সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে ১৬ সরকারি প্রতিষ্ঠানে উড়ছে না জাতীয় পতাকা টাঙ্গাইলে ওয়ালটনের নন স্টপ মিলিয়নিয়ার অফার উপলক্ষে র‌্যালী কালিহাতীতে আওয়ামীলীগ-সিদ্দিকী পরিবার মুখোমুখি টাঙ্গাইলের তিন উপজেলায় মাঠ-ঘাট চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বজ্রপাতে দুই ভাইয়ের মৃত্যু রংপুরে শুরু হয়েছে শেখ হাসিনা অনুর্ধ্ব-১৫ টি টোয়েন্টি প্রমীলা ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চশমা প্রতীক নিয়ে সাংবাদিক আতিক জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ও জনসমর্থনে এগিয়ে ঘাটাইলে সেলাই মেশিন মার্কায় ভোট চাইলেন পৌর মেয়র আব্দুর রশীদ মিয়া টাঙ্গাইলে পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ দেবরের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ ; কাভার্ড ভ্যান জব্দ সাফল্য অর্জনেও ব্যতীক্রম নয় জমজ দুই বোন,  লাইবা ও লামিয়া দুজনেই পেলেন জিপিএ- ৫
টাঙ্গাইল সৃষ্টি স্কুলে শিক্ষার্থীদের হাত-পা ও মুখ বেঁধে নির্যাতন

টাঙ্গাইল সৃষ্টি স্কুলে শিক্ষার্থীদের হাত-পা ও মুখ বেঁধে নির্যাতন

প্রতিদিন প্রতিবেদক : সৃষ্টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মানুষ গড়ার কারিগরের নামে এ কেমন বর্বরতা চলছে। শিক্ষার্থীদের হাত-পা ও মুখ গামছা দিয়ে বেঁধে মেঝেতে ফেলে স্ট্যাম্প দিয়ে গনপিটুনি দিয়ে সারা রাত মেঝেতে ফেলে রাখে শিক্ষকরা।

কোন প্রকার চিকিৎসা না করে পরদিন সকালে অভিভাবকদের ডেকে শিক্ষার্থীকে আরো শাস্তি দেয়ার কথা বলেন। কিন্তু অভিভাবকদের সাথে শিক্ষার্থীদের কোন প্রকার দেখা বা যোগাযোগ করতে দেয়া হয়নি।

যাতে শিক্ষার্থীরা চিৎকার করতে না পারে এবং প্রতিষ্ঠানের সুনাম নষ্ট না হয় সে কারনেই এই বর্বরতা।

তবে এমন নির্যাতনে শ্বাস বন্ধ হয়ে বা হৃদক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পরতে পারে এমন মন্তব্য চিকিৎসকদের।

মানুষ কতটুকু অমানুষ হলে শিক্ষার্থীদের হাত-পা ও মুখ গামছা দিয়ে বেধে নির্যাতন চালায়? প্রশ্ন টাঙ্গাইলবাসীর কাছে।

টাঙ্গাইল পৌরএলাকার বিশ্বাস বেতকায় সৃষ্টি রেসিডেনসিয়াল স্কুলে সিগারেট খাওয়াকে কেন্দ্র করে প্রায় ১১ জন ছাত্রকে হাত-পা ও মুখ গামছা দিয়ে বেধে মেঝেতে ফেলে স্ট্যাম্প দিয়ে বেতড়ক পিটানো হয়।

পরে ছাত্ররা ক্ষিপ্ত হয়ে মাঝরাত থেকে সকাল পর্যন্ত আবাসিক ভবনে ব্যাপক ভাংচুর চালায়। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সোমবার (১৮ মার্চ) সরোজমিনে শিবনাথ পাড়া সুপারি বাগান এলাকায় গেলে এসব তথ্য পাওয়া যায়। এ ব্যাপারে আগামী বুধবার অভিভাবকদের সঙ্গে এক বৈঠকে বসবেন সৃষ্টি রেসিডেনসিয়াল স্কুলের পরিচালক ও শিক্ষকরা।

তবে সৃষ্টি প্রতিষ্ঠানের নামে ইতিপূর্বে শিক্ষার্থীদের উপর নির্যাতন করার একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

প্রতিষ্ঠানের মালিক প্রভাবশালী হওয়ায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা মূখ খোলতে সাহস পাচ্ছে না।

এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছেন অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী।

