করোনায় আক্রান্ত এমপি জোয়াহের

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইল-৮ (বাসাইল-সখীপুর) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম ভিপি জোয়াহের করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) রাতে আসা নমুনার ফলাফলে তার পজিটিভ আসে। এনিয়ে জেলায় প্রথম কোনো সংসদ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হলেন।

রাতেই সাংসদকে টাঙ্গাইল থেকে অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকা স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জেলা আওয়ামী লীগের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

এমপির করোনাভাইরাসে আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ওয়াহীদুজ্জামান জানান, জ্বর ও ঠান্ডার সাথে তার শ্বাসকষ্ট থাকায় গত ১৪ জুলাই মঙ্গলবার তিনি করোনাভাইরাসের পরীক্ষার জন্য নমুনা দেন।

(১৬ জুলাই) বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে ঢাকা থেকে আসা নমুনার প্রতিবেদনে সাংসদের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। রাতেই তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

এরপূর্বে টাঙ্গাই‌লের সখিপু‌রে  নতুন ক‌রে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ছয়জন। এদের মধ্যে সখিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক নার্স ও বাজার বনিক সমিতির সাবেক সভাপতি রয়েছেন। এ নি‌য়ে উপ‌জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাড়ালো ৪৫ জ‌নে। এ‌ পর্যন্ত সুস্থ ২০ জন, মৃত ১ জ‌ন,এবং ২৪ জন রয়েছেন চিকিৎসাধীন।

বুধবার (১৫ জুলাই) উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবদুস সোবহান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

জেলা সিভিল সার্জনের কার্যালয় সূত্রে জানাযায়, বুধবার (১৫ জুলাই) সখিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র স্টাফ নার্স সুলতানা আক্তার, সখিপুর বাজার বণিক বহুমুখী সমবায় সমিতির সাবেক সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী খলিলুর রহমান,

তার স্ত্রী ফরিদা ইয়াসমিন, পাথারপুর গ্রামের মা‌জেদা আক্তার, পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ড এলাকার তানজিনা ও নলুয়া এয়ার‌ফোর্স এলাকার এক ব্য‌ক্তির দে‌হে ক‌রোনা শনান্ত হ‌য়ে‌ছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আ‌রো জানান, করোনা উপসর্গ থাকায় গত সোমবার তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরে বুধবার সকালের রিপোর্টে ওই ছয় ব্যক্তির করোনা পজেটিভ আসে। আক্রান্তরা সবাই নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

উল্লেখ্য, টাঙ্গাইলের সখীপুরে করোনা শনাক্তের শুরু থেকে যার মমতা, আক্রান্ত রোগীদের মনে সাহস জোগাতো। যার অসীম সাহসী দুটি হাত ভুরে এক ঝুড়ি মৌসুমি ফল আর লকডাউন ঘোষিত পরিবারের জন্য দুই সপ্তাহের খাবার নিয়ে ছুটে যেতেন আক্রান্তের বাড়িতে। তিনি হলেন সখিপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা  (ইউএনও) আসমাউল হুসনা লিজা। 

ফলের ঝুড়িতে রেখে আসতেন ছোট্ট একটি চিরকুট। যার মাঝে লেখা থাকতো ‘মমতার দাওয়াই’। আর এই ফলের ঝুড়ি হাতে পেয়ে করোনা আক্রাক্ত রোগীরা যেন মানসিক ভাবে অর্ধেক সুস্থ  হয়ে উঠতেন। এই নামটি সখিপুরের মানুষের মুখে ভেসে বেড়াচ্ছে আজও।

এবারের চিত্রটি তার একেবারে বিপরীত । বৃহস্পতিবার (৯জুলাই) সকালে ইউএনও’র স্বামী মোঃ ইশতিয়াক আহমেদ জুয়েল’র দেহে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। এরপর সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এদিন বিকেলে সেই মমতার দাওয়াই নিয়ে ইউএনও বাসায় হাজির হন। তাঁরা পরিবারটির সবাইকে সাহস জুগিয়ে আসেন। প্রতিক্রিয়ায় ইউএনও বললেন, অবশেষে সেই ‘মমতার দাওয়াই’ ফিরে এলো আমারই ঘরে!

