ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ঘারিন্দায় ট্রাক উল্টে চালক নিহত

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ঘারিন্দায় ট্রাক উল্টে চালক নিহত

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইল সদর প্রতিনিধিঃ ঢাকা টাঙ্গাইল মহাসড়কের টাঙ্গাইল সদর উপজেলার ঘারিন্দা নামক স্থানে ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে মোঃ আক্তার হোসেন (৪০) নামের চালক নিহত হয়েছে।

এ ঘটনায় হেলাপার আহত হয়েছে । মঙ্গলবার সকালে এ দূর্ঘটনা ঘটে। নিহত ট্রাক চালক বগুড়া জেলার দুপচাচিয়া উপজেলার শহরতলা গ্রামের মৃত আশরাফ হোসেনের ছেলে।

টাঙ্গাইল ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মোঃ সফিকুল ইসলাম জানান, ঢাকা থেকে গম বোঝাই একটি ট্রাক (ঢাকা মেট্রো-ড-১৪-১৯৭০) বগুড়া যাওয়ার পথে টাঙ্গাইল মহাসড়কের ঘারিন্দা নামক স্থানে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে পানিতে পড়ে যায়।

এতে করে ট্রাকে আটকা পড়া চালক মোঃ আক্তার হোসেন (৪০) ঘটনাস্থলেই নিহত হয় এবং হেলপার মোঃ আসাদুল (৫০) আহত হয়। আহতকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এরপূর্বে ভূঞাপুর উপজেলায় মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায় একই পরিবারের বাবা নিহত ও ছেলে আহত হন।

বুধবার (১৫জুলাই ) সকাল ৮টায় উপজেলার পলিশা গ্রামের ভূঞাপুর-তারাকান্দি সড়কে এই মোটর সাইকেল দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহত মোটর সাইকেল আরোহী উপজেলার পৌর এলাকার টেপিবাড়ী গ্রামের সিকান্দার হোসেনের ছেলে শফিকুল ইসলাম শফিক (৫৫)।

সে পৌরসভার রোলার চালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। নিহতের ছেলে আহত মিয়াত হোসেন  গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। 

দুর্ঘটনায় শোক জানিয়ে পৌর মেয়র মাসুদুল হক মাসুদ জানান, ঘটনাটি শুনে আমি মর্মাহত হয়েছি। সে পৌরসভার রোলার চালক হিসেবে নিয়োজিত ছিল। সরকারি নিয়ম অনুসারে শফিকুল এর পরিবারের যেকোনো আর্থিক অনুদান পাবার ক্ষেত্রে আমি সর্বাত্মক সহযোগিতা করব।

থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাশিদুল ইসলাম জানান, সকালে নিহত শফিকুল ইসলাম ও তার ছেলে মিয়াত হোসেন মোটর সাইকেল যোগে তাড়াই বাজারে দুধ কিনতে যাচ্ছিলেন। পলিশা গ্রামে আসলে রাস্তার অপর দিক থেকে হঠাৎ একটি কুকুর ছুটে আসে।

পরে কুকুরটিকে বাঁচাতে মোটর সাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে পড়ে একটি গাছের সাথে ধাক্কা লেগে ঘটনাস্থলেই শফিকুল ইসলাম শফিক মারা যান।

আর মিয়াত হোসেন গুরুত্বর ভাবে আহত হলে স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে প্রথমে ভূঞাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতাল ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হতে থাকলে তাকে ঢাকা প্রেরণ করা হয়। 

এরআগে ভূঞাপুরে করোনার উপসর্গ নিয়ে উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নে বিলচাপড়া গ্রামের চান মাহমুদের ছেলে খাজা নাজিম উদ্দিন তালুকদার (৭৪)-এর মৃত্যু হয়েছে।

সোমবার (১জুন ) ভোররাতেই  তিনি মারা যান।  প্রশাসনের হস্তক্ষেপে ইসলামী ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় জানাজার নামায শেষে বিলচাপড়া কবর স্থানে সোমবার দুপুরে দাফন করা হয়।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান বাবলু জানান, মৃত ব্যক্তি ঢাকায় শ্যামলী পিসি কালচারে নিরাপত্তা প্রহরী হিসেবে কর্মরত ছিল। সেখানে কর্মরত অবস্থায় সর্দিকাশি ও জ্বরে ভুগছিলেন।

