জাতিসংঘের ইউনিসেফের নাম ভাঙ্গিয়ে টাঙ্গাইল শহরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনার অভিযোগ

জাতিসংঘের ইউনিসেফের নাম ভাঙ্গিয়ে টাঙ্গাইল শহরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনার অভিযোগ

প্রতিদিন প্রতিবেদক: জাতিসংঘের ইউনিসিফ এর নাম ভাঙ্গিয়ে টাঙ্গাইলে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতিষ্ঠানটি গত দুই বছর ধরে কোমলমতি শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের সাথে প্রতারণা করছে বলেও অভিযোগ করেছেন প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ ও সাধারণ শিক্ষকরা।

খোজ নিয়ে জানা গেছে ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে শহরের সাবালিয়া এলাকায় একটি ভাড়া বাসা নিয়ে সুনীতি চিলড্রেনস্ হোমস্ নামের একটি প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেন বজলুর রশিদ নামের এক ব্যক্তি। এরপর ঐ প্রতিষ্ঠানে একজন অধ্যক্ষ এবং ছয়জন সহকারি শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়। অধ্যক্ষের বেতন ত্রিশ হাজার টাকা এবং সহকারি শিক্ষকদের দশ হাজার টাকা করে বেতন ধার্য্য করা হয়।

শিক্ষকদের বলা হয়, এটি ইউনিসেফ এর একটি প্রকল্প। এ প্রকল্পের মাধ্যমে বিনামূল্যে ছাত্র-ছাত্রীদের স্কুল ড্রেস, প্রতিদিন মাথাপিছু দুইশত টাকা করে টিফিন, মাসিক রেশনের মাধ্যমে চাল, ডাল, তেল, আটা সরবরাহসহ সকল শিক্ষা সামগ্রী প্রদান করা হবে। একথায় আশ্বস্থ হয়ে শিক্ষকরা স্থানীয় বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্লে গ্রুপ থেকে পঞ্চম শ্রেণী র্পযন্ত ৬৫জন ছাত্র-ছাত্রী সুনীতি চিলড্রেনস্ হোমসে র্ভতি করান।

র্ভতরি সময় ছাত্র-ছাত্রীদরে কাছ থকেে বেতন ও সেশন ফি বাবদ এক হাজার টাকা করে নেয় প্রতিষ্ঠানটি এছাড়াও প্লে গ্রুপ থেকে পঞ্চম শ্রেণী র্পযন্ত পাঁচশত টাকা থেকে বারশো টাকা র্পযন্ত বেতন আদায় করা হয়। এভাবে মাসের পর মাস চলতে থাকে।

জানা যায়, গত ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা বজলুর রশিদ হঠাৎ মারা যাবার পর তার স্ত্রী জাহান আরা রশিদ ও ছেলে জাহিদুল ইসলাম চৌধুরী প্রতিষ্ঠানের পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ ও সাধারণ শিক্ষকদের ১০০০ থকেে ২০০০ হাজার টাকার বেতন হিসেবে প্রদান করা হয়। যদিও অধ্যক্ষের বেতন ত্রিশ হাজার ও সহকারি শিক্ষকদের বেতন দশ হাজার টাকা করে র্ধায্য ছিল।

অধ্যক্ষ রোকসানা আক্তার জানান, এক র্পযায়ে ইউনিসেফ এর বিষয়টি নিয়ে শিক্ষকদের মাঝে সন্দেহ দেখা দিলে দুই পরিচালককে প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র দেথাতে বলেন। কিন্তু পরিচালকদ্বয় তা দেখতে র্ব্যথ হন।

পরিচালক জাহান আরা রশিদ শিক্ষকদের বলেন, আপনারা কাজ চালিয়ে যান চলতি বছরেই ইউনিসেফ এর প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। এ কথায় আশ্বস্থ হয়ে শিক্ষকরা তাদের দায়িত্ব পালন করতে থাকেন। কিন্তু ২০১৯ সালেও ইউনিসেফ এর কোন প্রকল্পের দেখা মিলেনি। এ অবস্থায় ছাত্র-ছাত্রীরাও স্কুল ত্যাগ করতে থাকেন।

অক্টোবরে শিক্ষকরাও প্রতিষ্ঠান থেকে বিদায় নেয়ার কথা জানিয়ে দেন। এরপর থেকেই প্রতিষ্ঠানের পরিচালক জাহান আরা রশিদ ও জাহিদুল ইসলাম চৌধুরী অধ্যক্ষ ও সাধারণ শিক্ষকদের নানাভাবে হয়রানি করে আসছেন। একই ভাবে অনেক অভিবাবকেও তারা ভয়ভীতি প্রর্দশন করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এব্যাপারে জানতে সুনীতি চিলড্রেন হোমস্ এর পরিচালক জাহান আরা রশিদের মোবাইল ফোনে (০১৭১২৩৯৪৭৪২) একাধিকবার কল করলেও তিনি রিসিভ করেননি। এছাড়াও তার ছেলে পরিচালক জাহিদুল ইসলাম চৌধুরীর মোবাইল ফোনে (০১৮২১৮১৬৬১২ ও ০১৭৪২৩৫২৮৫৮) যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে নম্বর দুটি বন্ধ পাওয়া যায়।

এদিকে র্আন্তজাতিক সংস্থা ইউনিসেফ এর নাম ভাঙ্গিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা এরকম একটি প্রতারণার ঘটনায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে স্থানীয়দের মাঝে। এলাকাবাসী এই প্রতারণার সুষ্ঠ তদন্ত ও বিচার দাবি করেছে।

উল্লেখ্য, জাতিসংঘ শিশু তহবিল বা ইউনিসেফ জাতিসংঘের একটি বিশেষ সংস্থার নাম। শিশূদের উন্নিতি ও নিরাপত্তা সংক্রান্ত র্কমকান্ড পরিচালনা করে থাকে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840