গত ২১ এপ্রিল সখীপুরে প্রথম ঢাকাফেরত কাঁচামাল ব্যবসায়ী রিপন মিয়ার হাত ধরে একই পরিবারের পাঁচজনের করোনা শনাক্ত হয়। সে সময় পরিবারটির প্রতি অসহিষ্ণু হয়ে ওঠেন এলাকার অনেকে।

কেউ কেউ ইউএনওকে ফোন দিয়ে পরিবারটিকে শায়েস্তা করারও কথা বলেন। ইউএনও বাড়িটিতে যান ঠিকই, কিন্তু পরিবারটির জন্য মমতার দাওয়াই নিয়ে এবং অসহিষ্ণু লোকজনের মানসিকতা পরিবর্তনের বার্তা নিয়ে।

সঙ্গে নিয়ে যান এক ঝুড়ি ফল ও পাঁচ সদস্যের পরিবারের জন্য দুই সপ্তাহের খাদ্যসহায়তা। এলাকাবাসীর মানসিকতার পরিবর্তন ও রোগীদের প্রতি মমত্ববোধ বাড়াতে বাড়ির সামনে একটি ব্যানার টাঙিয়ে দেন।

তাতে লেখা ছিল ‘করোনাভাইরাস অতিমাত্রায় ছোঁয়াচে রোগ, কিন্তু মরণব্যাধি নয়। সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব রক্ষা করে রিপন মিয়ার পরিবারকে সুস্থ হতে সহায়তা করুন। রিপন মিয়া কোনো অপরাধী নন, তিনি বৈশ্বিক মহামারির শিকার। আপনারা রোগীর প্রতি মানবিক আচরণ করুন।

এ ছাড়া ইউএনও বাড়ির আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য নেওয়া ফলের ঝুড়িতে একটি চিরকুট রেখে আসেন। তার শিরোনাম ছিল ‘মমতার দাওয়াই’। তাতে আক্রান্ত ব্যক্তিদের উদ্দেশ্যে লেখা ছিল ‘মনে সাহস রাখবেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার আপনার পাশে আছেন।’ শুধু উপহার দিয়েই শেষ নয়, মাঝে মধ্যে রোগীকে ফোন করে সাহস জুগিয়েছেন। খোঁজ নিয়েছেন তাঁরা কেমন আছেন, কী খাচ্ছেন।

ইউএনও আসমাউল হুসনা গত রোববার তৃতীয়বারের মতো নমুনা দেন। মঙ্গলবার ফলাফল নেগেটিভ আসে। বুধবার তাঁর স্বামীও নমুনা দেন। বৃহস্পতিবার সকালে তাঁর স্বামীর ফলাফল পজিটিভ আসে।

এবার ইউএনও নিজেই বিপদে। তাঁকে মমতার দাওয়াই কে দেবেন। কে দেবেন সাহস। হঠাৎ সহকারী কমিশনার (ভূমি) হা-মীম তাবাসসুম ও সখীপুর থানার ওসি আমির হোসেন এক ঝুড়ি ফলমূল নিয়ে হাজির ইউএনওর বাসায়।

এ নিয়ে ইউএনও আসমাউল হুসনা বৃহস্পতিবার রাতে তাঁর ফেসবুক পেজএ একটা স্ট্যাটাস দেন। তিনি লেখেন ‘একটা বিষয় কখনো ভাবিনি যে ‘মমতার দাওয়াই’ আমার ঘরেই ফিরে আসবে!” তাঁর স্বামীর মনে সাহস জোগাতে মমতার দাওয়াই পৌঁছানোর জন্য তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান, এসিল্যান্ড, ওসি ও সাংবাদিকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