রোববার সে বাড়িতে আসতে চাইলে তার স্বজনরা ঢাকায় ডাক্তার দেখাতে পরামর্শ দেয় এবং বাড়ি আসতে নিষেধ করা হয়। কিন্তু সে কোন ডাক্তার না দেখিয়ে নিজেই ফার্মেসী থেকে ঔষধ কিনে খান।

রবিবার অসুস্থতা বোধ করলে রাতে একটি প্রাইভেট কার ভাড়া করে বাড়ি আসেন এবং একটি ঘরে একাই ঘুমোতে যায়। ভোরবেলা তিনি মারা যান। তার দাফনে স্থানীয়রা বাঁধা দিলে প্রসাশনের ‌সহযোগিতা দাফন সম্পন্ন করা হয়।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আসলাম হোসাইন,  ভূঞাপুর থানা পুলিশ,  উপজেলা প্রশাসন, স্বাস্থ্যকর্মী,ইসলামী ফাউন্ডেশন মিলে মৃত ব্যাক্তির লাশ দাফন সম্পন্ন করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মহী উদ্দিন জানান, মৃত ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।

এরআগে ভূঞাপুরে যমুনা নদীতে নৌকাডুবির ঘটনায় নিখোঁজ তিনজনের মধ্যে ওয়ালিফা নামের এক কিশোরীর লাশ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল।

শনিবার (১৮ এপ্রিল) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত ওয়ালিফা বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার দিগলকান্দী গ্রামের হাসেন আলীর মেয়ে। তবে এখনো নিখোঁজ  রয়েছে মা রত্না ও ছেলে রবিউল।

টাঙ্গাইল ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মো.শফিকুল ইসলাম জানান, শুক্রবার (১৭ এপ্রিল) দুপুরে যমুনা নদীতে নৌকাডুবির ঘটনায় ভূঞাপুর থানা পুলিশের সহযোগীতায় শনিবার সকালে দ্বিতীয় দফায় উদ্ধার অভিযান শুরু করেন তারা। টানা ২ ঘন্টা অভিযান চালানোর পর নিখোঁজ তিনজনের মধ্যে একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। বাকি দুইজনের লাশ উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

উল্লেখ্য, শুক্রবার দুপুরে ১৪ জন যাত্রী নিয়ে একটি নৌকা যমুনা নদী পাড় হচ্ছিলো। নৌকাটি বঙ্গবন্ধু সেতুর ১৪ নং পিলার কাছে গিয়ে হঠাৎ ডুবে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার অভিযান শুরু করে। ১৪ জনের মধ্যে ১১জনকে জীবিত উদ্ধার করতে পারলেও  তিনজন নিখোঁজ থাকেন।

এরপূর্বে ভূঞাপুরে যমুনা নদীতে নৌকাডুবিতে ১১ জনকে জীবিত উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। এই ঘটনায় আরো ৩ জন নিখোঁজ।শুক্রবার (১৭ এপ্রিল) দুপুর ১২ টায় এই নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে লকডাউন থাকায় রাস্তায় যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। তারা ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুরসহ জেলার বিভিন্ন পেশার শ্রমজীবী মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়ায় তারা গ্রামের বাড়ি যাওয়ার জন্য বের হয়।

রাস্তায় যানবাহন না পেয়ে তারা বিভিন্নভাবে ভেঙে-ভেঙে টাঙ্গাইল সীমান্তে যমুনা নদী পর্যন্ত আসে। যানবাহন না থাকায় বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতু দিয়ে পার হতে ব্যর্থ হয়ে তারা নৌকাযোগে রওনা হয়। মাঝ নদীতে নৌ পুলিশ টহল দেখে যাত্রীবাহী নৌকাটি অন্যদিক দিয়ে নদী পার হওয়ার চেষ্টা করে।

