পাকিস্থানী কিশোরী পিতার দেশে বেড়াতে এসে গোপালপুরে চাচাতো ভাইয়ের হাতে ধর্ষণের শিকার

পাকিস্থানী কিশোরী পিতার দেশে বেড়াতে এসে গোপালপুরে চাচাতো ভাইয়ের হাতে ধর্ষণের শিকার

মো.নূর আলম গোপালপুর : এবার নবম শ্রেণীর ছাত্রী (১৪) নামের পাকিস্থানী কিশোরী ছয় মাসের ভিসায় মায়ের সাথে পিতার জম্মভূমি বাংলাদেশে বেড়াতে এসে গোপালপুরে আল আমীন (২৫) নামের আপন লম্পট চাচাতো ভাইয়ের লালসার শিকার হলো। অপহরণের পর আটকে রেখে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করা হয়।

এ ঘটনায় ওই কিশোরীর মা বাদি হয়ে আল আমীন ও তার মা আনোয়ারা বেগমসহ তিনজনকে আসামী করে গোপালপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন।

পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে বৃহস্পতিবার জামালপুরের সরিষাবাড়ি থেকে মেয়েটিকে উদ্ধার করে।

ধর্ষক আল আমীনের মা আনোয়ারা বেগমকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

ধর্ষিতা পাকিস্তানের নিউকরাচী শহরের সরকারি এক স্কুলের নবম শ্রেণীর ছাত্রী।

সে পাকিস্থানের নিউ করাচীর সুপার হাইওয়েজ রোডের হুমায়ুন কবীর ও নীলুফা বেগম-এর একমাত্র মেয়ে।

ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ধর্ষনের মেডিক্যাল পরীক্ষা শেষে ২২ ধারায় জবানবন্দীর জন্য বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইল আদালতে হাজির করা হয়।

ধর্ষিতা বাংলা বলতে না পারায় জবানবন্দী নেয়া যায়নি।

গোপালপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হাসান আল মামুন জানান, উপজেলার ভেঙ্গুলা গ্রামের বাসিন্দা হুমায়ুন কবীর আনুমানিক পঁচিশ বছর আগে পাকিস্তানের নিউ করাচীতে গিয়ে বসবাস শুরু করেন।

সেখানে পাকিস্থানী নাগরিক করাচীর মেয়ে নীলুফা বেগমকে সাদী করে গামের্ন্টস ব্যবসা শুরু করেন। হুমায়ুন কবীর ও নীলুফা বেগমের বিবাহিত জীবনে একমাত্র কণ্যা সন্তান হলো নবম শ্রেণীতে পড়ুয়া ওই কিশোরী।

গত প্রায় পাঁচ মাস আগে গোপালপুর শ্বশুরবাড়িতে মেয়েকে নিয়ে বেড়াতে আসে পাকিস্থানী নাগরিক নীলুফার বেগম। সে গোপালপুর উপজেলার উত্তর গোপালপুর গ্রামে তার ভাসুর আব্দুল ওয়াদুদের বাড়িতে উঠেন।

সেখানে ওঠার পর থেকেই আরেক ভাসুর আবুল হোসেনের ছেলে আল আমিন তার মেয়েকে উত্যক্ত করতে থাকে। বিষয়টি পারিবারিকভাবে ফয়সালার চেষ্টা হয়।

এদিকে তাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় পাকিস্থানে ফিরে যাবার কথা শুনে আল আমীন ক্ষুব্ধ হয়। গত ১৬ এপ্রিল রাতে কয়েকজন সহযোগি নিয়ে চাচার বাড়ি থেকে মেয়েটিকে কৌশলে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় আল আমীন ও তার মা আনোয়ারা বেগমসহ তিনজনকে আসামী করে থানায় মামলা করেন মেয়ের মা। গত গত বৃহস্পতিবার জামালপুরের সরিষাবাড়ি থেকে পুলিশ মেয়েটিকে উদ্ধার করে।

আল আমীনের মা আনোয়ারা বেগমকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। বৃস্পতিবার মেয়েটিকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্যে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ধর্ষিতার মা নীলুফা বেগম জানান, দীর্ঘ দিন ধরে মেয়েটি বাবার দেশ দেখার জন্য ইচ্ছা প্রকাশ করে আসছিল। ব্যবসার ঝামেলার জন্য হুমায়ুন কবীর আসতে পারেননি। তবে তিনি স্ত্রী ও কণ্যাকে বাংলাদেশে পাঠানোর যাবতীয় ব্যবস্থা করে দেন।

এমতাবস্থায় স্বামীকে পাকিস্তানে রেখেই পাঁচ মাস আগে ছয় মাসের ভিসায় কণ্যাকে সাথে নিয়ে গোপালপুরে আসেন তিনি। উঠেন উত্তর গোপালপুর গ্রামের বাসিন্দা এবং সম্পর্কে ভাসুর আব্দুল ওয়াদুদের বাড়িতে।

বাংলা তেমন বলতে না পারলেও ভালোই কাটছিল দিন মা ও মেয়ের। কিন্তু কিছু দিন না যেতেই তার কণ্যার উপর কুদৃষ্টি পড়ে আরেক ভাসুর ভেঙ্গুলা গ্রামের আবুল হোসেনের পুত্র বখাটে আল আমিনের।

কিশোরীকে রীতিমত উত্যক্ত শুরু করে সে। মাঝে মধ্যে ইভটিজিং ও শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে আসছিল। পারিবারীক ভাবে বিষয়টি ফয়সালার চেষ্টা হয়।

এদিকে ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় মা ও মেয়ের পাকিস্তানে ফেরত যাবার খবর শুনে বখাটে আল আমীন ক্ষুব্দ হয়। গত ১৬ এপ্রিল রাতে একদল সন্ত্রাসীর সহযোগিতায় হুমেরাকে উত্তর গোপালপুরের কাকার বাড়ি থেকে কৌশলে অপহরন করে নিয়ে যায় সে।

এরপর বিভিন্ন স্থানে আটকে রেখে তাকে জোরপূর্বক একাধিকবার ধর্ষণ করে। এমতাবস্থায় গত ১৭ এপ্রিল আল আমীনসহ তিনজনকে আসামী করে নীলুফা বেগম গোপালপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

গোপালপুর থানা পুলিশ গোপন সুত্রে খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার ভোর রাতে জামালপুরের সরিষাবাড়ি উপজেলার মহিষাকান্দি মোড়ের এক বাসা থেকে আটকাবস্থায় ধর্ষিতাকে উদ্ধার করেন।

ধর্ষিতার মাতা নীলুফার বেগম জানান, তার মেয়ে নিউ করাচীর সরকারি সাদিকাটুল হাইস্কুলে নবম শ্রেণীতে পড়েন। তিনি ও তার মেয়ে বাংলা ঠিক মতো বলতে পারেন না। সখ করে বাবার দেশে বেড়াতে এসে নিজের পরিজনের হাতেই সর্বনাশের শিকার হলো।

নির্যাতনে মেয়েটা মুষড়ে পড়েছেন বলে জানান তিনি। এর কঠিন শাস্তি দাবি করেন নীলুফা।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোপালপুর থানার সাব ইন্সপেক্টর আসলাম হোসেন জানান, টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে বৃহস্পতিবার দুপুরে ধর্ষিতার মেডিক্যাল পরীক্ষা সম্পন্ন হয়। কিন্তু ধর্ষিতা বাংলা বলতে না পারায় এবং দোভাষী না মেলায় বৃহস্পতিবার আদালতে তার ২২ ধারায় জবানবন্দী নেয়া যায়নি। আসামী গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840