টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সংবাদ সম্মেলন

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সংবাদ সম্মেলন

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল ভাংচুর, স্টাফদের মারধর ও হত্যার হুমকি সহ নানা অনাকাঙ্খিত ঘটনার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

শনিবার দুপুরে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু অডিটোরিয়ামে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. নারায়ন চন্দ্র সাহা।

তিনি জানান, জেনারেল হাসপাতাল কতৃপক্ষের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে যে অভিযোগ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন।

তিনি উক্ত সংবাদ সম্মেলনের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, গত বৃহস্পতিবার (২৩ মে) বিকেলে টাঙ্গাইল শহরের পশ্চিম আকুর টাকুর পাড়ার মৃত তালু হোসেন আকন্দের ছেলে মুকুল আকন্দ (৬০) হৃদরোগ, মস্তিস্ক ও ফুসফুসের নানাবিধ জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নিয়ে আসলে তাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসহ তাৎক্ষণিক মেডিসিন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।

সেখানে রোগীর অবস্থা দেখে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাৎক্ষনিক প্রয়োজনীয় চিকিৎসা প্রদান করেন এবং রোগী স্বজনদেরকে বুঝিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন এবং রোগীর স্বজনদের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র বুঝিয়ে দেন।

রোগীর স্বজনরা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিকে অপরগতা প্রকাশ করেন। রোগীর অবস্থা আশংকাজনক জেনেও জেনারেল হাসপাতালেই চিকিৎসা করাতে বলেন।

তাদের সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে করতে ভর্তির প্রায় ৪ ঘন্টা চলে যায়। এ অবস্থায় রোগীর অবস্থা আরো বেগতিক হওয়ায় রাত ৮টার দিকে রোগীর স্বজনরা রোগীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যেতে সম্মত হন।

পরে রোগীকে হাসপাতাল থেকে নিচে নামানোর সময় রোগীর অবস্থার অবনতি হলে রোগীকে পুনরায় জরুরী বিভাগে নিয়ে আসেন।

সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক রোগীকে মৃত ঘোষনা করলে রোগীর স্বজনরা চিকিৎসকসহ অন্যান্য স্টাফদের উপর চড়াও হয়ে দুর্ব্যবহার শুরু করেন।

এক পর্যায়ে রোগীর ছোট ভাই হুমায়ন রশীদ আকন্দ সোনার নেতৃত্বে একদল লোক হাসপাতালের ওয়ার্ডে গিয়ে ভাংচুর চালায় এবং কর্তব্যরত নার্সদের উপর হামলা করেন।

একই সাথে কর্তব্যরত ইন্টার্নীদেরকে হত্যার হুমকি প্রদান করেন। তাদের ব্যবহার ও হুমকীর কারনে হাসপাতালে চাকুরীরত সকল স্টাফ তথা চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্য কর্মচারীবৃন্দ চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে।

কর্তব্যরত অবস্থায় আমাদের পর্যাপ্ত নিরাপত্তা প্রদান করে অনাকাঙ্খিত ঘটনায় জড়িত নিহতের ছোট ভাই হুমায়ন রশিদ আকন্দ সোনা ও গং সহ জড়িত সকলকে আইনের আওতায় এনে তাদের উপযুক্ত বিচারের দাবী জানান তারা।

সংবাদ সম্মেলনে ডা. শফিকুল ইসলাম সজীব জানান, এ ঘটনায় তাকে জড়িয়ে বিভিন্ন মাধ্যম সংবাদ প্রকাশ করেছে। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন, রোগী মৃত্যুও সময় তিনি হাসপাতালে কর্মরত ছিলেন না। তিনি তার বাসায় অবস্থান করছিলেন। পরবর্তীতে এ অনাকাঙ্খিত ঘটনার খবর পেয়ে তিনি হাসপাতালে আসেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মো. নূরুল আমীন মিঞা, বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) জেলা শাখার সভাপতি ডা.সৈয়দ ইবনে সাঈদ, সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. শহীদুল্লাহ কায়সার, জুনিয়র কনসালটেন্ট (মেডিসিন) মো. রাশেদুল হাসান।

উল্লেখ্য, নিহত মুকুল আকন্দ হার্ট এ্যাটাক, স্ট্রোকসহ শরীরের ডান পাশ অবশ ও ফুসফুসে সংক্রমনসহ মারাত্বক ধরনের রোগে দীর্ঘদিন যাবত ভুগিতে ছিলেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840