টাঙ্গাইলে স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রীর অভিযোগ

টাঙ্গাইলে স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রীর অভিযোগ

tangail-pratidin

প্রতিদিন প্রতিবেদক: টাঙ্গাইলের মধুপরের আউসনারা গ্রামের চুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক হাসান তারিক (৪৫) এর বিরুদ্ধে নির্যাতন ও যৌতুকের অভিযোগ করেছেন তার স্ত্রী আলেয়া পারভীন।

অভিযোগ সূত্রে যানা যায়, ২০১৮ সালের ৩১ শে আগস্টে মুধুপুর উপজেলার আউসনারা গ্রামের মৃত আবুল কাশেম এর ছেলে হাসান তারিক (৪৫) এর সাথে আলেয়া পারভীনের বিবাহ হয়। আলেয়া পারভীন হাসান তারিক এর দ্বিতীয় স্ত্রী।

হাসান তারিকের প্রথম ঘরে কোন সন্তান না হওয়ায় তার প্রথম স্ত্রীর লিখিত সম্মতিক্রমে তিনি দ্বিতীয় বিবাহ করেন। আলেয়া পারভীন বিবাহের পূর্বে থেকেই বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন। বিবাহের কিছু দিন পর থেকেই যৌতুক ও মাসিক বেতনের টাকার জন্য হাসান তারিক ও প্রথম স্ত্রী রহিমা খাতুন লিলি দ্বিতীয় স্ত্রী আলেয়া পারভীনের উপর শারিরিক নির্যাতন করে আসছিল দীর্ঘদিন যাবৎ। ইতিপূর্বেও আলেয়া পারভীন তার জমানো ৪ লাখ টাকা স্বামী হাসান তারিককে দিয়েছেন এবং বেতনের টাকাও প্রতিমাসে নিয়ে নেয়।

এছাড়াও প্রায়ই তালাক দেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করে। হাসান তারিক তার দুই স্ত্রীকে আলাদা বাসায় রাখলেও রহিমা খাতুন লিলি প্রায়ই সতীন আলেয়া পারভীনের উপর শারিরিক নির্যাতন ও বাসার আসবাবপত্র ভাংচুর করত।

আলেয়া পারভীন জানান চলতি মাসের ১ তারিখ হতে ৪ তারিখ পর্যন্ত আমার স্বামী ও সতিন একযোগে আমার ঘরে প্রবেশ করিয়া উভয়েই মারধর করে। তারা লাঠি দ্বারা ও কিল গুসি মেরে শরীরে নিলা ফুলা জখম করে। ২ তারিখে চোখের ডাক্তার দেখানো হয়। এপ্রিল ৪ ২০২০ইং তারিখে আমার সতিন ও স্বামী দুইজন মিলে যৌতুকের জন্য চাপ প্রয়োগ করে, আমি অস্বীকার করায় আমাকে জোরপূর্বক তালাক দিতে বলে। যৌতুক ও তালাক না দেওয়ায় উচ্ছেমত মারধর করে জখম করে এবং আমার ১০ মাসের বাচ্চাকে ঘরে আটকিয়ে রাখে। পরে বাধ্য হয়ে ৯৯৯ কল দিলে মধুপুর থানার এসআই সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ এসে আমি এবং আমার বাচ্চাকে উদ্ধার করে মধুপুর উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এরপর এসআই সাইফুল ইসলামের কাছে আইনী সহায়তা চাইলে তিনি সাধারণ ডায়েরী করেন। পরবর্তীতে মিমাংসার জন্য এসআই সাইফুলের সাথে অনেক বার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ৯ এপ্রিল তারিখ দিলেও বিবাদী পক্ষের কেউ হাজির হয়নি। এবং এ ব্যাপারে এসআই সাইফুল ইসলাম মিমাংসার কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেনি।

এসআই সাইফুল ইসলাম জানান, তিনি অভিযুক্ত হাসান তারিককে বার বার খবর পাঠালেও তিনি দেখা করেনি। আমি তদন্তটা আদালতে পাঠাইছি। আদালত রায় দিলে আসামীদের গ্রেফতার করা হবে।

ভুক্তভোগী আলেয়া পারভীন বলেন, আমি ৯৯৯ কল করলে মধুপুর থানার এসআই সাইফুল ইসলাম উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করেন। হাসপাতালের সকল কাগজপত্র এসআই সাইফুল ইসলাম নিয়ে নেয়। এরপর মামলা করতে চাইলে এসআই সাইফুল মামলা না নিয়ে আমাকে দিয়ে সাধারণ ডায়েরী করান মিমাংসা করে দিবেন বলে। কিন্তু মিমাংসার নামে আমি হয়রানির শিকার হচ্ছি।

গত ৯ এপ্রিল মধুপুর থানায় মিমাংসার নামে ফোন করে এসআই সাইফুল। আমি এই দুর্যোগের সময় কষ্ট করে মধুপুর থানায় হাজির হই। তখন এসআই সাইফুল বলেন বিবাদী পক্ষ আসে নাই। মিমাংসার ব্যাপারে অনুরোধ করার পরেও এসআই সাইফুল ইসলামসহ মধুপুর থানা কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে আজ পর্যন্ত কোন আইনী সহায়তা পাইনি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840