ওসি আমির হোসেন বলেন, উপজেলায় কেউ করোনা শনাক্ত হলেই তাঁর বাড়িতে ছুটে যেতেন তিনি। রোগীকে সাহস দিতে তিনি মমতার দাওয়াই নামে একটি প্যাকেট উপহার দিয়ে আসতেন।

আজ তাঁর বাড়িতেই তাঁর স্বামীর করোনা শনাক্ত হয়েছে। তিনি এক সপ্তাহ ধরে বাসা থেকে বের হতে পারছেন না। তাই দায়িত্ববোধ থেকেই তাঁকে সাহস দিতে তিনি ইউএনওর বাসায় গিয়েছেন তাঁর সেই মমতার দাওয়াই নিয়েই। 

সখিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমির হোসেন  বলেন এই মানবিক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং তার পরিবারের জন্য সকলেই দোয়া করবেন যেন তিনি হাসি মুখে আবার আমাদের মাঝে দ্রুত ফিরে আসেন।

আরো করোনার খবর সখিপুর পৌর মেয়র করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর নতুন করে ওই পরিবারের আরও তিন সদস্য সহ ৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। 

শুক্রবার (১০জুলাই) সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবদুস সোবহান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে গত বুধবার সখিপুর পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু হানিফ আজাদ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে গত (৭জুলাই) রাতেই তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য  ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়।

(৮জুলাই) ঢাকার বিশেষায়িত আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি বর্তমানে অনকটাই ভালো আছেন বলে তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। তিনি পৌরবাসী ও দেশে-বিদেশে অবস্থানরত সকলের নিকট দোয়া প্রার্থনা করেছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবদুস সোবহান জানান, গত বুধবার পৌরসভার মেয়রের দেহে করোনা শনাক্ত হয়। এর পর তার স্ত্রী, ছেলে, ছেলের বউ, নাতি ও বাড়িতে থাকা এক কর্মচারী, পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের এক ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়।

তিনি আরও জানান, শুক্রবার সকালে তাদের জানানো হয়েছে মেয়রের স্ত্রী হাসিনা আজাদ(৫৫), ছেলে বউ ডা.শারমিন সেলিম জ্যোতি(২৮), নাতি আদিয়ান রাজ আজাদ (৪), বাড়িতে থাকা কর্মচারী কার্তিক দাস, ও পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ডের মজিবুর রহমানের ছেলে, মোশারফ হোসেনের দেহে  করোনা শনাক্ত হয়েছে।

এ নিয়ে সখিপুর পৌরসভা সহ উপজেলার সাধারণ জনগণের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। বর্তমান সময়ে সখিপুর বাজার, শপিংমল, দোকানপাট, রাস্তাঘাটে সাধারণ মানুষের অনেকটা উন্মুক্ত চলাচলের কারণে যথাযথ স্বাস্থবিধী ব্যহত হওয়াই মুল কারণ হিসেবে মনে করছে সচেতন মহল। 

উল্লেখ্য, সখীপুর পৌরসভার পরপর দুই বার নির্বাচিত মেয়র, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু হানিফ আজাদ সহ চারজন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়।

মেয়রের তাঁর স্বাভাবিক শ্বাস প্রশ্বাসে সমস্যা হওয়ায় মঙ্গলবার (৭ জুলাই) দিবাগত রাত দেড়টার দিকে পরিবারের পক্ষ থেকে তাঁকে ঢাকায় নেওয়া হয়। বুধবার (৮ জুলাই) ঢাকার করোনা বিশেষায়িত (বেসরকারি) আনোয়ার খান হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।  

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবদুস সোবহান জানান, মঙ্গলবার রাতে পৌরসভার মেয়রের কোভিড শনাক্তের খবর পাওয়ার পর তাঁর স্বাভাবিক শ্বাসপ্রশ্বাসে সমস্যা দেখা দেয়।

পরে তাঁকে রাত দেড়টায় সরকারি অ্যাম্বুলেন্সযোগে ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে পাঠানো হয়। এ ছাড়া সখীপুরে আরও তিনজনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

