সংবাদ শিরোনাম:
বাসাইলে পানিতে ডুবে স্কুল ছাত্রীর মৃত্যু কালিহাতীতে বেগম খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ধনবাড়ীতে সিএনজি’র দখলে সড়ক, জনদুর্ভোগ চরমে টাঙ্গাইলে ২৮ লাখ টাকার ক্রিস্টাল ম্যাথ ও ইয়াবাসহ দুই মাদক কারবারিকে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ সখীপুরে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ ধর্মীয় নেতাদের করণীয় শীর্ষক আলোচনা ত্রাণ নিয়ে সিলেট যাচ্ছেন ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা টাঙ্গাইলে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকদের মানববন্ধন ভুয়া চিকিৎসক আটক, তিন মাসের কারাদন্ড টাঙ্গাইলে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি, পানিবন্দি লাখো মানুষ মাভাবিপ্রবিতে ‘ক্রাইম, ভিক্টিম্স এবং জাস্টিস’ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত
রমজানের বিশেষ কয়েকটি আমল

রমজানের বিশেষ কয়েকটি আমল

ইসলাম ডেস্ক: রমজান মাস ইবাদতের মাস। আমলের মাস। রহমত মাগফেরাত ও নাজাতের মাস। এ মাসেই তাকওয়া অর্জনের মহাসুযোগ লাভ করে মোমিনরা। তাকওয়া অর্জন রমজানের অন্যতম লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। রমজানের আমল করলে একটি কাজের জন্য ৭০ বা তার চেয়েও বেশি নেকি পাওয়া যায়। রমজান মাসে বিশেষ অনেকগুলো আমল রয়েছে। তন্মধ্যে কয়েকটি আমলের কথা তুলে ধরছি।

* সিয়াম পালন করা। এটি এ মাসের অন্যতম ইবাদাত। আল্লাহ তায়ালার ফরজ হুকুম। রমজানে রোজা না রাখলে ফরজ হুকুম লঙ্ঘন করা হবে।
* সময়মতো নামাজ আদায় করা। শুধু রমজানেই নয়। সারাবছরই সময়মতো নামাজ আদায় করতে হবে। নামাজ আল্লাহর ফরজ বিধান।

* সহীহভাবে কুরআন শরীফ শেখা ও বেশি বেশি তেলাওয়াত করা। কেননা এ মাস কুরআন নাজিলের মাস। সারাবছর হয়তো বিভিন্ন ব্যস্ততায় সেভাবে গুরুত্বসহ সবার জন্য কুরআন শরীফ তেলাওয়াত করার সময় হয়ে উঠে না। কিন্তু রমজানে বেশি বেশি তেলাওয়াতের সময় বের করে কুরআন তেলাওয়াত করা।
* অপরকে কোরআন পড়া শেখানো। শুধু নিজেই না। অন্যকেও কুরআন তেলাওয়াত শেখানোর চেষ্টা করা।
* সাহরি খাওয়া। এটি সুন্নাত ইবাদাত।
* তারাবি নামাজ পড়া। ফুকাহায়ে কেরাম বলেছেন, অলসতা সত্ত্বেও যেনো তারাবিতে এক খতম কুরআন শরীফ পড়া থেকে বিরত না থাকে।
* বেশি বেশি শুকরিয়া আদায় করা। আল্লাহ তায়ালার অশেষ নেয়ামাত রমজান লাভ করতে পেরেছি এজন্য সব সময় শুকরিয়া আদায়া করা জরুরি।
* কল্যাণকর কাজ করা। অপরের কাজে সহযোগিতা করা। পরোপকার অনেক বড় ইবাদাত। যারা পরোপকার  করেন তারা মহান মানুষ।
* তাহাজ্জুদ নামাজ পড়া। রমজানের বাইরেও আমরা তাহাজ্জুদ পড়ি। তবে নিয়মিত পড়তে পারি না। রমেজানে নিয়মিত তাহাজ্জুদের অভ্যাস করা।
* বেশি বেশি দান করা। অন্য সময় দান করলে  যে সাওয়াব পাওয়া যায়। রমজানের দানে তার চেয়ে অনেক বেশি সাওয়াব পাওয়া যায়। তাই বেশি বেশি দান করা।
* উত্তম চরিত্র গঠনের অনুশীলন করা।
* ইতিকাফ করা। পারলে পুরো মাস ইতেকাফ করা। না হয় অন্তত রমজানের শেষ দশদিন ইতেকাফ করা।
* দাওয়াতে দ্বীনের কাজ করা।
* সামর্থ্য থাকলে ওমরাহ পালন করা।
* লাইলাতুল কদর তালাশ করা।
* বেশি বেশি দোয়া ও কান্নাকাটি করা।
* সময়মতো ইফতার করা ও অন্যকে ইফতার করানো।
* তওবা ও ইস্তিগফার করা।
* তাকওয়া অর্জন করা।
* জাকাত দেওয়া।
* ফিতরা দেওয়া।
* অপরকে খাবার খাওয়ানো।
* আত্মীয়তার সম্পর্ক উন্নীত করা।
* কোরআন মুখস্থ বা হিফজ করা।
* আল্লাহর জিকির করা।
* মিসওয়াক করা।
রমজানের বিশেষ তিনটি আমল হলো: (১) কম খাওয়া, (২) কম ঘুমানো, (৩) কম কথা বলা।
হারাম থেকে দূরে থাকা; চোখের হেফাজত করা, কানের হেফাজত করা, জবানের হেফাজত করা।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840