সংবাদ শিরোনাম:
ধনবাড়ীতে সফল জয়িতা যারা

ধনবাড়ীতে সফল জয়িতা যারা

হাফিজুর রহমান, ধনবাড়ী: টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে ২০২১ সালে জীবনের দু:খ কষ্টকে হার মানিয়ে অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জনকরা ৪ নারী আজ সাফল্যের শিখরে পৌঁছেছেন।

সরেজমিনে গিয়ে কথা বলে জানা যায়, নারী জয়িতা ধনবাড়ী উপজেলার পৌরসভার কিসামত গ্রামের শফিকুল ইসলামের স্ত্রী মরিময় বেগম। নিজের কোন জায়গা জমি না থাকায় অন্যের বাড়ীতে ঝিয়ের কাজ করে সংসার চালাতে হতো খুবই কষ্টে সংসার চলতো। তার মধ্যেই নিজেরা করি সমিতি’র একজন নারী কর্মী’র সহায়তায় আমাকে টাঙ্গাইলে একটি মৌলিক প্রশিক্ষণে পাঠায়। সেখানে গিয়ে তিনি জীবন অধিকার সর্ম্পকে অনেক কিছু জানতে পারে। এবং সেই থেকে নিজেকে নিজেই প্রতিষ্ঠিত করার শপথ নেন। পরে বাড়ী ফিরে এসে গ্রামীন ব্যাংক হতে ঋণ নিয়ে গরু কিনে পালন করে বর্তমানে অর্থনৈতিকভাবে তিনি একজন সফল নারী। শুধু মরিয়মই নয় শিক্ষা ও চাকুরীর ক্ষেত্রে সাফল্যে অর্জন কারী নারী ধনবাড়ী পৌর শহরের মেইন রোডের বাসিন্ধা রহুল আমিনের স্ত্রী মোছাম্মৎ শামছুন্নাহার। বাবার ঘরে পরিবারের সদস্য সংখ্যা বেশী থাকায় আর্থিক অস্বচ্ছলতার মধ্যে দিয়ে খুবই কষ্টে মানবেতর জীবন যাপন করে বড় হতে হয়েছে তার। এসএসসি পাস করার পরেই বিয়ের পিড়িতে বসতে হয় শামছুন্নাহারের। তবুও তিনি পড়া শুনা থামিয়ে রাখেনি। স্বামীর সংসারে এসেও লেখাপড়া চালিয়ে আজ তিনি উপজেলার পাঁচপটল ডিগ্রী কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের প্রভাষক হিসেবে কর্মরত আছেন। পাশাপাশি তিনি কবিতা গল্প উপন্যাস লেখেন। তিনি আজ একজন সফল নারী।

পৌরসভার চাতুটিয়া গ্রামের বাবর আলীর স্ত্রী মোছা: শেফালী বেগম দুই সন্তান নিয়ে অজপাড়া গ্রামে বসবাস করে অতি কষ্টে হাঁস মুরগী পালন করে সংসার পরিচালনা ও দুই সন্তান কে পড়াশুনা করিয়েছেন। আজ তার বড় ছেলে পিডিবি’র সহকারী প্রকৌশলী পদে ও ছোট ছেলে বাংলাদেশ ডাক বিভাগে পোষ্ট মাষ্টার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। তিনি একজন সফল নারী জননী হিসেবে প্রত্যন্ত এলাকায় এক দৃষ্টান্ত উদাহরণ।

সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রেখেছেন রেবেকা সুলতানা। তার অদম্য ইচ্ছে শক্তিই আজ তিনি সমাজে সফলতার শীর্ষে স্থান করে নিয়েছেন। তিনি ১৯৭০ সালের ৩১ ডিসেম্বর উপজেলার পাইস্কা ইউনিয়নের প্যারিআটা গ্রামে মধ্যবিত্ত পরিবারে জম্ম গ্রহন করেন। তিনি ১৯৮৫ সালে স্থানীয় পিটিএস উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও ধনবাড়ী কলেজ থেকে ১৯৮৭ সালে এইচ এস সি পাস করেন। এইচএসসি পাস করার পরেই তার পরিবার থেকে তাকে বিয়ে দেন একই উপজেলার ধনবাড়ী পৌরসভার বর্ণিচন্দবাড়ী গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত্র পরিবরের সাইফুল ইসলাম বেলালের কাছে। রেবেকা পড়াশুনায় অন্ত্যন্ত মনযোগী ও মেধাবী থাকায় স্বামীর সংসার থেকেই তিনি ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে অর্নাসে ভর্তি হন। পরে ১৯৯১ সালে অর্নাস ও ৯২ সালে মার্ষ্টাস পাস করেন। পরবর্তীতে তিনি ধনবাড়ীতে নিজ এলাকায় এসে নারীদের ক্ষতায়ন ও এগিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে কাজ শুরু করেন। তিনি এলাকায় বাল্য বিয়ে থেকে শুরু করে নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধে উতপ্রতোভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। শুধু তাই নয় রেবেকা ১৯৯৫ সালে তার দক্ষ নেতৃত্বের গুনে ধনবাড়ী উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগ প্রতিষ্ঠাতা ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব প্রাপ্ত হন।

অন্যদিকে, তিনি ১৯৯৮ সালে বঙ্গবন্ধু কলেজ তারাকান্দিতে সহজকারী অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে ২০০১ সালে আসিয়া হাসান আলী মহিলঅ ডিগ্রী কলেজে সহকারী অধ্যপক্ষ হিসেবে অধ্যবধি পর্যন্ত কর্মরত আছেন। পারিবারিক জীবনে দুই পুত্র সন্তান নিয়ে স্বামীর সংসার গুছিয়ে সমাজে পিছিয়ে পড়া নারীদের কে নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। সেই সাথে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা’র কার্যালয়ের সাথে তিনি সামাজের পিছিয়ে পড়া নারীদের কে নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি আজ একজন সফল নারী।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840