মৃত্যুর দুয়ারে ধলেশ্বরী নদী

মো.আবু জুবায়ের উজ্জল:-প্রতিনিয়তই মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লডছে টাঙ্গাইলের এক সময়ের খরস্রোতা ধলেশ্বরী নদী। দুইপাশে চর পড়ে ধলেশ্বরী নদী এখন প্রায় খালে পরিণত হয়েছে। শুস্ক মৌসুমে ধলেশ্বরীর বুকে ধানসহ বিভিন্ন ফসল আবাদ হয়। নদীর তলায় ছোট-বড় গর্তে জমে থাকে সামান্য পানি। পানির অপেক্ষায় নদীর তলায় পড়ে থাকে নৌকা।

আবার কেউ কেউ নদীর তলদেশেই নৌকা তৈরি করেন অথবা পুরোনো নৌকা মেরামত করেন। হেঁটে, মোটরসাইকেলে, রিকশা-ভ্যান, ঘোড়ার গাড়ি, সিএনজি চালিত অটো নিয়ে ধলেশ্বরীর বুক পাড়ি দিয়ে গন্তব্যে যাচ্ছেন মানুষ

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার গোলচত্বর এলাকায় ধলেশ্বরী নদীতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নদীর পূর্বপাশে বিশাল এলাকাজুড়ে চর জেগেছে। উত্তর-পশ্চিম পাশেও চর। মূল নদীর অনেক স্থানে ধান আবাদ করা হয়েছে। একটু উচু জায়গায় কিছুদিন আগে আবাদ করা হয়েছিল মাস কলাই, খেসারী কলাই।

কোন কোন স্থানে আখ লাগানো হয়েছে। মাঝে মাঝে ছোট-বড় গর্তে জমে আছে পানি। অনেক জায়গা শুকিয়ে গেছে। মানুষ পারাপারের জন্য এক স্থানে কাঠ দিয়ে সাঁকো বানানো হয়েছে। সেখান দিয়ে যাতায়াতের জন্য টোল আদায় করা হয়। সে সাঁকোর নিচেও শুকনো। দুইপাড়ের মানুষ হেঁটে, মোটরসাইকেল অথবা অটো নিয়ে চলাচল করছে। অনেকে ব্যক্তি উদ্যোগে চরের পূর্ব ও পশ্চিম পাশ থেকে মাটি কেটে ট্রাক্টর দিয়ে অন্যত্র নিয়ে যাচ্ছে।

আগামী কয়েক বছরের মধ্যে আরো চর পড়ে ধলেশ্বরীর গতি একেবারে বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলে স্থানীয়দের আশঙ্কা। যমুনা নদী থেকে বেরিয়ে আসা ধলেশ্বরীর অংশ থেকে অন্তত দশ কিলোমিটার খনন করা হলে নদী আবার গতিশীল হবে বলে মনে করেন তারা।

ধলেশ্বরীর পাড়ে কথা হয় কয়েকজনের সঙ্গে। তাদের একজন সোবাহান ব্যাপারী (৭৬)। তার বাড়ি গোলচত্বর এলাকায়। ইমান আলী জানান, গোলচত্বর থেকে অনেক পশ্চিমে ছিল যমুনা নদীর একটি শাখা। আর মূল ধলেশ্বরী নদী ছিল গোলচত্বর এলাকা দিয়ে। যমুনার শাখা প্রতি বছর ভেঙে ধলেশ্বরীর সঙ্গে মিশে ধলেশ্বরী নদীর নাম নেয়। ১৯৮৮ সালের ভয়াবহ বন্যার আগে ধলেশ্বরী নদীতে প্রচন্ড স্রোত ছিল। নদীও ছিল খুব গভীর। ’৮৮ সালের বন্যার পর থেকে ধলেশ্বরীতে চর পড়া শুরু হয়। আর সেখানে আস্তে আস্তে গড়ে উঠে বসতি। গত পাঁচ বছরের মধ্যে অতিরিক্ত চর পড়ে নদী সরু হয়ে গেছে।

ধলেশ্বরী নদীর পাশের সাহাজানী গ্রামের মতিন বলেন, আগে দেখছি নদী অনেক প্রশস্থ ছিল এবং প্রবল স্রোত ছিল। স্যালো নিয়ে নদী পাড় হতে ঝামেলা হতো। দশ বছর আগেও নদীতে খুব স্রোত থাকতো। এখন সে নদীর রূপ আর নেই।

শাহজানী গ্রামের হযরত আলী ও আব্দুর রশিদ বলেন, এই নদী দিয়ে বড় বড় নৌকা, লঞ্চ চলতো। এখন চর পড়ে এমন হয়েছে যে, বর্ষা মৌসুমেও নৌকা চলতে গিয়ে অনেক জায়গায় চরে আটকা পড়ে। চর পড়ায় নদীর গভীরতা কমে গেছে। এতে বন্যার সময় পানির তোড়ে আশপাশের ফসলের জমি ভেঙে নিয়ে যায়। যে নৌকা নদীতে চলে সেই নদীর যান নদীর পেটেই তৈরি করা হয়। নদীতে এখন আগের মতো পানি থাকে না। গোলচত্বর এলাকায় ২৫ বছর ধরে নদীতে খেয়া পারাপার ও টোল আদায় করেন আব্দুস ছালাম।

তিনি বলেন, দশ বছর আগেও নদীর এপার থেকে ওপারে নৌকা নিয়ে যেতে ¯্রােতের কারণে অনেক ভাটিতে গিয়ে নৌকা থামাতে হতো। এখন সোজা গিয়ে নদী পাড় হওয়া যায়। এখন বছরের অর্ধেকের বেশি সময় (প্রায় সাত মাস) নদীতে পানি থাকে না। ধলেশ্বরীর গোলচত্বর থেকে উভয়পাশের চর বাদে মূল নদীর অংশ ধরে অন্তত দশ কিলোমিটার খনন করা হলে নদী আবার চালু (গতিশীল) হতো।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম টাঙ্গাইল প্রতিদিনকে জানান, ২০১০ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে, যমুনা নদী থেকে ধলেশ্বরী নদীর মুখ দেড় কিলোমিটারের মধ্যে উঠানামা করে। বন্যার সময় উজান থেকে আসা কাদা মাটি জমে মুখে চর পরে মুখ উচু হয়ে গেছে।

ফলে শুষ্ক মৌসুমে ধলেশ্বরীতে আর পানি থাকে না। এ নদীকে সচল করতে নতুন প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ প্রক্রিয়াধীন। এ প্রকল্পের আওতায় ধলেশ্বরীর মুখের দুইপাড়ে গাইড বাধ নির্মাণ করা হবে যাতে মুখ উঠানামা বন্ধ হয়। এছাড়া সেখান থেকে আট কিলোমিটার ভাটি পর্যন্ত ড্রেজিং করা হবে। ময়লাযুক্ত মাটি সরানো হবে। এ বছরের মধ্যে এটি বাস্তবায়নের চেষ্টা চলছে বলে তিনি জানান।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840