধর্ষন ও হত্যা মামলার রহস্য উদ্ঘাটন করেছে পিবিআই। ধর্ষণ ও হত্যাকান্ডে জড়িত প্রধান আসামিসহ ৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

আজ রবিবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানিয়েছে পিবিআই। পিবিআই এর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সিরাজ আমীন জানিয়েছে প্রেমের ফাঁদে ফেলে প্রথমে ধর্ষণ ও পরে হত্যা করা হয়েছে খোদেজাকে।

গ্রেপ্তারকৃত আসামীরা হলো : মামলার প্রধান আসামী টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার ঝাওয়াইল ইউনিয়নের বেঙ্গুলা গ্রামের মৃত নগেন চন্দ্র দাসের ছেলে শ্রী কৃষ্ণ চন্দ্র দাস (২৮)। সহযোগিরা হলো, ধনবাড়ী উপজেলার বলিভদ্র ইউনিয়নের ইসপিনজারপুর গ্রামের মোশারফ হোসেনের ছেলে সৌরভ আহম্মেদ হৃদয় (২৩), ধনবাড়ী উপজেলার কেরামজানি গ্রামের মো: গিয়াস উদ্দিনের ছেলে মো: মেহেদী হাসান ওরফে টিটু(২৮) ও ধনবাড়ী উপজেলার ইসপিনজারপুর গ্রামের মৃত মজিবর রহমানের ছেলে মো: মিজানুর রহমান (৩৭)।

পিবিআই জানায়, চলতি মাসের ৩ আগস্ট টাঙ্গাইলের ভ’ঞাপুর উপজেলার বীর বরুয়া এলাকার ভূঞাপুর-তাড়াকান্দি সড়কের পাশে বস্তাবন্দি অবস্থায় অজ্ঞাত একটি মেয়ের লাশ উদ্ধার করে। পরবর্তীতে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে ৫ দিনের মধ্যে নিহতের পরিচয় সনাক্ত করে প্রধান আসামীসহ হত্যা ও লাশ গুম করতে সহযোগিতা করায় আরো তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত প্রধান আসামী শ্রী কৃষ্ণ চন্দ্র দাস খোদেজাকে ধর্ষণ ও হত্যার কথা স্বীকার করে জানায়, গোপালপুর উপজেলার জয়নগর এলাকার মো: খোকন মন্ডলের মেয়ে খোদেজা খাতুনের সাথে মুঠোফোনের মাধ্যমে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে ওঠে। এসময় আসামী শ্রী কৃষ্ণ চন্দ্র দাস তার নাম পরিচয় গোপন রেখে সানি আহমেদ বলে পরিচয় দেয়। এছাড়াও সে একজন বড় ব্যবসায়ী বলেও জানায়। এরপর থেকে খোদেজাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দেখা করার জন্য জোর করতে থাকে। পরে ২ আগস্ট সোমবার দুপুরে খোদেজা গোপালপুর উপজেলার মনতলা নানীর বাড়ি থেকে নিজ বাড়ি ফেরার পথে শ্রী কৃষ্ণ চন্দ্র দাসের সাথে দেখা করে এবং গ্রেপ্তারকৃত আসামী মিজানুর রহমানের বাড়িতে যায়। সেখানে একটি ঘরে জোরপূর্বক একাধিকবার খোদেজাকে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে খোদেজা নিজেকে রক্ষায় ডাক চিৎকার শুরু করলে শ্রী কৃষ্ণ চন্দ্র দাস তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। এসময় ওই ঘরের বাইরে পাহাড়া দেয় ওই তিন সহযোগিরা। পরে লাশ গুম করার জন্য মিজান একটি সিএনজি ভাড়া করে। সিএনজিটি নিজেরাই চালিয়ে খোদেজার বস্তাবন্দি লাশ নিয়ে ভূঞাপুর-তাড়াকান্দি সড়কের বীর বরুয়া এলাকায় ফেলে দেয়।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840