সংবাদ শিরোনাম:
নাগরপুরে জুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুয়াড়ীসহ গ্রেফতার ১৫ অবৈধ ড্রেজিংয়ের খেসারত ভেস্তে যাচ্ছে টাঙ্গাইল-তোরাপগঞ্জ সড়কটি মধুপুরে সুইট ফ্লাগ চাষ করে স্বাবলম্ভী মহিউদ্দিন টাঙ্গাইলে নারী ক্ষমতায়ন কর্মসূচি অর্জন কর্মশালা অনুষ্ঠিত ভূঞাপুরে এমপি ছোট মনিরের করোনা মুক্তি কামনায় দোয়া টাঙ্গাইলে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্মচারী পরিষদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত ঘারিন্দা ইউনিয়নে নৌকার মাঝি হলেন তোফায়েল আহমেদ মির্জাপুরে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রস্তুতি কমিটি গঠন অধ্যক্ষ শাহাদতের হোসেন খানের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল টাঙ্গাইলে ছাত্র অধিকার পরিষদের মানববন্ধনে ছাত্রলীগের হামলা
সখীপুরে ছোট ভাইকে হত্যা, বড়ভাই সহ গ্রেপ্তার দুই

সখীপুরে ছোট ভাইকে হত্যা, বড়ভাই সহ গ্রেপ্তার দুই

মির্জা সাইদুল ইসলাম (সাঈদ)ঃ টাঙ্গাইলের সখীপুরে পেটে ছুরিকাঘাত ও মুখে বিষ ঢেলে দেওয়ার ২৫ ঘণ্টা পর এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) রাতে উপজেলার হাতীবান্ধা ইউনিয়নের হতেয়া বড়চালা এলাকায়। শুক্রবার( ২১ আগস্ট) রাত সোয়া ১০টায় মির্জাপুর কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ওই কৃষক মারা যান।

নিহত ওই কৃষক হতেয়া বড়চালা গ্রামের মৃত মোকদম আলীর ছেলে খোরশেদ আলম (৫৫)। মৃত্যুর এক ঘণ্টা আগে নিহতের ছেলের অভিযোগে  এক নম্বর আসামি নিহতের আপন বড়ভাই মোকছেদ আলী (৬০) ও প্রতিবেশী ছানোয়ার হোসেনকে (৪৫) পুলিশ শুক্রবার রাতেই গ্রেপ্তার করে। পুলিশ সাতদিনের রিমান্ড চেয়ে শনিবার (২২ আগস্ট) দুপুরে ওই দুই আসামিকে টাঙ্গাইল আদালতে পাঠিয়েছেন।

মামলার বাদী নিহতের ছেলে আবু হানিফ ও সখীপুর থানা সূত্রে জানা যায়, নিহত খোরশেদ আলমের সঙ্গে জমিজমা নিয়ে বড়ভাই গ্রেপ্তার হওয়া মোকছেদ আলীর সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছে। স্থানীয় বাজার থেকে স্ত্রীর ওষুধ নিয়ে গত বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) রাত আনুমানিক নয়টার দিকে বাড়ি ফেরার পথে বাড়ি থেকে ৩০০গজ দক্ষিণে এসে পৌঁছালে তাঁর বড় ভাই মোকছেদ আলী ও সঙ্গে থাকা আরও তিনজন মিলে তাঁকে জাপটে ধরে কিল-ঘুষি মারতে থাকে।

এক পর্যায়ে সঙ্গে থাকা প্রতিবেশী ছানোয়ার হোসেন তাঁর পেটের বাঁ দিকটায় ছুরি ঢুকিয়ে দেন। পরে চারজনে ধরে জোরপূর্বক মুখে বিষ ঢেলে দেয়। চিৎকারের শদ্ব পেয়ে আশপাশের বাড়ির লোকজন এগিয়ে এসে তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে নিজ বাড়িতে পরে রাত ১টার দিকে সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান।

