সংবাদ শিরোনাম:
ঢাকা-টাঙ্গাইল ও বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে ঝুঁকি নিয়ে ট্রাক-পিকআপে বাড়ি ফিরছে ঘরমুখো মানুষ টাঙ্গাইলে “সেফ লাইফ বাংলাদেশ” এর ঈদ উপহার বিতরণ  শিশুদের নিয়ে ঈদ উৎসব করলো দশমিক ফাউন্ডেশন বাসাইলে জোড়া খুন; জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ ফেসবুকে ভুয়া আইডি, থানায় জিডি করলেন নবনির্বাচিত ধনবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান টাঙ্গাইলের ঐতিহ্যবাহী গোপালপুরে শত বছর পুরানো হাটে কুরবানীর পশু ক্রয় বিক্রয় মাভাবিপ্রবিতে রংপুর ডিভিশনাল অ্যাসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন টাঙ্গাইলে প্রাইভেটকার ও গরুবাহীট্রা‌কের মু‌খোমু‌খি সংঘ‌র্ষে তিন নিহত, আহত দুই দেলদুয়ারে আরমৈষ্টা গ্রামে  জামিলা একাডেমির শুভ উদ্বোধন ৯ মাসে ৭ বার টাঙ্গাইল জেলায় শ্রেষ্ঠ অফিসার নির্বাচিত হলেন  মোল্লা আজিজুর রহমান
শখ থেকে লাখ টাকার কবুতর খামারী

শখ থেকে লাখ টাকার কবুতর খামারী

প্রতিদিন প্রতিবেদক, ঘাটাইল: বাহারি রং আর হৃদয় জুড়ানো ডাক যেন প্রশান্তির বার্তা বয়ে আনে। তবে কবুতর পছন্দ করে না এমন মানুষ খুবই কম। যেন কবুতর আত্মার নেশা। একজন সফল উদ্যোক্তা টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার সাগরদীঘি ইউনিয়নের জালালপুর গ্রামের রাজিব মাহমুদ। ছোট থেকে স্বপ্ন দেখতেন একদিন মালিক হবেন কবুতর খামারের। স্বপ্নপূরণও হয়েছে। শুরুটা মাত্র পাঁচ জোঁড়া দিয়ে হলেও এখন তার প্রায় দুইশ জোঁড়া কবুতর। প্রায় দশ বছরের প্রচেষ্টায় বদলে গেছে ভাগ্যের চাঁকা। এখন দেশের কবুতর প্রেমিদের কাছে এক পরিচিত মুখ রাজিব।

সারাদেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলা থেকে আসেন কবুতর পালক ও ক্রেতারা। দেশি-বিদেশিসহ খামারে রয়েছে প্রায় ৫০ প্রজাতির কবুতর। তরুণ এই উদ্যোক্তা মাসে প্রায় ৪০-৫০ হাজার টাকা আয় করছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে বিক্রি করেছেন। কেউ কেউ ছুটে আসেন খামারেই। তবে শিক্ষার্থী বা তরুণদের কাছে কম মূলে বিক্রি করেন কবুতর। বিভিন্ন জাতের মধ্যে- প্রমেনিয়াম পটার, বারলেস রেসার, ফ্রেন্স মুন্ডিয়ান, পাকিস্তানী ডেনিস, জার্মান, ডেনিশ, কুবার্গলার্ক, মুর হেড, কালো বিউটি হুমা, ব্লু পটার, অ্যারাবিয়ান টাম্পিটার, বুখরা, বাশিরাজ কোকা, হল্যান্ড জেকোবিন আমেরিকান সু কিং, লাল বোম্বাই, সাদা বিউটি হুমা, ব্লু রেসার, স্টেচার, বারাম্বার টামপিটার সহ ভিন্নভিন্ন বহু প্রজাতির কবুতর রয়েছে তার খামারে।

প্রতিজোড়া কবুতরের বাজার মূল্য রয়েছে ১০ হাজার থেকে ৫৫ হাজার টাকা। দেখতে যেমন বাহারী তেমন চমকপ্রদ। বিদেশি জাতের কবুতর প্রথমে তিনি আন্তর্জাতিক আমদানী কারকদের মাধ্যমে সংগ্রহ করে থাকেন। পরে ডিম থেকে বাচ্চা উৎপাদন করে তা বাজার জাত করেন তিনি। কঠোর পরিশ্রম করে আজ এ পর্যন্ত এসেছেন বলে জানান তিনি।

রাজিব মাহমুদ জানান, যখন বেকারত্ব দেশের বিরাট হুমকি হয়ে দাড়িঁয়েছে তখন এই চ্যালেঞ্জিং কাজটি হাতে নেই। যেন বেকার তরুণরা এমন উদ্যোক্তা হতে পারেন। করোনা মহামারীতে ব্যবসায় ক্ষতি হয়েছে বলে জানান।

ঘাটাইল উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. তোফায়েল আহমেদ জানান, বেকারত্ব দূরিকরণে রাজিবের মতো উদ্যোক্তা ঘরে ঘরে হয়ে উঠুক। তাকে সঠিক পরামর্শ দিয়ে পর্যাপ্ত সহযোগিতার চেষ্টা করছি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840