সংবাদ শিরোনাম:
সখীপুরে স্কুল ছাত্রী ধর্ষণ চেষ্টায় মসজিদের মোয়াজ্জিন গ্রেফতার

সখীপুরে স্কুল ছাত্রী ধর্ষণ চেষ্টায় মসজিদের মোয়াজ্জিন গ্রেফতার

প্রতিদিন প্রতিবেদক সখীপুর : সখীপুরে স্কুল ছাত্রী ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনায় মোঃ রুহুল আমিন (৫৫) নামের মসজিদের এক মোয়াজ্জিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সে একবছর ধরে উপজেলার কুতুবপুর বাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের মোয়াজ্জেম হিসাবে নিয়োজিত ছিলো।

রুহুল আমিনের বাড়ি ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলায় বড়কা গ্রামে।

পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীকে মাথা ব্যাথার চিকিৎসা ও জ্বিন ছাড়ানোর কথা বলে একটি কক্ষে নিয়ে চোখে সরিষার তৈল ছিটিয়ে কাপড়-চোপড় খুলে ধষর্নের চেষ্টা করে মোয়াজ্জিন। এ ঘটনার পর থেকে মোয়াজ্জিন পলাতক ছিল।

শুক্রবার (২১ জুন) ভোর রাতে পুলিশ ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার বড়কা গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতারের পর দুপুরে টাঙ্গাইল আদালতে হাজির করেন। পরে আদালত তাকে জেল-হাজতে প্রেরণের নিদের্শ দেন।

এ ঘটনায় ছাত্রীর মা বাদী হয়ে মোয়াজ্জিন রুহুল আমিনকে (২৫) আসামি করে সখীপুর থানায় ধর্ষণ চেষ্টার মামলা দায়ের করেন।

সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমির হোসেন জানান, উপজেলার কুতুবপুর গ্রামের মসজিদের মোয়াজ্জিন স্থানীয় পঞ্চম শ্রেনীতে পড়ুয়া এক ছাত্রীকে মাথা ব্যাথার ঝাড় ও জ্বিন ছাড়ানোর কথা বলে একটি কক্ষে নিয়ে চোখে সরিষার তৈল লাগাইয়া সেলোয়ার খুলে ধষর্নের চেষ্টা করে।

ভিকটিমের ডাক-চিৎকারে বাড়ীর লোকজন দৌড়ে গিয়ে উদ্ধার করে। এর পর মোয়াজ্জিন কৌশলে পালিয়ে যায়।

গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে শুক্রবার (২১জুন) ভোর রাতে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোঃ সিরাজুল ইসলাম এক দল পুলিশ ফোর্স নিয়ে ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার বড়কা গ্রামে মোয়াজ্জিনের নিজ বাড়ি অভিযান চালিয়ে আসামী মোঃ রুহুল আমিন (৫৫) কে গ্রেফতার করেন।

পরে তাকে টাঙ্গাইল আদালতে হাজির করা হয়। আদালত তাকে জেল-হাজতে প্রেরণের নিদের্শ দেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, মাথা ব্যাথা রোগ সারাতে ঝাড়-ফুক দিতে মেয়েটির বাড়িতে আসে মসজিদের মোয়াজ্জিন ক্বারী রুহুল আমিন। দুইদিন বেলা ১১টার দিকে মেয়ের বাড়িতে এসে সবার সামনেই মাথায় ঝাড়-ফুক দেয় ওই মোয়াজ্জিন।

তৃতীয় দিন গত বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বাড়িতে এসে মেয়ের মাকে বলে ওকে জ্বিনে ধরেছে। জ্বিন ছাড়াতে বাটিতে সরিষার তেল নিয়ে ওই মোয়াজ্জিন মেয়েকে একা একটা ঘরে নিয়ে যায়। তাঁর অনুমতি ছাড়া ওই ঘরে সবার জন্য প্রবেশ নিষেধ করে দেওয়া হয়।

এক পর্যায়ে মেয়ের চোখে সরিষার তেল লাগিয়ে কাপড়-চোপড় খুলে ধর্ষণের চেষ্টা করলে মেয়েটি চিৎকার করে। পরে ঘরের বাইরে থাকা লোকজন চিৎকার শুনে ঘরে ঢুকে মোয়াজ্জিনকে আটক করে গণধোলাই দেয়।

পরে এলাকার মাতাব্বররা সালিসি বৈঠক করে মসজিদের মোয়াজ্জিনকে এলাকাছাড়া করেন। রুহুল আমিনের বাড়ি ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলায়। তবে তাঁর (আসামির) গ্রামের ঠিকানা ওই মামলায় নেই।

মসজিদের ব্যবস্থাপনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবদুল আলীম জানান, মোয়াজ্জিনকে চাকরি দেওয়ার সময় তাঁর ঠিকানা ও জাতীয় পরিচয়পত্র জমা নেওয়া হয়নি। ঠিকানা ছাড়া চাকরি দেওয়া এটা আমাদের বড় একটা ভুল হয়েছে। রুহুল আমিন একবছর ধরে কুতুবপুর বাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন পদে ছিল। ঘটনার পর সে পালিয়ে যায়।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840