সখীপুরে‌ বিদ্যুৎস্পৃষ্টে শিশুর মৃত্যু

সখীপুরে‌ বিদ্যুৎস্পৃষ্টে শিশুর মৃত্যু

মির্জা সাইদুল ইসলাম (সাঈদ) : টাঙ্গাইলের সখীপুরে ফুটবল ফেলা দেখতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে তৃতীয় শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার (১৫ জুলাই) সন্ধ্যায় উপজেলার বেতুয়া গ্রা‌মে কওমী মাদ্রাসার নির্মাণাধীন চারতলা ভবনের ছাদে শিশু শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ (৯) বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়। স্থানীয়রা উদ্ধার ক‌রে সন্ধ্যায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে চিকিৎসক ওই শিক্ষার্থীকে মৃত ঘােষণা করেন।

শিশুটি উপজেলার কালিয়ান টানপাড়া গ্রামের সৌদি আরব প্রবাসী সােবহান খানের ছোট ছেলে। স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র। তার মৃত্যুতে এলাকার শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

প্রত্যাক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী জানান, বুধবার বিকেলে উপজেলার বেতুয়া কওমী মাদ্রাসা মাঠে স্থানীয়রা একটি ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়ােজন করে। ওই শিক্ষার্থী খেলা দেখ‌তে মাঠের পাশের নির্মানাধীন চারতলা ভবনের ছাদে উঠে। খেলা শেষে ছাদ থেকে নামতে গি‌য়ে‌ সে বিদ্যুতের তারে স্পৃষ্ট হয়। পরে ফুটবল মাঠে উপস্থিত দর্শকরা তাকে উদ্ধার করে সখীপুর হাসপাতালে নিয়ে আসে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত ডাঃ সুলতানা রা‌জিয়া জানান, হাসপাতালে নিয়ে আসার আ‌গেই কোন এক সময় ছে‌লে‌টির মৃত্যু হ‌য়ে‌ছে। ছেলেটির শরীরের কোথাও বিদ্যুৎস্পৃষ্টের কোনাে চিহ্ন খুঁজে পাওয়া যায়নি, যে কারনে লাশটি থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে পায়ের পাতার নিচে সামান্য ক্ষত রয়েছে।

সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমির হােসেন জানান, চিকিৎসকের সন্দেহ হওয়ায় লাশ ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানাে হচ্ছে। তাছাড়া বিষয়টি অধিকতর তদন্তের বিষয় রয়েছে এবং ওসি (তদন্ত) মোঃ লুৎফুল কবির উদয় কে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করতে পাঠানো হয়েছে।

এরআগে টাঙ্গাইলের সখিপুরে বিষধর সাপের কামড়ে এক অন্তসত্ত্বা গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে।বুধবার (৮ জুলাই) রাত নয়টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করে।

নিহত ওই গৃহবধূর নাম শারমিন আক্তার (১৯)। সে উপজেলার দাড়িয়াপুর গ্রামের শরীফ হোসেনের স্ত্রী। ওই গৃহবধূ তিন মাসের অন্তসত্ত্বা ছিলেন বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।

জানতে চাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের উপসহকারী কমিউনিটি চিকিৎসা কর্মকর্তা ফরিদ হোসেন জানান, উপজেলার দাড়িয়াপুর গ্রামের বাড়িতে সন্ধ্যার দিকে মুরগির খোয়াড়ের (মুরগি পালনের ছোট ঘর) ঢাকনা দিতে গেলে ওই নারীকে সাপে দংশন করে। কিছুক্ষণের মধ্যেই  বিষক্রিয়ায় ওই নারী অজ্ঞান হয়ে পরেন।

ওই সময় স্বজনেরা তাঁকে সখীপুর পৌর শহরের একটি ওষুধের দোকানে নিয়ে আসেন। রাত আটটার দিকে ওই ওষুধের দোকানদার সাপে কাটার ভ্যকসিন দিলেও কোনো উন্নতি না হওয়ায় রাত নয়টার দিকে অজ্ঞান অবস্থায় সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসেন। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক ওই গৃহবধূকে মৃত ঘোষণা করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসা কর্মকর্তা মঞ্জুরুল ইসলাম জানান, হাসপাতালে আনার পূর্বেই রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সাপের বিষের কোনো এন্ট্রি ভ্যাকসিন নেই বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, সখীপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে কাজুলি বর্মন (৩০) নামের এক আদিবাসী নারীর মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার (২৬জুন) উপজেলার কাকড়াজান ইউনিয়নের দিঘীরচালা গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। কাজুলি ওই গ্রামের বিকাশ চন্দ্র বর্মনের স্ত্রী।

