টাঙ্গাইলে ৭দফা দাবিতে সকশিস’র মতবিনিময় সভা

টাঙ্গাইলে ৭দফা দাবিতে সকশিস’র মতবিনিময় সভা

প্রতিদিন প্রতিবেদক: টাঙ্গাইলে ৭দফা দাবিতে সরকারি কলেজ শিক্ষক সমিতি (সকশিস) এর মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে টাঙ্গাইল প্রেস ক্লাবের বঙ্গবন্ধু অডিটরিয়ামে জেলা সকশিস এ আয়োজন করে।

এতে লিখিত বক্তব্য দেন জেলা সকশিস এর সভাপতি মো.জাহাঙ্গীর আলম। তিনি বলেন, ২৯৯ টি কলেজ সরকারিকরণের জন্য নির্বাচিত হওয়ার পর শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশে ৯ টি আঞ্চলিক অফিসের পরিচালক ও সহকারি পরিচালকের নেতৃত্বে কলেজগুলো পরিদর্শন করা হয়েছে।

উক্ত পরিদর্শন টিম একটি পরিদর্শন প্রতিবেদনও মাউশিতে যথাসময়ে জমা দিয়েছেন। এসব পরিদর্শন প্রতিবেদনকে মূল্যয়ন না করে গত ৭ জুলাই ২০১৮ সালে তারিখের পত্রানুসারে ২৯৯ টি কলেজের শিক্ষক কর্মচারীদের আত্তীকরণের লক্ষ্যে সকল শিক্ষা স্তরের ১ম ও শেষ অধিভুক্তির পত্রাদেশের কপি, প্রতিষ্ঠানের ১ম এমপিও এবং শেষ এমপিও এর কপি প্রত্যেক শিক্ষক কর্মচারীর জন্য পদ সৃষ্টির রেজুলেশন,

পত্রিকার বিজ্ঞপ্তির কপি, নিয়োগ বোড গঠনের রেজুলেশন , ডি. জি প্রতিনিধি ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধি মনোনয়নের চিঠির কপি, নিয়োগ পরীক্ষার মূল্যায়ন সীটের কপি, নিয়োগপত্র, যোগদানপত্র, নিয়োগ ও যোগদান অনুমোদনের রেজুলেশন, ১ম এমপিও এবং মেষ এমপিও এবং স্মারক বই এর কপিসমূহডিসি/ ইউএনও কর্তৃক যাচাই এর পর মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর ১৬ মে ২০১৯ তারিখের মধ্যে জমা নেয়। জমাকৃত ফাইলসমূহ যাচাই বাছাই না করে উক্ত কপিসমূহের মূল কাগজ মাউশিতে পুনঃরায় উপস্থাপন করতে হচ্ছে।

উপস্থাপিত কলেজসমূহের কাগজপত্রাদি যাচাই করে মাউশি যে সমস্ত কলেজের ফাইল শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করেছিল সেগুলো আবার শিক্ষা মন্ত্রাণালয় থেকে ডিজিতে এনে পুনরায় যাচাই বাছাই করা হচ্ছে। এভাবে যদি আবার সকল কলেজের ফাইল পুনরায় যাচাই বাছাই করা হয় তবে কত সময় লাগবে তা ভেবে দেখার বিষয়।

আবার শুনা যাচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ও আবার প্রত্যেক কলেজের নিকট থেকে সকল প্রকার মূল কাগজ যাচাই করবে। তিনি আরো বলেন, এভাবে দীর্ঘসূত্রিতা, কালক্ষেপন ও হয়রানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিভিন্ন অজুহাতে স্বার্থান্নেসী ও সুবিধাভোগী মহল সরকারের মহতী উদ্যোগ ও মহান অর্জনকে নসাৎ করার জন্য পায়তারা করছে এবং ইতোমধ্যেই প্রায় তিন বছর সময় লেগেছে। এতে সাধারণ জনগণ, শিক্ষার্থীসহ প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্ট শিক্ষক-কর্মচারী সরকারিকরণের সকল প্রকার সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

৭দফা দাবিসমূহ গুলো হলো, দ্রুত সময়ের মধ্যে বিষয় ভিত্তিক সম্বনিত পদ সৃজন ও পদায়ন করতে হবে, বৈধভাবে নিয়োগ প্রাপ্ত সকল শিক্ষক-কর্মচারীকে আত্তীকরণ করতে হবে, কলেজ শিক্ষক ও কর্মচারী আত্তীকরণ বিধিমালা ২০১৮ এর ১৫ ধারায় ২ উপধারার (ক) ও (খ) অনুচ্ছেদ অনুসরণ পূর্বক পদায়ন সমপন্ন করতে হবে, দ্রুত সময়ের মধ্যে আত্তীকরণ বিধিমালা ২০১৮ এর ৮ ধারা মোতাবেক ক্যাডার ভ’ক্তির বিধিমালা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করতে হবে, দ্রুত পদ সোপন তৈরি ও পদোন্নতির শর্তাবলী প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করতে হবে, ১০০% চাকুরিকাল গণনা করা এবং কার্যকরী চাকুরিকাল পদোন্নতিসহ সকল জায়গায় কার্যকর করতে হবে ও অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে বেতন স্কেল নির্ধারণ করতে হবে।
এসময় কেন্দ্রীয় সকশিস এর সিনিয়র সহ-সভাপতি মো.নছরুল আজম, জেলা শাখার সম্পাদক মোহাম্মদ মোজাম্মেল হোসেনসহ জেলার নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840