বিধবার শরীরে আঘাতের চিহ্ন থাকা সত্বেও দাফনে বাঁধা দেয়নি দেলদুয়ার পুলিশ

বিধবার শরীরে আঘাতের চিহ্ন থাকা সত্বেও দাফনে বাঁধা দেয়নি দেলদুয়ার পুলিশ

প্রতিদিন প্রতিবেদক দেলদুয়ার : দেলদুয়ারে হাওয়া বেওয়া (৬০) নামের এক বিধবার শরীরে বিভিন্ন আঘাতের চিহ্ন থাকা সত্বেও তরিঘরি দাফনে কোন প্রকার বাঁধা দেয়নি দেলদুয়ার থানা পুলিশ।

মৃত্যুর কয়েক ঘন্টার মধ্যে হত্যা সন্দেহ ছড়িয়ে পড়ায় পুলিশ ও ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের অনুমতি নিয়ে চৌকিদার পাহাড়ায় তরিঘরি করে লাশ দাফন করা হয়। বিধবা ওই গ্রামের মৃত মুন্নাস খানের স্ত্রী।

পুলিশ বলছে সন্তানদের কোন অভিযোগ ছিলনা তাই দাফনের অনুমোতি দেওয়া হয়েছে।

অথচ বিধবার জমি নিয়ে তার সন্তান ও ছেলের বউদের ঝগড়া চলে আসছিল।

সোমবার সকালে উপজেলার সদর ইউনিয়নের জাঙ্গালিয়া গ্রামে ঘটেছে ঘটনাটি।

প্রতিবেশীরা জানান, সোমবার সকাল ৯ টায় বিধবাকে নিজ ছাপড়া ঘরে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। তার গলায় চতুর্দিকে বিভিন্ন আঘাতের দাগ রয়েছে।

হত্যার সন্দেহ থাকায় লাশ দাফনের পূর্বে অভিযোগ নেই এই মর্মে সন্তানদের কাছ থেকে স্বাক্ষর নেন প্রতিবেশী হালিম ও মিন্টু এবং পুলিশের কাছে থেকে লাশ দাফনের অনুমতিও নেন ওই দুই ব্যাক্তি।

পরে একজন গ্রামপুলিশের পাহাড়ায় ও কয়েকজন প্রতিবেশী মিলে তারিঘরি করে দাফন সম্পন্ন করেন।

স্থানীয়দের অভিযোগ, রাতে সুস্থ এবং চলাচল করতে দেখা গেছে। তবে ছেলে ও ছেলের বউদের সাথে বিধবার জমি নিয়ে বাড়ীতে বেশ কিছু দিন যাবৎ বিরোধ ও ঝগড়া চলে আসছিল।

দেলদুয়ার থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ কে সাইদুল হক ভুইয়া বিধবার মৃত্যুর খবর শুনেছেন নিশ্চিত করে জানান, বিধবার সন্তানদের কোন অভিযোগ ছিল না। তারা বলছে মা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে।তাই দাফনের অনুমোতি দেওয়া হয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840