সংবাদ শিরোনাম:
বাসাইলে ঝিনাই নদী থেকে বালু উত্তোলন, হুমকির মুখে সেতু-স্বাধীনতা স্তম্ভ

বাসাইলে ঝিনাই নদী থেকে বালু উত্তোলন, হুমকির মুখে সেতু-স্বাধীনতা স্তম্ভ

প্রতিদিন প্রতিবেদক : স্থানীয় প্রভাবশালী একটি সংঘবদ্ধ চক্র ঝিনাই নদী থেকে অবাধে বালু উত্তোলন ও বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতিদিন শত শত ট্রাক বালু উত্তোলন করায় হুমকির মধ্যে পড়েছে একটি সেতু, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও মুক্তিযুদ্ধের একটি স্মৃতিস্তম্ভ। এছাড়াও নদীর দু’পাড়ের মানুষের বসত ভিটাও নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাবার আশংকা দেখা দিয়েছে স্থানীয়দের মাঝে। সারা দেশে যে সময় কঠোর লক ডাউন চলছে। ঘর থেকে মানুষ বের হতে পারছেনা সে সময়েও বালু উত্তোলন ও বিক্রির মহোৎসব চলছে ঝিনাই নদীতে। স্বাস্থ্যবিধির কোন বালাই নেই সেখানে। শত শত ট্রাক আর বেকু মেশিনের যেন এক কর্মজজ্ঞ চলছে।

জানা যায়, টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার কাশিল ইউনিয়নের নথখোলা এলাকা দিয়ে বয়ে গেছে ঝিনাই নদী। এ নদীর উপর নির্মিত একটি সেতু এবং তার দু’পাশে রয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও মুক্তিযুদ্ধের স্বরণে স্মৃতিস্তম্ভ। আর এ নদীর দু’পাড়ে রয়েছে বসতবাড়ি ও ফসলী জমি। বিগত বছরে এ নদী থেকে অবাধে বালু উত্তোলন করার ফলে ইতিমধ্যে একটি শহীদ মিনার নদীগর্ভে বিলীন ও একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের একাংশ এবং নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়ে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে এলাকাবাসী।

সম্প্রতি সরেজমিনে দেখা গেছে, এবছরও মহাধুমধামে শুরু হয়েছে ঝিনাই নদী থেকে অবাধে বালু উত্তোলন আর বিক্রি। সারিবদ্ধ ট্রাক একাধিক বেকু মেশিন দিয়ে ভরাট করে দেয়া হচ্ছে। আর এসব ট্রাক মাটি নিয়ে যার যার গন্তব্যে পৌছে যাচ্ছে। এভাবে প্রতিদিনি শত শত ট্রাক বালু বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে স্থানীয় প্রভাবশালী চক্রটি। এ নিয়ে প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছেনা স্থানীয় ক্ষতিগ্রস্থরা। ক্ষতিগ্রস্থদের অনেকের অভিযোগ কাশিল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মির্জা রাজিক ও আওয়ামী লীগের নেতা নাসিরের নেতৃত্বে সংঘবদ্ধ একটি চক্র অবৈধভাবে লাখ লাখ টাকার বালু বিক্রি করছে। তাদের ভয়ে এলাকার কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেনা।

স্থানীয় ওমর খান নামের এক ক্ষতিগ্রস্থ জমির মালিক জানান, তার তিন বিঘা ফসলি জমির মধ্যে ইতি মধ্যে দুই বিঘা কেটে নিয়ে গেছে। প্রতিবাদ করেও কোন লাভ হচ্ছেনা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয়দের অনেকে অভিযোগ করেন, বালু ব্যবসার নিয়ন্ত্রন নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় দু’টি পক্ষ মুখোমুখি অবস্থানে ছিল। এরমধ্যে এক পক্ষে রয়েছে স্থানীয় এক জনপ্রতিনিধি। অপর পক্ষে রয়েছে স্থানীয় সরকারদলীয় এক নেতা। ইতিপুর্বে একাধিকবার সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে কোটি টাকার বালু ব্যবসার নিয়ন্ত্রন নিয়ে। কিন্ত নিজেদের স্বার্থে অতি সম্প্রতি এ দু’টি গ্রুপ সমঝোতায় পৌছে। তারা একত্রিত হয়ে বালু ব্যবসার নিয়ন্ত্রন নিয়ে নেয়। এ চক্রটি গড়াসিনে একটি স্কুলের মাঠ ভরাটসহ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে মাটি ফেলার কথা বলে সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে অনুমতি নেয়। আর এর আড়ালেই শত শত ট্রাক বালু প্রতিদিন বিক্রি করছে চক্রটি।

এ ব্যাপারে বক্তব্য জানতে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান মির্জা রাজিকের মোবাইল ফোনে (০১৭৪২০৮৮৬৬৬) বার বার চেষ্টা করলেও সে কল রিসিভ করেননি। এদিকে স্থানীয় একটি সুত্রে জানা গেছে, এ চক্রটি টাঙ্গাইলের এক মন্ত্রীর স্বশুরবাড়ির এলাকায় একটি বিদ্যালয়ের মাঠ মাটি দিয়ে ভরাটসহ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় উপাসানালয়ে মাটি ফেলার কথা বলে ডিও লেটার নেয়। আর এর বলেই প্রতিদিন লাখ লাখ টাকার বালু বিক্রি করে যাচ্ছে।

ঝিনাই নদীতে বালু উত্তোলনের বিষয়ে জানতে চাইলে বাসাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মনজুর হোসেন সাংবাদিকদের জানান, তারা মাটি কাটতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের থেকে অনুমতি নিয়ে এসেছে। একই ধরনের বক্তব্য দিয়েছেন বাসাইলের সহকারী কমিশনার (ভুমি) মারিয়াম নুরেন।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম বলেন, এটা আমার বিষয় না, এটা জেলা প্রশাসকের বিষয়। বাসাইলের কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উন্নয়ন কাজের জন্য এই বালু উত্তোলন করা হচ্ছে বলে আমি শুনেছি। আর যারা বালু উত্তোলন করছে তারা জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে অনুমতি নিয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840