সংবাদ শিরোনাম:
বিন্দুবাসিনী স্কুলের সীমানা প্রাচীর অপসারণ বন্ধের দাবিতে মানববন্ধ ধনবাড়ীতে প্রাইভেটকার চাপায় নিহত ১ আহত ৪ ভূঞাপুরে ৩৭টি পূজা মন্ডপে পৌর মেয়রের আর্থিক অনুদান টাঙ্গাইল শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলমগীর সম্পাদক রৌফ সাফ জয়ী কৃষ্ণা রানী সরকার ও কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটনকে সংবর্ধনা দিয়েছে টাঙ্গাইল জেলা ক্রীড়া সংস্থা ভাসানীর মাজারে ন্যাপ ভাসানীর পুষ্পস্তবক অর্পণ গোপালপুরে কৃষ্ণাকে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সংবর্ধনা নাগরপুরে এবারের দুর্গোৎসব হবে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় বজ্রপাত প্রতিরোধে বাতিঘর আদর্শ পাঠাগারের উদ্যোগে তালবীজ বপন বিএনপির মিথ্যাচার করে দেশে একটি অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করছে -কৃষিমন্ত্রী
টাঙ্গাইল বি.জি.এফ’র চাউল বিতরনে ইউপিতে চরম অনিয়ম

টাঙ্গাইল বি.জি.এফ’র চাউল বিতরনে ইউপিতে চরম অনিয়ম

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলে বি.জি.এফ-এর চাল বিতরণে চরম অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সদর উপজেলার ঘারিন্দা, করটিয়া ও গালা সহ বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে বি.জি.এফ (হত দরিদ্র) চাল সরকারি ভাবে ১৫ কেজি করে দেওয়ার কথা থাকলেও ১০ থেকে ১২ কেজি বিতরন করছে ইউপি কতৃপক্ষ।

বৃহস্পতিবার করটিয়া ইউপিতে জায়গা না থাকায় এইচ.এম. ইনিস্টিটউট স্কুল এন্ড কলেজে সকাল থেকে চাল বিতরন করা হয়।

এর পূবের্ ঘারিন্দা ও গালা ইউনিয়নে প্রশাসনের উপস্থিতিতে ১৫ কেজি করে চাউল বিতরণ করা হলেও পরে ১০ থেকে ১২ কেজি এবং ব্যবসায়ীদের কা্ছে বস্তায় বস্তায় বিক্রি করা হয়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় প্রতিজন হত দরিদ্রকে ১৫ কেজি করে চাল দেওয়ার কথা থাকলেও ১০ থেকে ১২ কেজি করে চাউল বিতরন করা হচ্ছে।

এতে জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। মেম্বারদের স্বজন প্রীতির কারনে প্রকৃতহত দরিদ্ররা চাউল থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বলে অভিযোগ ওঠেছে। ভাতকুড়া গ্রামের মুন্টু সূত্রধর এর স্ত্রী আলো রানী একই গ্রামের রিপন সূত্রধরের স্ত্রী মমতা সূত্রধর ও অনুসূত্রধর জানান আমাদের কার্ডে ১৫ কেজি করে চাউল দেওয়ার কথা থাকলেও মানিক মেম্বার তাহা অমান্য করে ১২ কেজি করে চাউল দিচ্ছে।

এবং এলাকার হতদরিদ্র্রদের কার্ড না দিয়ে মানিক মেম্বারের বাহামভূক্ত ও স্বচ্ছল লোকদের এবং একই ব্যাক্তিকে ৩ থেকে ৪টি করে কার্ড দিয়েছে। তারা চাউল তুলে গেটের বাহিরে পাইকারদের কাছে চাউল বিক্রি করে টাকা নিয়ে চলে যাচ্ছে।  

ঢেলি করটিয়ার মৃত হোসেন আলীর ছেলে ইসমাইল (৪৫) জানান, এই চাউল সরকার হতদরিদ্রদের দিয়েছে। অথচ আমি একজন অসহায় দরিদ্র হয়েও মেম্বারদের স্বজন প্রীতির কারনে আমি কার্ড হতে বঞ্চিত হয়েছি।

নামদার কুমুল্লীর বাবুল মিয়ার স্ত্রী আসমা জানান,আমি একেবারেই গরিব মানুষ সরকার গরিব মানুষের জন্য এই চাউল দিয়েছে,অথচ মেম্বারা তাদের আত্মীয় স্বজনদের একই নামে টা করে কার্ড দিয়ে চাউল উত্তোলন করাচ্ছে। 

চাউল কম দেয়া ও সজনপ্রীতির ব্যাপারে মানিক মেম্বার জানান, চেয়ারম্যান সাহেব সব জানেন। তাকে গিয়ে জিজ্ঞেসা করেন।

করটিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খালেকুজ্জামান চৌধুরী মজনু জানান, ১৫ কেজির জায়গায় ১৪ কেজি হতে পারে । ১২ কেজি হতে পারে না। তারপরও বিষয়টি আমি দেখছি। 

টাঙ্গাইল সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ( ভারপ্রাপ্ত) জানান, সরকারি নিয়মে অনিয়ম করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বিষয়টি তিনি দেখবেন বলেও জানান। 

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840