সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে ১৬ সরকারি প্রতিষ্ঠানে উড়ছে না জাতীয় পতাকা টাঙ্গাইলে ওয়ালটনের নন স্টপ মিলিয়নিয়ার অফার উপলক্ষে র‌্যালী কালিহাতীতে আওয়ামীলীগ-সিদ্দিকী পরিবার মুখোমুখি টাঙ্গাইলের তিন উপজেলায় মাঠ-ঘাট চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বজ্রপাতে দুই ভাইয়ের মৃত্যু রংপুরে শুরু হয়েছে শেখ হাসিনা অনুর্ধ্ব-১৫ টি টোয়েন্টি প্রমীলা ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চশমা প্রতীক নিয়ে সাংবাদিক আতিক জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ও জনসমর্থনে এগিয়ে ঘাটাইলে সেলাই মেশিন মার্কায় ভোট চাইলেন পৌর মেয়র আব্দুর রশীদ মিয়া টাঙ্গাইলে পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ দেবরের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ ; কাভার্ড ভ্যান জব্দ সাফল্য অর্জনেও ব্যতীক্রম নয় জমজ দুই বোন,  লাইবা ও লামিয়া দুজনেই পেলেন জিপিএ- ৫
নাগরপুরে প্রাণি সম্পদ দপ্তরে এল.এস.পি প্রকল্পের নিয়োগে চরম দূর্নীতি

নাগরপুরে প্রাণি সম্পদ দপ্তরে এল.এস.পি প্রকল্পের নিয়োগে চরম দূর্নীতি

প্রতিদিন প্রতিবেদক : নাগরপুরে উপজেলার প্রাণিসম্পদ দপ্তরে এল.এস.পি (LSP) প্রকল্পের নিয়োগে চরম দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।মোটা অংকের ঘুষের বিনিময়ে একই ব্যাক্তিকে বার বার এবং অন্যচাকুরীতে কর্মরত ব্যাক্তিকে নিয়োগ দিয়ে দপ্তরের সুনাম নষ্ট করছেন উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. আনোয়ার হোসেন।

তিনি দীর্ঘ দিন যাবৎ উপজেলায় কর্মরত থেকে স্থানীয় সরকার দলীয়দের প্রভাব খাটিয়ে ক্ষমতার অপব্যবহার করে দূনীতির মাধ্যমে নিয়োগ বানিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন।

দূর্নীতির এই নিয়োগের বিষয়টি নিয়ে উপজেলা ও ভুক্তভোগীদের মাঝে চরম ক্ষোভ ও তীব্র নিন্দা বিরাজ করছে।

এ ব্যাপারে এই প্রতিবেদক ডা. মো. আনোয়ার হোসেন-এর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি ফোনে কথা না বলে বিভিন্ন মাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ না করার চেষ্টা চালান।

তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রধানমন্ত্রীর সু’দৃষ্টি ও জেলা দূনীতি দমন কমিশন, জেলা প্রণিসম্পদ দপ্তর সহ প্রশাসনের উদ্ধর্তন কর্মকর্তাদের অনুরোধ জানিয়েছেন ভূক্তভোগী পরিবার সহ উপজেলাবাসীরা।

সরেজমিনে নাগরপুর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গিয়ে চাকুরীতে আবেদনকারী ও উপজেলাবাসীর সাথে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া যায়।

নাম না প্রকাশের শর্তে এবং নাম প্রকাশ করে একাধিক ব্যক্তি সুনির্দিষ্ট দূর্নীতির তথ্য প্রমান দেন। গত ১৬/১০/১৯ ইং তারিখে ১১ ইউনিয়নে ১ জন করে মোট ১১ জন চূড়ান্ত মনোনীত প্রার্থীর নামের তালিকা  সংশ্লিষ্ট দপ্তরের নোটিশ বোর্ডে প্রকাশ করা হয়। 

নিয়োগের বিজ্ঞাপ্তি গত ২৮/০৭/২০১৯ ইং তারিখের নাগরপুরে উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরের নোটিশ বোর্ড-এ প্রকাশিত ছিল। নিয়োগ বিজ্ঞাপনে নাগরপুর উপজেলার সব ক’টি ইউনিয়নের ২৫-৪৫ বছর বয়সী নারী ও পুরুষ স্থায়ী বাসিন্দাদের কাছ থেকে অবেদন আহবান করা হয়।

যেখানে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক খামারীদের অগ্রাধিকার দেয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছিল। তদুপরি এসএসসি পাস বা সমমানের শিক্ষাগত যোগ্যতা সম্পন্ন ও প্রাণিসম্পদ বিষয়ে ডিএলএস বা যুব উন্নয়ন কেন্দ্র বা অন্য কোন স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান হতে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ও প্রাণিসম্পদ সেবা বা লালন পালন কাজের অভিজ্ঞতা সনদের কথাও বলা হয়েছিল।

এ ছাড়াও অন্যকোন প্রতিষ্ঠানে পূর্ণকালিন কর্মরতদের এবং এনএটিপি এর সীলদের আবেদন না করার কথা উল্লেখ থাকে।স্মারক নং ৩৩.০১.৯৩৭৬.০০০.১৪.০০১.১৯ এর নোটিশে আরো উল্লেখ থাকে লাইভষ্টক সার্ভিস প্রোভাইডার স্ব-হস্তে লিখিত দরখাস্তে যোগ্য প্রার্থীদের নাম, পিতার নাম ও মাতার নাম, বর্তমান ঠিকানা, স্থায়ী ঠিকানা, মোবাইল নম্বর, জাতীয়তা, এনআইডি নম্বর, জন্ম তারিখ, বৈবাহিক অবস্থা, শিক্ষাগত যোগ্যতা, প্রশিক্ষণ, অভিজ্ঞতা উল্লেখ করে সকল প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ নিম্নস্বাক্ষরকারী দপ্তরে জমা দেবে।