এরা হলেন সখিপুর কৃষি কার্যালয়ের অফিস সহকারী ফরহাদ আলী (৫০) পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা রিয়াজ (৩৪) ও তাঁর স্ত্রী রিণা (২৭) এ নিয়ে উপজেলায় মোট শনাক্ত দাঁড়াল ৩৩ জনে।

এ পর্যন্ত উপজেলা থেকে ৫৭৭টি নমুনা পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে ৫৫৩টি নমুনার ফলাফল পাওয়া গেছে। ইতোমধ্যে ১৪ জন বাড়িতে থেকেই সুস্থ হয়েছেন।

এর আগে মঙ্গলবার (৭জুলাই) সখীপুরে পিতা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার চার দিন পর তাঁরই চার বছরের শিশু মেয়ের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। এ নিয়ে উপজেলায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো ২৯ জনে।

তাঁদের মধ্যে ১৩ জন সুস্থ হয়েছেন। সুস্থ হওয়া ব্যক্তিরা সবাই বাড়িতে থেকেই চিকিৎসা নিয়েছেন। সখীপুরে শনাক্ত হওয়ার পর এই রোগে কেউ মারা যাননি। তবে একজন পোশাক কর্মীর মৃত্যুর পর নমুনা পরীক্ষা করে তাঁর শরীরে করোনা ভাইরাসের সংক্রামন পাওয়া যায়।

মঙ্গলবার (৭জুলাই) বেলা ১১টায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবদুস সোবহান এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিসংখ্যানবিদ আসমা আক্তার জানান, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের প্রকৌশলী শফিকুল (৩২) রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে নমুনা পরীক্ষা করান।

গত শনিবার তাঁর ফলাফল পজিটিভ আসে। সোমবার ওই প্রকৌশলীর স্ত্রী, চার বছরের মেয়ে এবং মা ও বাবা টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নমুনা দেন। মঙ্গলবার (৭জুলাই) ওই পরিবারের কেবল চার বছরের শিশুটির করোনা পজিটিভ আসে।

ওই প্রকৌশলীর বাড়ি উপজেলার নলুয়া গ্রামে হওয়ায় টাঙ্গাইল সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে মেয়েটির নাম সখীপুর উপজেলার শনাক্তের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ওই প্রকৌশলী মুঠোফোনে জানান, ‘আমার করোনা শনাক্ত হওয়ার পর স্ত্রী ছোট মেয়েটিকে গ্রামের বাড়িতে রেখে আমার সেবা করেছেন।

অথচ আজকের ফলাফলে আমার স্ত্রী, মা, বাবা সবার নেগেটিভ হলেও দূরে থাকা আমার চার বছরের মেয়ের পজিটিভ আসে। এ ফলাফল নিয়ে আমার যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে।

আমার মেয়ের কোনো উপসর্গও নেই। তাই আজই (৭জুলাই) সন্ধ্যায় আমার মেয়েকে নিয়ে দ্বিতীয় বার করোনা পরিক্ষা করাতে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যাবো।

এছাড়াও সোমবার (২৯ জুন) সখীপুর উপজেলার বোয়ালী ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক, কাজী ও সোনালী ব্যাংকের এক আনসার সদস্য সহ তিনজনের শরীরে করোনা সংক্রমণ দেখা দেয়।

সোমবার (২৯ জুন) উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবদুস সোবহান এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন ওই তিনজনই গত ২১ জুন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে নমুনা দিয়েছিলেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিসংখ্যান কর্মকর্তা আসমা আক্তার জানান, বোয়ালী  ডিগ্রি কলেজের জীববিজ্ঞান বিষয়ের প্রভাষক শফিকুল ইসলাম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান  শফিউল ইসলাম (কাজী বাদলের) ছোট ভাই কাকড়াজান ইউনিয়নের দায়িত্ব প্রাপ্ত নিকাহ রেজিস্টার (কাজী) শহীদুল ইসলাম ( কাজী শহীদ) ও সোনালী ব্যাংকের নিরাপত্তা কর্মী আনসার সদস্য মাহমুদুল হাসান। এদের সকলের করোনা রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে।


উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আসমাউল হুসনা লিজা টাঙ্গাইল প্রতিদিনকে জানান, করোনা পজেটিভ হওয়া ব্যক্তিরা যাঁদের সংস্পর্শে এসেছেন তাঁদের চিহ্নিত করে লকডাউনের আওতায় আনা হবে। সে জন্য প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।


উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবদুস সোবহান টাঙ্গাইল প্রতিদিনকে জানান , এ পর্যন্ত ৫২০জনের নমুনা পাঠানো হয়েছিলো। ইতিমধ্যে ৪৯১জনের ফলাফল হাতে এসেছে। এরমধ্যে ২১জনের করোনা পজেটিভ রিপোর্ট এসেছে।

এরপূবের্ মঙ্গলবার (২৩ জুন) সখীপুর উপজেলার কালিদাস পূর্বপাড়া গ্রামের  (টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার) মোঃ দেলোয়ার হোসেন (২৭) দেহে করোনা শনাক্ত হয়। সে ঐ গ্রামের  মান্নানের ছেলে।

মঙ্গলবার (২৩ জুন) মির্জাপুর হাসপাতালে নমুনা দিয়ে আসেন। রোববার (২৮জুন) সকালে ফলাফল পজেটিভ আসে। এ নিয়ে সখীপুরে শনাক্ত হয় ১৯জন ।

দেলোয়ার মির্জাপুরের গোড়াই নিউটেক্স ডাইং অ্যান্ড প্রিন্টিং লিমিটেড এ সিনিয়র প্রোডাক্টশন অফিসার পদে চাকুরিতে রয়েছেন। তিনি টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং-এ ডিপ্লোমা করেছেন। 

রোববার (২৮ জুন) উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবদুস সোবহান এ তথ্য নিশ্চিত করেন

মুঠোফোনেে কথা হলে  ইঞ্জিনিয়ার দেলোয়ার হোসেন বলেন, প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে তিনি খাদ্যের কোনো গন্ধ পেতেন না। এক সপ্তাহ আগে তাঁর গলাব্যাথা শুরু হলে তিনি মির্জাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে নমুনা দিয়ে আসেন।

ফলাফলে করোনা পজেটিভ আসে। নমুনা দেওয়ার পর তিনি বাড়িতে এসে নিজে থেকেই পৃথক কক্ষে আইসোলেশনে আছেন।

বহুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া সেলিম জানান, ইউএনও ম্যাডামের সঙ্গে কথা বলে দেলোয়ারের বাড়িটি লকডাউন ঘোষণা করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এছাড়াওরোববার (২৮ জুন) সখীপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে বীর মু‌ক্তিযোদ্ধা মােজাম্মেল হক (৬৬) চিকিৎসাধীন অবস্থায় কোভিড-১৯ সংক্রমিত হয়ে মৃত্যুবরণ ক‌রেছেন।

রোববার (২৮ জুন) সকালে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবক দল উপ‌জেলার গোহাইলবা‌ড়ি‌র পা‌রিবা‌রিক কবরস্থা‌নে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাঁকে দাফন করে‌ছেন।

তিনি ওই গ্রা‌মের হাবিবুর রহমানের ছেলে এবং দীর্ঘদিন ধরে পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের কাহাৰ্তা এলাকায় বসবাস করতেন।

জানা যায়, মু‌ক্তি‌যোদ্ধা মোজা‌ম্মেল হক ৮ জুন সখীপুর-ব‌হেড়া‌তৈল সড়‌কের লিচু বাগান এলাকায় মোটরসাই‌কে‌লের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দূর্ঘটনায় গুরুত্বর আহত হন। স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।

