স্বাধীনতার ৪৯ বছরেও মেলেনি ১৮জন ‘শহীদ মুক্তিযোদ্ধার’ স্বীকৃতি

স্বাধীনতার ৪৯ বছরেও মেলেনি ১৮জন ‘শহীদ মুক্তিযোদ্ধার’ স্বীকৃতি

মির্জা সাইদুল ইসলাম (সাঈদ) সখীপুর : মুক্তিযুদ্ধের ৪৯ বছর পার হলেও গণহত্যার শিকার ১৮জন শহীদ মুক্তিযোদ্ধার আজও মেলেনি কোনো স্বীকৃতি। বুধবার (১ জুলাই) সখীপুর উপজেলার কালিয়ান গ্রামে ঐতিহাসিক গনহত্যা দিবস পালিত হলো।

১৯৭১ সালের এইদিনে উপজেলার কালিয়ান গ্রামে পাক হানাদার বাহিনী গণহত্যা চালিয়ে ওই গ্রামের ১৮জনকে হত্যা করে এবং আরও ৭ জনকে ধরে নিয়ে যায় হানাদার ক্যাম্পে। সেখানে নির্মম নির্যাতনের পর তাদের ছেড়ে দেয়া হয়।

মুক্তিযুদ্ধের ৪৯ বছর পার হলেও গণহত্যার শিকার ওই ১৮জন শহীদ মুক্তিযোদ্ধার মেলেনি আজও কোনো স্বীকৃতি।  এমনকি নির্যাতিত হওয়া ৭জনকেও মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি। অতর্কিত হামলা করে যে  ১৮ জন মুক্তিকামী মানুষকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়।

যাদের হত্যা করা হয় তাঁরা হলেন, মুন্সী রমেজ উদ্দীন, জোনাব আলী সরকার, হাবিবুর রহমান মুন্সী, আ: খালেক, বেলায়েত হোসেন, ছানোয়ার হোসেন, লাল মামুদ মিয়া, বাচ্চু মিয়া, ইয়াছিন আলী, মো: ছন্টু মিয়া, কাজী দুলাল হোসেন,আ: হাই শিকদার, জবেদ আলী শিকদার, ইসমাইল হোসেন, আরজু মিয়া, হৃদয় চন্দ্র সরকার, আ: ছালাম ও আ: জলিল।

প্রতি বছর ওই দিনে কালিয়ান গণহত্যা দিবস পালিত হয়। কালিয়ানে গণ শহীদদের স্মৃতি ধরে রাখার জন্য সরকার ২০১৯ সালে ওই স্থানে একটি স্মৃতিফলক নির্মাণ করেন। বুধবার সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার আসমাউল হুসনা লিজা কালিয়ানের ওই স্মৃতি স্তম্ভে শহীদদের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। 

এছাড়াও কালিয়ান মানিক স্মৃতি সংসদের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এ সময় ঐ গ্রামের কৃতী সন্তান, সাবেক সিভিল সার্জন ডা. আনোয়ার হোসেন,বীরমুক্তিযোদ্ধা সাইদুর রহমান, বীরমুক্তিযোদ্ধা দেওয়ান হাবিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। 

ডা. আনোয়ার হোসেন বলেন, আমরা গর্বিত যে আমাদের গ্রামের ১৮জন বীরসন্তান যাঁরা এ দেশের স্বাধীনতার জন্য নিজেদের জীবন বিলিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু অতীব দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি যে, ওই ১৮জন এখনো শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আজও কোনো স্বীকৃতি পাননি।

তিনি বলেন গণহত্যার শিকার ১৮জন ও পাক হানাদার বাহিনীর হাতে নির্যাতনের শিকার আরও ৭জনকে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতির জন্য গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় মন্ত্রী, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়’র নিকট জোর  দাবী জানাচ্ছি। 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আসমাউল হুসনা লিজা জানান, স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা চাইলে তাঁদের নাম শহীদ মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতির জন্য সংশ্লিষ্ট  মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ পাঠানো হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840