স্থানীয় ইউপি সদস্য জয়নাল আবেদীন জানান, শুক্রবার দুপরে কাজুলি বর্মন বাড়িতে মোবাইল চার্জ দিতে যায়। এসময় মাল্টি প্লাগের বিদ্যুতের ছেঁড়া তারে সে বিদ্যুতায়িত হয়।

পরে স্থানীয়রা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ঘোষণা করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসা কর্মকর্তা রাজিয়া সুলতানা জানান, বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ওই নারীর ডান হাত ও পেটে পুড়ে গভীর ক্ষত হয়েছে। হাসপাতালে আনার আগেই তাঁর মৃত্যু হয়।

এছাড়াও সখীপুরে বিয়ের দাবিতে উকিল মে‌য়ের জামাই‌ মো. সাইদুল ইসলাম (৪৫)-এর বাড়িতে অনশন কর‌ছেন শাশুড়ী (৫০)।সাইদুল উপজেলার কালিয়া ইউনিয়নের কুতুবপুর কলেজ মোড় এলাকার ক্বারী আবুল হোসেনের ছেলে।

এ ঘটনার পর জামাতা সাইদুল পলাতক রয়েছে। অনশনরত শাশুড়ী‌কে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করছেন উ‌কিল জামাতার মা ও বোন।

সোমবার (২৯ জুন) বিকেলে স‌রেজ‌মি‌নে গিয়ে জানা যায়, কালিয়া ইউনিয়নের কুতুবপুর কলেজ মোড় এলাকার ক্বারী আবুল হোসেনের ছেলে অভিযুক্ত উ‌কিল জামাতার নাম মো. সাইদুল ইসলামের বাড়ীর মূল দরজার সামনে উকিল শাশুড়ী বিয়ের দাবিতে অনশনরত অবস্থায় রয়েছে।

এসময় স্থানীয়রা জানান, সাইদুলের প্রথম বিয়ের উকিল শ্বশুর হন ওই ইউনিয়নের শাপলা পাড়া গ্রামের ডাবলু মিয়া। এরই সুবাদে সাইদুল ডাবলুর বাড়িতে নিয়মিত যাতায়াত করতো। একপর্যায়ে ডাবলু মিয়ার স্ত্রী দুই সন্তানের জননীর সাথে সাইদুলের পরকিয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

উকিল শাশুড়ী (গৃহবধু) জানান, সাইদুল তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ধর্ষণ করে আসছিলো। পরে তাকে বিয়ের কথা বলা হলে নানা তালবাহানা করে এড়িয়ে চলে। উপায়ান্তর না পেয়ে সোমবার সকালে বিয়ের দাবিতে তার বাড়িতে উঠে বসি।

এ অবস্থায় সাইদুলের পরিবারের লোকজন আমাকে শারীরিক ও মানসিক ভাবে নানা ধরনের নির্যাতন করেছে। এমতাবস্হায় জীবনের নিরাপত্তা নিয়েও তিনি শঙ্কিত বলে জানান।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মজিবুর রহমান ফকির জানান, উকিল শাশুড়ির সাথে সাইদুলের পরকীয়া সম্পর্ক থাকায় প্রথম স্ত্রী তাকে ছেড়ে চলে যায়। সম্প্রতি সাইদুল ওই উকিল শাশুড়ির সাথে আপত্তিকর অবস্থায় স্থানীয়দের কাছে ধরাও পরেছে। এ নিয়ে গ্রাম্য সালিশ ডাকা হলে সাইদুল সালিশে উপস্থিত হয়নি।

সাইদুলের মা জানান, ওই মহিলাটি খারাপ। তা না হলে উকিল শাশুড়ী হয়ে কেন সে আমার ছেলের সাথে অবৈধ সম্পর্কে জড়াবে?

সখীপুর থানার (সেকেন্ড অফিসার) এস আই বদিউজ্জামান জানান, এখনও কেউ কোন অভিযোগ করেনি।অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840