সংবাদ শিরোনাম:
অবৈধ ড্রেজিংয়ের খেসারত ভেস্তে যাচ্ছে টাঙ্গাইল-তোরাপগঞ্জ সড়কটি মধুপুরে সুইট ফ্লাগ চাষ করে স্বাবলম্ভী মহিউদ্দিন টাঙ্গাইলে নারী ক্ষমতায়ন কর্মসূচি অর্জন কর্মশালা অনুষ্ঠিত ভূঞাপুরে এমপি ছোট মনিরের করোনা মুক্তি কামনায় দোয়া টাঙ্গাইলে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্মচারী পরিষদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত ঘারিন্দা ইউনিয়নে নৌকার মাঝি হলেন তোফায়েল আহমেদ মির্জাপুরে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রস্তুতি কমিটি গঠন অধ্যক্ষ শাহাদতের হোসেন খানের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল টাঙ্গাইলে ছাত্র অধিকার পরিষদের মানববন্ধনে ছাত্রলীগের হামলা পাওনা টাকা চাওয়ায় কালের স্রোত পত্রিকায় জঙ্গী বানালো ব্যবসায়ীকে
টাঙ্গাইলে শিক্ষক দম্পতিসহ একই পরিবারের চারজন নিহত

টাঙ্গাইলে শিক্ষক দম্পতিসহ একই পরিবারের চারজন নিহত

প্রতিদিন প্রতিবেদকঃ টাঙ্গাইলে বাসের চাপায় সিএনজি চালিত অটোরিক্সা আরোহী শিক্ষক দম্পতিসহ একই পরিবারের চারজন নিহত ও দুইজন আহত হয়েছে।

শুক্রবার (২১ আগস্ট) দুপুরে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের রাবনা বাইপাস এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, ভ‚ঞাপুর উপজেলার গাবসারা ইউনিয়নের ভদ্রশিমুল দক্ষিনপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আলআমিন (৫৪), তার স্ত্রী একই স্কুলের সহকারি শিক্ষক শিউলি খাতুন (৪২), নিহত আল আমিনের বাবা মো. সোহরাব আলী (৭৫), ও মা সালেহা বেগম (৭০)। এ দুর্ঘটনায় আল আমিনের বোন হাজেরা বেগম ও অটোরিক্সার চালক ফেরদৌস তরফদারকে গুরতর আহত অবস্থায় টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহত আলামিনের ভাই নজরুল ইসলাম জানান, অসুস্থ মাকে ডাক্তার দেখানোর জন্য পরিবারের লোকজন টাঙ্গাইল শহরে হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছিলেন। দুপুরে তার ভাই ( আলামিনের ) মুঠো ফোন থেকে একজন পুলিশ সদস্য প্রথমে এ দুর্ঘটনার খবর দেন। তারা জানান, দুর্ঘটনার সবাই আহত হয়েছে। তাই তাদের চিকিৎসার জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে যেতে বলেন। কিন্তু হাসপাতালে গিয়ে তিনি সবার লাশ দেখতে পান। নিহত আল আমিন ভূঞাপুর উপজেলা সদরের পশ্চিম ভূঞাপুর এলাকায় পরিবারসহ বসবাস করতেন। তাদের দুই মেয়ে সন্তান রয়েছে। বড় মেয়ে আশা খাতুন দশম শ্রেণীতে এবং ছোট আখি খাতুন ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ছে।

এলেঙ্গা পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ কামাল হোসেন জানান ,আলামিন তার পরিবারের সবাই মিলে ভূঞাপুর থেকে সিএনজি যোগে টাঙ্গাইল উদ্দেশ্য যাওয়ার জন্য যাত্রা শুরু করেন কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস মহাসড়কের রাবনা বাইপাস এলাকায় মহাসড়ক পার হওয়ার সময় বাসের সাথে সংঘর্ষ হয় । গুরুতর আহতাবস্থায় সিএন‌জির চালকসহ ৬ জন‌কে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৪ জ‌নের মৃত্যু হয়। এবং আহত আলামিনের বোন হাজেরা(৩৩) ও সিএনজি চালক ফেরদৌস তরফদার(৪০) কে গুরতর আহত অবস্থায় টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা রেফার্ড করা হয়। আইনি প্রক্রিয়া শেষে লাশগুলো পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