সেখানে অবস্থার অবনতি হলে রাত তিনটার দিকে তাঁকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত শুক্রবার দুপুরে আবার তাঁকে মির্জাপুর কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পেটে ছুরিকাঘাতের ক্ষতস্থানে সেলাই থাকায় পেট থেকে পরিপূর্ণ বিষ বের করা সম্ভব না হওয়ায় অবস্থার অবনতি হয় এবং রাত সোয়া ১০টায় মারা যান খোরশেদ আলম।

মামলার বাদী আবু হানিফ বলেন, আমার বাবা মৃতের আগের দিন রাত ১২টা পর্যন্ত কথা বলতে পেরেছেন। এরপর অজ্ঞান হয়ে পরলে আর জ্ঞান ফিরে আসেনি। বাবা আমাদের সব কাহিনী বলে গেছেন। আমরা বাবার বক্তব্য ভিডিও করে রেকর্ড করে রেখেছি। আমার বাবাকে জোরপূর্বক মুখে বিষ ঢেলে দেওয়া হয়। এক পর্যায়ে প্রতিবেশী চাচা ছানোয়ার হোসেন আমার বাবার পেটে ছুরি ঢুকিয়ে দেয়। তাঁদের চিন্তা ছিল বাবা বিষপানে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রচার দেবে। কিন্তু বাবা ঘটনার পরও তিন ঘণ্টা কথা বলতে পেরেছেন।

সখীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ওবায়দুল্লাহ আজ বেলা একটায় বলেন, লাশ মির্জাপুর থানা পুলিশ হাসপাতাল থেকে গ্রহণ করে সুরতহাল প্রতিবেদন করে ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছেন। গ্রেপ্তার হওয়া আসামি দুইজনকে সাতদিনের রিমান্ড চেয়ে আজ দুপুরে টাঙ্গাইল আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মির্জাপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) হাবিবুর রহমান উকিল মুঠোফোনে  বলেন, সুরতহাল প্রতিবেদনে নিহত খোরশেদ আলমের পেটের বাঁ পাশে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন থাকার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। অন্যদিকে হাসপাতালের প্রতিবেদনে বিষপানে (আননোন পয়জনিং) বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে বলেও জানান তিনি।

এর আগে, টাঙ্গাইলের সখীপুরে মদ পান করে মাতলামি করায় এক মদ্যপায়ীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। নিহত কালিহাতী উপজেলার বেহুলাবাড়ি গ্রামের মৃত ইমাম উদ্দিনের ছেলে আবুল কাশেম (৫০)।

এদিকে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী নিহত ব্যক্তির বন্ধু জামাল হোসেনকে (৪৮) পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আটক করেছেন। আটক জামাল হোসেন পুলিশকে জানান, দুই বন্ধু কাশেম ও জামাল মদ পানের জন্য বুধবার রাতে উপজেলার ধোপারচালা নয়াপাড়া এলাকায় আসেন। শেষ রাতে বাড়ি ফেরার পথে ঘাটেশ্বরী এলাকায় মাতলামি করলে স্থানীয় কয়েক যুবক লাঠি দিয়ে জামাল ও কাশেমকে পেটাতে থাকেন। জামাল দৌঁড়ে পালালেও কাশেমের বয়স একটু বেশি থাকায় তাঁকে পিটিয়ে আধমরা করে অজ্ঞাতনামা যুবকেরা গা ঢাকা দেন। বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) দুপুরের দিকে গ্রামের লোকজন মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেন। সন্ধ্যা পর্যন্ত গ্রামবাসী ওই মরদেহ শনাক্ত করতে পারেননি। পরে রাতে নিহত কাশেমের ছেলে থানায় এসে মরদেহ শনাক্ত করেন।

এ বিষয়ে নিহত কাশেমের ছেলে আবদুর রহমান বাঁধন সখীপুর থানায় এসে মরদেহ শনাক্ত করে অজ্ঞাতনামা চার-পাঁচজনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

সখীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) বিজয় দেবনাথ বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে নয়টায় সুরতহাল প্রতিবেদনে কাশেমের পিঠে ও হাতে লাঠি দিয়ে পেটানোর দাগ রয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমির হোসেন জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। আসামিদের দ্রুত শনাক্ত করে তাদের গ্রেফতার করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840