কিন্তু বিসমিল্লাহ-ই গলদ বলে যে প্রবাদ আছে তার উৎকৃষ্ট উদাহরণই এই দপ্তরের এল এস পি (LSP) প্রকল্পের নিয়োগের ফলাফল তালিকা।

১ নং ক্রমিককে উপজেলার ভারড়া সুবর্নতলী গ্রামের মো. হাবিবুর রহমানের ছেলে মো. আরিফুল ইসলাম চূড়ান্ত ভাবে মনোনীত হয়েছেন। কিন্তু তিনি সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার স্থায়ী বাসিন্দা। 

৩ নং ক্রমিকের নাগরপুরে জন্য নিয়োগ প্রাপ্ত আলোকদিয়ার ফজলুর ছেলে আলমাস উদ্দিন নিজেকে পশু ডাক্তার বলে দাবি করে। তার শিক্ষাগত যোগ্যতার কথা জানতে চাইলে নিজেকে এসএসসি পাস দাবি করে কিন্তু তিনি তার ভোটার আইডি কার্ড ও এসএসসি পাসের সার্টিফিকেট দেখাতে ব্যর্থ হন।

এ ছাড়াও এই পদে নিয়োগের জন্য নারীদের অগ্রাধিকারের বিষয় থাকলেও তার চেয়ে অধিক যোগ্যতা সম্পন্ন অন্তত ৫ জন নারী ও ১০ জন পুরুষ প্রার্থীকে বাদ দিয়ে ডাক্তার দাবি করা আলমাস কে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

তিনি এই পদে নিয়োগ পাওয়ার আগে থেকেই মোটরসাইকেলে ডা. আলমাস উদ্দিন লিখে এলাকার মানুষদের বিভ্রান্ত করে আসছে বলেও প্রমান পাওয়া যায়।

এ ছাড়াও ৫ নং ক্রমিকের মোহাম্মদ এর মেয়ে লাভলী আক্তার সলিমাবাদ ইউনিয়নের বাসিন্দা এবং তার কোন সংশ্লিষ্ট প্রশিক্ষণ ও সনদ বা বাস্ত কাজের অভিজ্ঞতা নেই বলেও অভিযোগ উঠেছে। 

৪ নং ক্রমিকের পাকুটিয়ার বেলাত হোসেনের ছেলে মো. মাসুদ রানা কে মামুদনগর ইউনিয়ন ও বনগ্রামের ইউসুফ আলীর ছেলে আবু তালহা কে গয়হাটা ইউনিয়নে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

খোঁজ খবর নিয়ে দেখা যায়, এরা দুজনেই যুব উন্নয়ন এর ন্যাশোনাল সার্ভিসের আওতায় নাগরপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরে বর্তমানে কর্মরত। এবং তারা উভয়েই পুনরায় একই দপ্তরের এল এস পি (LSP) প্রকল্পের অধীনে যোগদান করেছে কিন্তু নাগরপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর থেকে এবং যুব উন্নয়ন এর ন্যাশোনাল সার্ভিস থেকে তারা অব্যহতি নেয়নি।

এই দুই পদেও আরো যোগ্য প্রার্থী ছিল বলে দাবি করে চাকরি বঞ্চিতরা।

অভিযোগকারীরা জানান, বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক লাইভষ্ট এন্ড ডেইরী ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট (এলডিডিপি) এর মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়নের ৮ টি যোগ্যতা ও ১৩ টি তথ্য এবং একটি অবশ্যই করনীয় শর্তের লঙ্ঘন শাস্তিযোগ্য অপরাধের শামিল। 

এখানে অবশ্যই করনীয়, যোগ্যতা ১,৪,৫,৬,৭ ও ৮ চরমভাবে লঙ্ঘিত হয়েছে।

এছাড়াও তথ্য জালিয়াতি করে সরকারের আদেশ অবমাননা করা হয়েছে যা রাষ্ট্র দ্রোহী কর্মকান্ডের সামিল বলেন চাকুরী বঞ্চিত যোগ্য প্রান্তিক খামারীরা।

অভিযোগ করে আপর এক চাকুরী প্রত্যাশী বলেন, যাদের কে নিয়োগ দেয়া হয়েছে তাদের অনেকেই দরখাস্ত পর্যন্ত নিজে লিখেনি। এই দূর্নীতির নিয়োগ বাতিল করে সচ্ছ তদন্ত সাপেক্ষে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা গ্রহনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সু দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

নাগরপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. আনোয়ার হোসেন-এর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে, তিনি সরাসরি অফিসে গিয়ে দেখা করতে বলে ফোনটি কেটে দেন। এর পর বার বার ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেন নি। পরে বিভিন্ন মাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ না করার চেষ্টা করেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ ফায়েজুল ইসলাম জানান, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের সাথে আলোচনা করে নিয়োগ সংক্রান্ত কোন অনিয়ম থাকলে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে জানানো হবে।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল আউয়াল -এর মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840