পরবর্তীতে অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ও পরে সেখান থেকে ঢাকার আগারগাঁও ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্সেস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ভর্তির সময় চিকিৎসকরা তাঁর নমুনা নি‌য়ে ক‌ভিড-১৯ পরীক্ষা করলে নেগেটিভ আসে। পরে ২০ জুন তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) নেওয়া হয়। ২২ জুন দ্বিতীয় দফা নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে ওই মুক্তিযোদ্ধার কোভিড-১৯ সংক্রমিত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হয়। প‌রে শনিবার (২৭ জুন) দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

সখীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আসমাউল হুসনা লিজা জানান, বীর মু‌ক্তি‌যোদ্ধা‌কে রোববার সকাল সাড়ে নয়টার সময় যথাযোগ্য রাষ্ট্রীয় মর্যাদায়, স্বাস্হবিধী মেনে এবং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবক দলের সহযোগিতায় দাফন সম্পন্ন করা হ‌য়ে‌ছে।

এর পূবের্ শুক্রবার (২৬জুন) ও বৃহস্পতিবার (২৫শে জুন) সখীপুর থানার কনস্টেবল ইউনূস ফকির (৫৫) নামে আরও এক পুলিশ সদস্যের শরীরে নতুন করে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। 

এর আগে বৃহস্পতিবার (২৫শে জুন) সখিপুর থানার এএস আই সোহেল রানার  করোনা সনাক্ত হয়। 

শুক্রবার (২৬জুন) শনাক্ত হওয়া পুলিশ সদস্য ইউনূছ ফকির (৫৫) সখীপুর থানায় কনস্টেবল পদে ও বৃহস্পতিবার শনাক্ত হওয়া সোহেল রানা (৩৫) পুলিশের সহকারী উপপরিদর্শক  (এএসআই) পদে কর্মরত রয়েছেন।

সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আব্দুস সোবহান এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, সখীপুরে এ নিয়ে ১৮ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হলো।

এদের মধ্যে একজন পোশাক কর্মীর নমুনা সংগ্রহ করা হয় তার মৃত্যুর পর ।

সখীপুর থানার উপপরিদর্শক (সেকেন্ড অফিসার) এস আই  বদিউজ্জামান  জানান, সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) পদমর্যাদার ওই পুলিশ কর্মকর্তার বাড়ি ঢাকা জেলায় ও কনস্টেবলের বাড়ি জামালপুর জেলায়। গত ১৪ জুন পুলিশ কর্মকর্তা ও ১৭ জুন পুলিশ সদস্য ছুটি শেষ করে বাড়ি থেকে কর্মস্থল সখীপুর থানায় যোগ দিতে আসেন।

ঢাকা ও জামালপুর থেকে আসায় তাঁদেরকে সখীপুর পিএম পাইলট মডেল গভ. স্কুল অ্যান্ড কলেজের একটি কক্ষে আইসোলেশনে রাখা হয়। ১৫ ও ১৮ জুন তাঁদের সংগৃহীত নমুনা পরীক্ষার জন্য ঢাকার জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটে (পিএইচআই) এ পাঠানো হয়।

শুক্রবার সকালে একজন ও বৃহস্পতিবার আরেকজনের পরীক্ষার ফলাফল আমরা পেয়েছি।  তাতে ঐ দুই সদস্যেেে শরীরে করোনা ভাইরাস  ‘পজিটিভ’ এসেছে ।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আব্দুস সোবহান জানান, দুই পুলিশের মধ্যেই করোনার কোনো উপসর্গ নেই। তাঁরা অনেকটা সুস্থ ও স্বাভাবিক আছেন।

এ পর্যন্ত উপজেলায় ৫২০টি নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। ৪৬৪টি নমুনার ফলাফল পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ১৮ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

গত এক সপ্তাহে সখিপুর উপজেলায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ কিছুটা বেড়ে যাওয়ায় সাধারণ মানুষ অনেকটা আতংকের দিন গুনছেন। বিশেষ করে পৌর মেয়র ও তার পরিবার, মানবতার সেবক কিংবা মমতাময়ী খ্যাত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ওনার স্বামী সহ বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ মানুষ সংক্রমিত হওয়ায় সাধারন মানুষের মাঝে এর একটা প্রভাব লক্ষ্য করা গেছে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840