এর আগে , ঢাকা-টাঙ্গাইল বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে সড়ক দুর্ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) দুপুরে এক ব্যক্তি নিহত হয়। নিহত চান মিয়া (৪৫) টাঙ্গাইল জেলার দেলদুয়ার উপজেলার কামার নওগাঁ শিকদার পাড়া এলাকার ছোবাহান মিয়ার ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও গোড়াই হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির অফিসার ইনচার্জ মো. মনিরুজ্জামান জানান, নিহত চান মিয়া বাই সাইকেল নিয়ে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করটিয়া ইউনিয়নে মাদারজানি গ্রামের মহাসড়ক পার হওয়ার সময় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা উত্তর বঙ্গগামী সাদা রং এর প্রাইভেটকার ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই নিহত হয়।লাশ ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
ঘাতক প্রাইভেটকার ও ড্রাইভারকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

এছাড়াও, বুধবার (১৫জুলাই ) সকাল ৮টায় উপজেলার পলিশা গ্রামের ভূঞাপুর-তারাকান্দি সড়কে এই মোটর সাইকেল দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহত মোটর সাইকেল আরোহী উপজেলার পৌর এলাকার টেপিবাড়ী গ্রামের সিকান্দার হোসেনের ছেলে শফিকুল ইসলাম শফিক (৫৫)।

সে পৌরসভার রোলার চালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। নিহতের ছেলে আহত মিয়াত হোসেন  গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। 

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় শামসুল আলম তালুকদার (৭১) নামের এক পথচারী নিহত হয়েছেন।

এছাড়াও, মঙ্গলবার (১১ই আগস্ট) সকালে ঢাকা টাঙ্গাইল বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের এলেঙ্গা বাসস্ট্যান্ডে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যক্তি এলেঙ্গা পৌরসভা চেচুয়া পূর্বপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ওসি কামাল হোসেন আমাদের সময়কে বলেন উত্তরবঙ্গগামী একটি পিকআপ ভ্যান মহাসড়কের এলেঙ্গা বাসস্ট্যান্ড ওভারব্রীজের নিচে পথচারী শামসুল আলম তালুকদারকে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।

ঘাতক পিকআপকে জব্দ করা হলেও চালক পালিয়ে গেছে। নিহতের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এবিষয়ে মামলা দায়েরর প্রস্তুতি চলছ

এর আগ, কালিহাতীতে নানী-নাতনী নিহত হয়েছে।গত বুধবার (২৪ জুন) দুপুরে ঢাকা-বঙ্গবন্ধু মহাসড়কের এলেঙ্গা বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় বাস-সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলো, ধনবাড়ি উপজেলার গোবিন্দচর গ্রামের তোফায়েল আহমেদের স্ত্রী মরিয়ম আক্তার (২০) ও একই গ্রামের মৃত আঃ হালিমের স্ত্রী উমেছা বেগম(৬০)।

সম্পর্কে তারা নানী-নাতনী। এ ঘটনায় সিএনজি চালকসহ আরও ২ জন আহত হয়েছেন।আহতদের উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। নিহতদের মরদেহ হাসপাতালের মর্গে ছিল।

এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামাল হোসেন জানান, বুধবার দুপুরে টাঙ্গাইলগামী একটি সিএনজি ও মধুপুর-ধনবাড়ীগামী বিনিময় পরিবহনের একটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।

এতে সিএনজিতে যাত্রী নানী-নাতনী ঘটনাস্থলেই মৃত্যুবরণ করেন। এ ঘটনায় সিএনজি চালকসহ আরো দুই যাত্রী গুরুতর হয়।

পুলিশ ঘাতক বাসটিকে আটক করতে পারলেও চালক ও হেলপার পলাতক রয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840