সংবাদ শিরোনাম:
নাগরপুরে জুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুয়াড়ীসহ গ্রেফতার ১৫ টাঙ্গাইলে ফেনসিডিল ও নগদ অর্থসহ গ্রেফতার এক অবৈধ ড্রেজিংয়ের খেসারত ভেস্তে যাচ্ছে টাঙ্গাইল-তোরাপগঞ্জ সড়কটি মধুপুরে সুইট ফ্লাগ চাষ করে স্বাবলম্ভী মহিউদ্দিন টাঙ্গাইলে নারী ক্ষমতায়ন কর্মসূচি অর্জন কর্মশালা অনুষ্ঠিত ভূঞাপুরে এমপি ছোট মনিরের করোনা মুক্তি কামনায় দোয়া টাঙ্গাইলে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্মচারী পরিষদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত ঘারিন্দা ইউনিয়নে নৌকার মাঝি হলেন তোফায়েল আহমেদ মির্জাপুরে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রস্তুতি কমিটি গঠন অধ্যক্ষ শাহাদতের হোসেন খানের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল
ভূঞাপুরে আগুন লেগে শতমণ ধান পুড়ে ছাই

ভূঞাপুরে আগুন লেগে শতমণ ধান পুড়ে ছাই

খায়রুল খন্দকার ভূঞাপুর :  টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে বৈদ্যুতিক মিটার থেকে একটি বসতবাড়িতে আগুন লেগে প্রায় ১০০ মণ ধান পুড়ে ছাই হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এছাড়াও ঘরে থাকা অন্যান্য আসবাপত্র পুড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

শনিবার (২২আগস্ট) ভোর রাতে উপজেলার ফলদা ইউনিয়নের ঢেপাকান্দি দক্ষিণপাড়া এলাকায় সোহেল তালুকদারের বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে।

সোহেল তালুকদার জানান, রাতে হঠাৎ অাগুনে পোড়ার গন্ধ পেয়ে দ্রুত ঘর থেকে বের হই। নিমিষেই পুরো ঘরে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এতে আমার ৮০ মণ ও আরেক প্রতিবেশীর রাখা ২০ মণ ধানসহ অন্যান্য আসবাপত্র পুড়ে যায়।

তিনি আরও জানান, আগুন লাগার খবর পেয়ে প্রতিবেশীরা দ্রুত ছুটে আসলে তাদের সহযোগিতায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হলেও ঘরে থাকা আসবাপত্র ও গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র উদ্ধার করতে পারিনি। আগুন লেগে ঘরে থাকা নগদ ২০ হাজার টাকাসহ প্রায় ৭ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

এ বিষয়ে ভূঞাপুর ফায়ার সার্ভিসের ডিউটিরত সদস্য সুব্রত সরকার মুঠোফোনে জানান, স্থানীয়দের মাধ্যমে আগুন লাগার খবর জানতে পেরে দ্রুত ঘটানাস্থলে যাওয়ার পথে জানতে পারি স্থানীয় লোকজন আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

আরও পুড়ুন,বন্যার আতংকে ভূঞাপুরবাসী ত্রান চাইনা বাঁধ চাই

টাঙ্গাইল জেলার ভূঞাপুর উপজেলা গোবিন্দাসী এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বাঁধ না থাকায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। পানির স্রোতে বিল ও পুকুরের প্রায় কোটি কোটি টাকার মাছ ভেসে গেছে।

পানিতে তলিয়ে গেছে  আউশ খেতসহ বাড়িঘর। আরও নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

শুক্রবার (১৭ জুলাই ) উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় পাউবোর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ না থাকায় বন্যা পানিতে বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয় । সেখানে থেকে বন্যার পানি উপজেলা বিভিন্ন এলাকা প্রবেশ করে। বন্যার পানির বেড়ে উপজেলার দরগা বিল হয়ে আমূলা বিলে প্রবেশ করেছে। 

স্থানীয় সূত্র জানায়, বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ না থাকায় উপজেলার গোবিন্দাসী, কষ্টাপাড়া ,ভালকুটিয়া, পাটিতাপাড়া, দোভায়া, সিরাজকান্দি, সারপলশিয়া,পাতাইলকান্দী, চিতুলিয়াপাড়া, মাটি কাটা,কয়ড়া ,খরক, চরনিকলা,আমুলা , আকালু,এলাকা নতুন করে প্লাবিত হয়েছে।

এসব এলাকার অধিকাংশ বাড়িঘরে পানি ঢুকে পড়েছে। এ ছাড়া এসব এলাকার বিভিন্ন ফসলের ক্ষেত তলিয়ে যাওয়া ছাড়াও  বিলে চাষ করা প্রায় কোটি কোটি টাকার মাছ পানিতে ভেসে গেছে। এ ছাড়া ওই সব এলাকার কমপক্ষে ২০০ টি পুকুরের মাছও ভেসে গেছে বলে মৎস্য চাষিরা জানিয়েছেন।

সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সরেজমিনে দেখা যায়, ভাঙা বাঁধ না থাকায় প্রবল বেগে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। গোবিন্দাসী, নিকরাইল ও অলোয়া  ইউনিয়নের লোকজন তাঁদের বাড়ির মালামাল অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছেন। অনেকে বাড়িঘর রক্ষার চেষ্টায় কাজ করে যাচ্ছেন।

ভালকুটিয়া গ্রামের আবু বকর সিদ্দিক, মোজাম্মেল হক ও দেলশাদ আলী জানান, বাঁধ না থাকায় কারণে তাঁদের বাড়িঘর ছাড়াও ফসলি ও পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। এলাকাবাসীর দাবি আমরা ত্রান চাইনা অতি দ্রুত বাঁধ নির্মাণ করা হোক ।

আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাছে চাই , একটি বাঁধ দিয়ে আমাদের কে বন্যা পানি ও ভাঙনের হাত থেকে  আমাদের রক্ষা করুন।

শুক্রবার (১৭ জুলাই) বিকেলে ভূঞাপুরের বন্যা দূর্গত গাবসারা চরাঞ্চল ও ঝুকিপূর্ণ তারাই বাঁধ পরিদর্শন  করেন জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আতাউল গনি। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম এডভোকেট,উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা. নাসরীন পারভীন, সহকারি কমিশনার( ভূমি) মো. আসলাম হোসাইন,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম বাবু,থানা অফিসার ইনচার্জ রাশিদুল ইসলাম, উপজেলা প্রকল্পবাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. জহুরুল ইসলাম , উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক  আব্দুর রাজ্জাক।

জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আতাউল গনি এলাকাবাসী উদ্দেশ্যে বলেন, বাঁধ না থাকায় বন্যায় পানি বৃদ্ধি পেয়ে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এসব এলাকার আউশ খেতসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষতি হয়েছে। সরকারের পরিকল্পনায় এই এলাকায় একটি বাঁধ নির্মাণ করা হবে। বাঁধ যাতে দ্রুত করা সম্ভব সেই লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাবো । 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছাঃ নাসরীন পারভীন বলেন, হঠাৎ করে পানি বেড়ে যাওয়া ও বাঁধ না থাকায়  কারণে কিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক দিকে নজর রাখা হচ্ছে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840