নৌকাটি সেতুর ১৪নং পিলারের কাছাকাছি আসলে আকস্মিকভাবে দমকা বাতাসে ডুবে যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল ও পুলিশ নৌকায় থাকা ১৪ যাত্রীর মধ্যে ১১জন যাত্রীকে জীবিত উদ্ধার করতে সক্ষম হলেও ৩ জন যাত্রী এখনও নিখোঁজ।

ভূঞাপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মো. রাশিদুল ইসলাম জানান, ১৪ জন যাত্রী নিয়ে নৌকাটি যমুনা নদী পাড় হচ্ছিলো। নৌকাটি বঙ্গবন্ধু সেতুর ১৪ নম্বর পিলারের কাছে হঠাৎ ঝড়ো বাতাসে ডুবে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে পৌঁছে ১৪ জনের মধ্যে ১১জনকে জীবিত উদ্ধার করতে সক্ষম হই।

এখনও ৩ জন নিখোঁজ রয়েছে। উদ্ধারকৃতরা সবাই শ্রমিক। তারা গ্রামের বাড়ি চলে যায়।তাদের সবার গ্রামের বাড়ি বগুড়ার বিভিন্ন উপজেলায়। তবে নিখোঁজ তিনজনের ব্যাপারে উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।

এছাড়াও ভূঞাপুরে লিজা আক্তার (২০) নামে এক গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সে উপজেলার ফলদা ইউনিয়নের ঢেপাকান্দি গ্রামের আব্দুল লতিফের মেয়ে। গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে পাশের গ্রাম মাদারিয়ার শমসের আলীর ছেলে শাহ আলম (৩১) এর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। বিবাহের পর থেকে শাহআলম ঠিক মত আয় রোজগার করতোনা ,বিদায় স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া লেগে থাকত।

মঙ্গলবার (০৭ এপ্রিল) সকাল ১১ টায় তার থাকার ঘরে মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশকে ফোন দিলে তারা লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

প্রতিবেশী শামসুল আলম জানান, তাদের স্বামী-স্ত্রীতে মাঝে মধ্যে ঝগড়া হতো। আমরা জানতে পারি হঠাৎ করে সে আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু আমরা গিয়ে বিছানায় ওর লাশ দেখতে পাই। তার গায়ের ওড়না তার পায়ের উপর ছিল। আমরা এসে ওর স্বামীকে খুঁজে পাইনি।

ঢেপাকান্দি গ্রামের কামাল হাসান জানান, শাহ আলম ওইদিন সকালে তার শ্বশুরবাড়ির গ্রামে এক মুদির দোকানে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে অন্য এক ক্রেতার সাথে বাক-বিতন্ডে জড়িয়ে পড়ে। পরে সে ক্ষিপ্ত হয়ে সেখান থেকে চলে গিয়ে তার এলাকার কয়েকজন সহযোগীকে সাথে নিয়ে দেশীয় অস্ত্র ও লাঠিসোটাসহ ফিরে আসে। খবর পেয়ে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন বাঁধা দেয় ও তাকে বাড়িতে ফিরে পাঠায়। কিছুক্ষণ পর আমরা জানতে পারি লিজা গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু আমরা গিয়ে শাহ আলমকে কোথাও খুঁজে পাইনি।

ভূঞাপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মো: রাশিদুল ইসলাম বলেন, দুপুরে ফোন পাওয়া মাত্র ঘটনাস্থলে হাজির হই। সেখানে নিহত লিজা আক্তার কে বিছানায় পড়ে থাকতে অবস্থায় উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসি। মৃত্যুর সঠিক কারণ এখনো জানা যায়নি, তবে পোস্টমর্টেম রিপোর্ট আসার পর বলতে পারব।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শাহিনুল ইসলাম তালুকদার দুদু  বলেন, দুপুরে আমি ঘটনাটি জানতে পেরেছি। কিন্তু তার স্বামীকে পাওয়া যায়নি। নিহত লিজার বাবা এটি আত্মহত্যা নয় খুন বলে দাবি জানিয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840