সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে ১৬ সরকারি প্রতিষ্ঠানে উড়ছে না জাতীয় পতাকা টাঙ্গাইলে ওয়ালটনের নন স্টপ মিলিয়নিয়ার অফার উপলক্ষে র‌্যালী কালিহাতীতে আওয়ামীলীগ-সিদ্দিকী পরিবার মুখোমুখি টাঙ্গাইলের তিন উপজেলায় মাঠ-ঘাট চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বজ্রপাতে দুই ভাইয়ের মৃত্যু রংপুরে শুরু হয়েছে শেখ হাসিনা অনুর্ধ্ব-১৫ টি টোয়েন্টি প্রমীলা ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চশমা প্রতীক নিয়ে সাংবাদিক আতিক জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ও জনসমর্থনে এগিয়ে ঘাটাইলে সেলাই মেশিন মার্কায় ভোট চাইলেন পৌর মেয়র আব্দুর রশীদ মিয়া টাঙ্গাইলে পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ দেবরের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ ; কাভার্ড ভ্যান জব্দ সাফল্য অর্জনেও ব্যতীক্রম নয় জমজ দুই বোন,  লাইবা ও লামিয়া দুজনেই পেলেন জিপিএ- ৫
বাসাইলে আ’লীগের প্রতিদ্বন্ধি আ’লীগ।।বিপাকে কর্মী-সমর্থক ও ভোটার

বাসাইলে আ’লীগের প্রতিদ্বন্ধি আ’লীগ।।বিপাকে কর্মী-সমর্থক ও ভোটার

প্রতিদিন প্রতিবেদক : উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বাসাইল উপজেলায় চেয়্যারম্যান পদে আওয়ামীলীগের প্রতিদ্বন্ধি আওয়ামীলীগ। এ নিয়ে নেতা-কর্মীদের মাঝে দ্বন্ধ চরম আকার ধারন করছে। নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রের ভোট দেয়া নিয়ে সংকায় রয়েছেন ভোটাররা।

এতে করে সরকার দলীয়দের ভাভমূতি সহ সরকারের ভাবমূতি ক্ষুন্ন হচ্ছে। ভোটারদের মাঝে ভয়-ভীতি বিরাজ করছে। স্বাধীনভাবে ভোটাররা তাদের প্রার্থীর পক্ষে গণসংযোগ ও প্রচার-প্রচারনা চালাতে পারছে না। নৌকা প্রতীকের বিপক্ষে একই দলের আরো দুই জন প্রভাবশালী প্রার্থী ভোটের মাঠে লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিয়েছেন।

এদের মধ্যে কেন্দ্রীয় সিন্ধান্তে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে নৌকা প্রতীকে মাঠে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হাজী মতিয়ার রহমান গাউস। দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত আওয়ালীগের অন্য দুই জন বিদ্রোহী প্রার্থী হলেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও বর্তমান উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি কাজী অলিদ ইসলাম এবং সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা মাহামুদ হোসেন আলমজিদি।

প্রতিনিয়ত প্রর্থীরা নিজ নিজ প্রতিক সম্বলিত লিফলেট ও ব্যানার নিয়ে মিছিল-সমাবেশ ও ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ভোট প্রার্থনা করছেন।

তবে প্রচার-প্রচারনায় কেউ কারো থেকে কম নয়। নিজেদের জয় অর্জনে প্রার্থীরা সকল প্রকার প্রস্তুতি গ্রহণ করেই মাঠে নেমেছেন।

তারা প্রত্যেকের রয়েছে শক্তিশালী অবস্থানে। সব মিলিয়ে জমিয়ে রেখেছে বাসাইল উপজেলা নির্বাচনের হাওয়া

প্রার্থীরা সবাই সরকারি দলের প্রভাবশালী নেতা হওয়ায় একজন অন্য জনের এলাকায় প্রবেশ করে ভোট প্রার্থনা ও মিছিল সমাবেশ করতে পারছেন না।

যার কারনে নিজেদের দ্বন্ধে প্রাচার-প্রচারনায় পিছিয়ে রয়েছেন সরকার দলীয়রা। চরম বিপাকে ভোটাররা।

জানা যায়, ১৯৮৫সালে অনুষ্ঠিত প্রথম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ততকালীন জাতীয় পার্টির শাসনামলে বাসাইল উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন সেই সময়ের জাতীয় পার্টির নেতা মাহামুদ হোসেন আল মজিদি।

২০০৯ সালে অনুষ্ঠিত তৃতীয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ালীগের প্রার্থী হিসেবে বাসাইল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন ততকালীন উপজেলা আওয়ালীগের নেতা কাজী অলিদ ইসলাম ।

২০১৯ সালের পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তারা দু জনই স্বতন্ত্রপ্রার্থী হিসাবে ভোটের মাঠে লড়ে যাচ্ছেন। এছাড়াও , উপজেলা বিএনপি’র সাবেক সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী শহীদুল ইসলাম ও সাবেক বিএনপি নেতা সৈয়দ নিজামুল ইসলামও মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর থেকেই উপজেলার আনাচে-কানাচে বইতে শুরু করেছে ভোটের হাওয়া। দোকান গুলোতে চায়ের কাপের প্রতিটি চুমুকেই এখন একই আলোচনা।

৪ মার্চ মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিনে বাসাইল উপজেলা চেয়ারম্যান পদের জন্য আওয়ালীগ মনোনিত প্রার্থী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সহ মোট ৫ জনের মনোনয়ন দাখিল করা হয়।

আগামী ৩১ মার্চ চতুর্থ ধাপে অনুষ্ঠিত হবে টাঙ্গাইলের উপজেলা পরিষদ নির্বাচন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840