ভূঞাপুরে তুলছে বালু, কাঁদছে মানুষ, পুড়ছে কপাল

ভূঞাপুরে তুলছে বালু, কাঁদছে মানুষ, পুড়ছে কপাল

খায়রুল খন্দকার ভূঞাপুর : ভূঞাপুর যমুনা নদীর গর্ভে ইতিমধ্যে বিলীন হয়ে গেছে উপজেলার বিস্তীর্ন জনপদ। একমাত্র সম্বল ভিটে মাটি ও ফসলী জমি হারিয়ে নিঃস্ব ও রিক্ত হয়ে পড়েছে শতশত পরিবার।

সবকিছু হারিয়ে অনেকেই এখন বেছে নিয়েছেন যাযাবর জীবন। অনিয়মতান্ত্রিক ও অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে নদীর ভাঙ্গন তীব্র রূপ ধারণ করেছে। গত কয়েক দিনের উজান থেকে নদীতে জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।

নদীপাড়ের ভাঙ্গনের কবলে প্রায় অর্ধশতাধিক পরিবার ভিটেমাটি হারানোর আতঙ্কে কাটছে তাদের দিন রাত। ভাঙ্গনে অনেকেই অন্যত্র পাড়ি জমিয়েছে। বিগত কয়েক বছরের ভাঙ্গনে এ পর্যন্ত ঘর-বাড়িসহ শতাধিক একর ফসলি জমি বিলীন হয়ে গেছে।

বালু উত্তোলনের কারনে ভাঙ্গছে নদী, পুড়ছে কপাল, কাঁদছে হাজারো মানুষ। আর কপাল খুলে আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ বনে গেছেন সুবিধাবাদী ও স্বার্থান্বেষী মহল অনিয়মান্ত্রিক ভাবে যত্রতত্র ভাবে বালু উত্তোলন প্রসঙ্গে নদী শাসন বিষেষজ্ঞরা জানান নদীর যে স্থানে ভাঙ্গন তীব্ররূপ ধারণ করছে সেই স্থান থেকে বালু উত্তোলন করলে নদীর গভীরতা আরও বৃদ্ধি পেয়ে আশপাশের এলাকাও ভাঙ্গন’র কবলে পতিত হয়।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, যমুনা নদীটি গোবিন্দাসী থেকে ৪-৫ কি.মি. দূরে ছিল। দীর্ঘ দিন নদী ভাঙ্গনের ফলে ঘর-বাড়ি, ফসলি জমি নদীতে বিলিন হয়ে যাওয়ায় সর্বশান্ত হচ্ছে ভাঙ্গন কবলিত এলাকার মানুষ। নদী হতে অত্যাধুনিক ড্রেজার মেশিনের মাধ্যমে বালু উত্তোলনের ফলে এই ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়েছে।

গত কয়েক দিনের ভাঙ্গন আতংকে আছে বেশ কয়েকটি মসজিদ,কয়েকটি প্রাথমিক বিদ্যালয় , উচ্চ বিদ্যালয় , মন্দির সহ শত শত পাকা-আধা পাকা ঘর-বাড়ি। ভাঙনের কারনে বসত ঘর, ভিটামাটি ও ফসলি জমি সহ সর্বস্ব হারিয়ে নিঃস্ব ও রিক্ত হয়ে পড়েছে শত শত পরিবার।

স্থানীয়দের অভিযোগ, বিভিন্ন সময়ে জনপ্রতিনিধিরা  ভাঙ্গন রোধে বাধ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেও তা বাস্তবে রুপ নিচ্ছে না। সরকারি ভাবেও নেওয়া হচ্ছে না কোন ব্যবস্থা।

এখনো দেখা মেলেনি কোন জনপ্রতিনিধিদের। নেওয়া হচ্ছে না ভাঙ্গন রোধে কোন ব্যবস্থা।

স্থানীয়রা জানায়, তাদের এলাকায় কোন প্রভাবশালী কোন জনপ্রতিনিধি না থাকায় এমন দুর্ভোগে থাকতে হচ্ছে তাদের। মূলত টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীদের দায়িত্বহীনতার কারনেই নদীতে বিলিন হওয়ার শংকায় এই বাড়ি ঘর।

নদী ভাঙ্গন কবলিত এলাকাবাসীর দাবি, অতি দ্রুত নদী ভাঙ্গন রোধে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ করা হোক। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন ভাঙন কবলিত নদীপাড়ের মানুষেরা।

উল্লেখ্য, গত বন্যায় খানুরবাড়ি অংশে কিছু জিও ব্যাগ ফেলা হলেও তা কাজে লাগেনি। এ বছরও কিছু জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে যা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই নগন্ন।

বালু দস্যুদের কারনে ইতিমধ্যে যমুনা নদীর তীরবর্তী উপজেলার কষ্টাপাড়া , খানুরবাড়ী, ভালকুটিয়া ,চর কোনাবাড়ি, চিতুলিয়াপাড়া, পলশিয়া গ্রামের কয়েক শত একর ফসলি জমি,অসংখ্য বসতবাড়ি, রাস্তা-ঘাট, ব্রিজ-কালভার্ট, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, মসজিদ ও মন্দির সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যাওয়ার পথে।

উল্লেখিত গ্রামগুলো মানচিত্রে থাকলেও নদী গ্রাস করে ফেলায় গ্রাম গুলো বাস্তবে নেই। চলতি বর্ষা মৌসুমে বিশেষ করে প্রলয়ংকরী ঘুর্ণিঝড় আম্ফানের কারনে নদীর পানি বৃদ্ধি ও জলোচ্ছ্বাসের কারনে পূনরায় নতুন করে ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে।

এছাড়া নিকরাইল ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসেন, ডা: কুলুমিদা, এরবাড়ি যেকোন সময় নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যেতে পারে।

এদিকে  পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান প্রকৌশলী মো. হারুন-অর রশিদ ও নির্বাহী প্রকৌশলী উজ্জ্ল গোবিন্দাসী  গ্রামের ফেরীঘাট সংলগ্ন ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শণ করেন।

টাঙ্গাইল -২ আসনের স্হানীয় সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনির জানান, নদীর ভাঙ্গন রোধে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শাহজাহান সিরাজ জানান, ভাঙ্গনের বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। অনুমতি পেলে কাজ শুরু।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840