নবম শ্রেণীর ছাত্র আল আমিনের মা জলি আক্তার জানান, ‘শনিবার সকালে এক শিক্ষকের ফোন পেয়ে তিনি আবাসিকে আসেন। কিন্তু তাকে তার ছেলের কাছে যেতে দেয়া হয়নি। তাকে অফিস রুমে বসিয়ে রাখা হয়। প্রায় ২ ঘণ্টা পর ছেলেকে তার কাছে আনা হয়। তখন ছেলের পা দিয়ে রক্ত ঝরছিল। পরে তাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যায়।

সেখানে ছেলে জানায়, শিক্ষকরা ওর দুই পা থেকে শুরু করে কোমড় পর্যন্ত পিটিয়েছে এবং সারা রাত মেঝেতে ফেলে রাখা হয়েছিল।

আবাসিক ভবনের ছাত্র আব্দুল্লাহ আল জোয়াহের পিতা মনিরুজ্জামান জানান, শিক্ষকরা ছাত্রদের উপর অমানুষিক নির্যাতন চালানোর পর ছাত্ররা বিক্ষুদ্ধ হয়ে ভাংচুর চালায়। কেন ছাত্রদের উপর শারীরিক নির্যাতন করা হলো? এর বিচার চাই।

আবাসিক স্কুলের অফিস এক্সজিকিউটিভ ইসমাইল হোসেন জানান, শুক্রবার বিকেলে নবম শ্রেণীর ছাত্র পারভেজ, মাজেদুর, সাগর ও রাফিসহ আরো কয়েকজন ভবনে ধুমপান করে আবাসিক শিক্ষক মিজানের কাছে ধরা পড়ে।

এদেরকে অফিস রুমে ডেকে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় এবং অভিযুক্ত ছাত্রদের অভিভাবকদের বিষয়টি জানানো হয়। এতে ঐ ছাত্ররা ক্ষিপ্ত হয়ে শিক্ষক মিজানের উপর হামলা করে।

পরবর্তীতে শনিবার সকাল থেকেই দশম শ্রেণীর ছাত্র আতিকুর, সিয়াম, সাগর ও শাওনের নেতৃত্বে আবাসিক ভবনে থাকা সাড়ে তিনশত ছাত্র ভাংচুরে অংশ নেয়।

সৃষ্টি রেসিডেনসিয়াল স্কুলের অধ্যক্ষ লিয়াকত আলী লিটন জানান, আবাসিকের কয়েকজন ছাত্র সিগারেট খাওয়ায় শিক্ষকরা তাদের একটু শাস্তি দিয়েছিলেন। এই ক্ষোভে তারা ভবনে ব্যাপক ভাংচুর চালায়।

টাঙ্গাইল মডেল থানার ওসি সায়েদুর রহমান জানান, স্কুলের ছাত্ররা ভবনে ব্যাপক ভাংচুর চালালে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আর অভিভাবকদের অভিযোগ ঠিক না।

ছাত্র ও অভিভাবকরা জানান, গত শুক্রবার রাতে সৃষ্টি রেসিডেনসিয়াল স্কুলের নবম শ্রেণীর কয়েকজন ছাত্র ধুমপান করলে শিক্ষকরা সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে দেখে আবাসিক শিক্ষকরা ১১ জন ছাত্রকে ডেকে শাসিয়ে দেন এবং বিষয়টি অভিভাবকদের জানান।

এ নিয়ে ছাত্ররা ক্ষিপ্ত হয়ে ভবনের ভেতরে একটি সিসি ক্যামেরা ভেঙে ফেলে এবং ভবনে থাকা অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র থেকে কার্বনডাই অক্সাইড ছেড়ে দেয়। এতে আবাসিক শিক্ষকের কক্ষে ধোয়া প্রবেশ করলে তিনি ভয় পেয়ে অন্য শিক্ষকদের ডাকেন। পরে তারা ১১ জন ছাত্রকে ডেকে নিয়ে তাদের হাত, পা ও মুখ গামছা দিয়ে বেধে মেঝেতে ফেলে স্ট্যাম্প দিয়ে বেড়ক পেটায়।

পরের দিন শনিবার সকালে অভিভাবকদের খবর দিলে তারা ছাত্রদের নিয়ে যান। শনিবার রাতেই আবাসিকের ছাত্ররা আবার ক্ষিপ্ত হয়ে ভবনের নিচতলা থেকে শুরু করে চারতলা পর্যন্ত ব্যাপক ভাংচুর চালায়।

অফিস কক্ষ, লিফট, চেয়ার, টেবিল, খাট, ফ্যান, কম্পিউটার, গ্লাসসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাংচুর করা হয়। এসময় ওই ভবনের আশপাশে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে রাতেই পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840