সংবাদ শিরোনাম:
ঢাকা-টাঙ্গাইল ও বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে ঝুঁকি নিয়ে ট্রাক-পিকআপে বাড়ি ফিরছে ঘরমুখো মানুষ টাঙ্গাইলে “সেফ লাইফ বাংলাদেশ” এর ঈদ উপহার বিতরণ  শিশুদের নিয়ে ঈদ উৎসব করলো দশমিক ফাউন্ডেশন বাসাইলে জোড়া খুন; জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ ফেসবুকে ভুয়া আইডি, থানায় জিডি করলেন নবনির্বাচিত ধনবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান টাঙ্গাইলের ঐতিহ্যবাহী গোপালপুরে শত বছর পুরানো হাটে কুরবানীর পশু ক্রয় বিক্রয় মাভাবিপ্রবিতে রংপুর ডিভিশনাল অ্যাসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন টাঙ্গাইলে প্রাইভেটকার ও গরুবাহীট্রা‌কের মু‌খোমু‌খি সংঘ‌র্ষে তিন নিহত, আহত দুই দেলদুয়ারে আরমৈষ্টা গ্রামে  জামিলা একাডেমির শুভ উদ্বোধন ৯ মাসে ৭ বার টাঙ্গাইল জেলায় শ্রেষ্ঠ অফিসার নির্বাচিত হলেন  মোল্লা আজিজুর রহমান
বঙ্গবন্ধুর কবর এটা অরক্ষিত অজ্ঞাত অবস্থায় পড়েছিল- মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর কবর এটা অরক্ষিত অজ্ঞাত অবস্থায় পড়েছিল- মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী

বিশেষ প্রতিবেদক: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর কবর এটা অজ্ঞাত অবস্থায় পড়েছিল। বঙ্গবন্ধু কবর আপনিই (কাদের সিদ্দিকী) আবিস্কার করেছেন।

মঙ্গলবার ২৪ জানুয়ারি রাতে টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অনুষ্ঠিত কাদেরিয়া বাহিনী অস্ত্র জমাদান ৫০ বছর উদযাপনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিরবারে হত্যা করার পর কাদের সিদ্দিবী যেভাবে প্রতিবাদ করেছেন। না করলে ইতিহাসে কলঙ্কিত হয়ে থাকতো। বিদেশী প্রভুদের ইঙ্গিতে ৭১ সালে যারা আমমদেদর স্বাধীনতা মেনে নেয় নাই, বিরোধী করেছে তারা চুপ করে বসে নাই। বাংলাদেশ এখন রোল মডেল হচ্ছে এটা তারা তা চাচ্ছে না।

তিনি আরো বলেন, কাদের সিদ্দিকী ইতিহাসের গর্বিত সন্তান। মুক্তিযুদ্ধের মহামানব। তার বীরত্বগাঁথা ইতিহাস বিরল। যুদ্ধ শেষে বিজয়ী হয়ে তিনি এক লাখ চার হাজার অস্ত্র বঙ্গবন্ধুর কাছে জমা দিয়েছিলেন। এটি একটি বিষ্ময়। বাংলাদেশ সৃষ্টিতে কাদেরিয়া বাহিনীর গৌরবোজ্জল ভূমিকা রয়েছে। কাদেরিয়া বাহিনীর যোদ্ধারা আমার চেয়েও সাহসী ছিলেন।

একই অনুষ্ঠানে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীর উত্তম বলেন, ডিসিদের সম্মানও নাই জ্ঞান নেই। জয় বাংলা একটাই। সেটা বিএনপি, জাতীয় পাটির্, হোক সবারই হবে জয় বাংলা। বঙ্গবন্ধু বলে ছিলেন জয় বাংলা আছে, জয় বাংলা থাকবে।

বঙ্গবন্ধু ১৯৭১ সালে ২৪ জানুয়ারি টাঙ্গাইলে এসে অস্ত্র জমা নিয়েছিলেন। অস্ত্র জমা দিলাম বিন্দুবাসিনী স্কুল মাঠে অথচ এখানে কোন চিহ্ন নেই। টাঙ্গাইল ওয়াপদা ডাকবাংলাতে বঙ্গবন্ধু প্রথম এসেছিলেন। বাংলোটি মুক্তযুদ্ধ জাদুঘর করার আহ্বান জানান তিনি। স্মৃতিচিহ্ন না হওয়ায় তিনি আওয়ামী লীগের নেতাদের কুর্কমকে দায়ী করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মৃনাল কান্তি রায় এমপি, মুক্তিযোদ্ধা হামিদুল হক মোহন, কবি বুলবুল খান মাহবুব, কবি আল মুজাহিদী, কৃষক শ্রমিক জনতালীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান তালুকদার খোকা বীর প্রতীক, বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর সহধর্মীনি নাসরিন কাদের সিদ্দিকী প্রমুখ।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840