সংবাদ শিরোনাম:
অবৈধ ড্রেজিংয়ের খেসারত ভেস্তে যাচ্ছে টাঙ্গাইল-তোরাপগঞ্জ সড়কটি মধুপুরে সুইট ফ্লাগ চাষ করে স্বাবলম্ভী মহিউদ্দিন টাঙ্গাইলে নারী ক্ষমতায়ন কর্মসূচি অর্জন কর্মশালা অনুষ্ঠিত ভূঞাপুরে এমপি ছোট মনিরের করোনা মুক্তি কামনায় দোয়া টাঙ্গাইলে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্মচারী পরিষদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত ঘারিন্দা ইউনিয়নে নৌকার মাঝি হলেন তোফায়েল আহমেদ মির্জাপুরে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রস্তুতি কমিটি গঠন অধ্যক্ষ শাহাদতের হোসেন খানের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল টাঙ্গাইলে ছাত্র অধিকার পরিষদের মানববন্ধনে ছাত্রলীগের হামলা পাওনা টাকা চাওয়ায় কালের স্রোত পত্রিকায় জঙ্গী বানালো ব্যবসায়ীকে
টাঙ্গাইলের শিক্ষক দম্পতি হত্যা মামলায় ছয় জনের মৃত্যুদন্ড

টাঙ্গাইলের শিক্ষক দম্পতি হত্যা মামলায় ছয় জনের মৃত্যুদন্ড

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলে শিক্ষক দম্পতি হত্যা মামলায় ছয় জনের মৃত্যুদন্ড দিয়েছে দ্রুতবিচার ট্রাইবুন্যাল আদালতের বিচারক।রোববার (১৩ সেপ্টেম্বর) দ্রুতবিচার ট্রাইবুন্যাল-০১-এর বিচারক আবু জাফর মো: কামরুজ্জামান স্বাক্ষী-প্রমাণ শেষে এ রায় ঘোষনা করেন।

মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত আসামিরা হলো, নিহত শিক্ষক অনিল কুমার দাসের বৈমাত্রেয় ভাই স্বপন কুমার দাস (৪৫), খোকন ভূইয়া (৪৮), শালিনা গ্রামের মৃত হাফিজ উদ্দিনের ছেলে ফরহাদ হোসেন (৩৮), শয়ান মিয়া (৪০) মঞ্জুরুল ইসলাম মিঞ্জু (৩৩) ও রসুলপুরের আবদুস ছালামের ছেলে জাহিদুল ইসলাম জাহিদ (৩৭)।

টাঙ্গাইলের রসুলপুরের বাছিরন নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক অনিল কুমার দাস ও তার স্ত্রী কল্পনা রানী দাসের সম্পত্তি আত্নসাৎ করার জন্য বৈমাত্রেয় ভাই দন্ডপ্রাপ্ত আসামী স্বপন কুমার দাস পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে সাঙ্গ-পাঙ্গদের নিয়ে তাদের হত্যা করেন।

উল্লেখ্য, বিগত ২০১৭ সালের ২৬ জুলাই রাতের কোনো এক সময় অনিল কুমার দাস ও তার স্ত্রী কল্পনা রানী দাসের সম্পত্তি আত্নসাৎ করার জন্য তিনটি স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিতে ব্যার্থ হয়ে দম্পতিদের শ্বাসরোধ করে হত্যার পর তাদের গলায় ইটের বস্তা বেঁধে বাড়ির সেপটিক ট্যাংকের খোলা কূপে ফেলে রেখে যায়।

পরদিন দুপুরে পুলিশ তাদের লাশ উদ্ধার করে। পরে ২৭ জুলাই নিহতের ছেলে নির্মল কুমার দাস বাদি হয়ে টাঙ্গাইল সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

ওই সময় টাঙ্গাইলের নবাগত পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় টাঙ্গাইলে সদ্য যোগদান করেছেন। তখন থেকেই চাঞ্চল্যকর এই জোড়া হত্যার প্রাধান্য দিয়ে তদন্ত শুরু করেন।

১২ মে ডিবি থেকে মামলাটি স্থানান্তর করে সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউর রহমানকে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়। এ ছাড়া পাঁচ পুলিশ কর্মকর্তার সমন্বয়ে একটি তদন্ত সহায়ক কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়।

ওই কমিটি ১২ মে এই শিক্ষক দম্পতি হত্যার জড়িত থাকার অভিযোগে রসুলপুরের আবদুস ছালামের ছেলে জাহিদুল ইসলাম এবং হাফিজ উদ্দিনের ছেলে ফরহাদকে আটক করে।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে তারা হত্যাকন্ডের সঙ্গে জড়িত রয়েছে বলে ১৩ মে টাঙ্গাইল সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক রুপম কুমার দাসের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। এই হত্যাকান্ডে তারা ছয়জন অংশ নেয়।

এ মামলায় গ্রেফতার হওয়া রসুলপুর গ্রামের আব্দুস সালামের ছেলে জাহিদুল ইসলাম (৩২) এবং পার্শ্ববর্তী শালিনা গ্রামের মৃত হাফিজ উদ্দিনের ছেলে মো. ফরহাদ (৩৩) হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় তার সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এতথ্য জানান।

পুলিশ সুপার জানান, জবানবন্দিতে জাহিদুল ও ফরহাদ জানিয়েছেন, শিক্ষক অনিল কুমার দাসের পাছবিক্রমহাটি মৌজার ৬০ শতাংশ জমি লিখে নেওয়ার জন্য তার বৈমাত্রেয় ছোট ভাই স্বপন কুমার দাস স্ট্যাম্প প্রস্তুত করেন।

এই স্ট্যাম্পে জোর করে স্বাক্ষর নেওয়ার জন্য স্বপন ওই এলাকার জাহিদ, ফরহাদ, খোকন ভূইয়া (৪৮) ও মঞ্জুরুল ইসলাম মিঞ্জুর (৩৩) সঙ্গে আলোচনা করেন। স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিতে পারলে স্বপন তাদের নগদ পাঁচ লাখ টাকা এবং জমি বিক্রির পর অর্ধেক মূল্য দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন।

ঘটনার দিন স্বপন তার পাঁচ সহযোগীসহ শিক্ষক অনিল কুমার দাসের ঘরে ঢোকেন। তারা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর দেওয়ার জন্য অনিল কুমার দাসকে চাপ দেন। কিন্তু তিনি স্বাক্ষর করতে রাজি না হওয়ায় স্বপন বালিশ চাপা দিয়ে তাকে হত্যা করেন।

এ সময় জাহিদ, ফরহাদ, খোকন ও মিঞ্জু অনিল কুমার দাসের হাত-পা চেপে ধরেছিলেন। এ ঘটনা দেখে ফেলায় অনিল কুমার দাসের স্ত্রী কল্পনা রানী দাসকেও একইভাবে হত্যা করা হয়। পরে তাদের দুজনের মরদেহের সঙ্গে ইট বেঁধে সেপটিক ট্যাংকের মধ্যে ফেলে দেওয়া হয়।

এ ঘটনায় জড়িত খোকন ভূইয়া ও মঞ্জুরুল ইসলাম মিঞ্জুকে গত ১৪ মে পুলিশ গ্রেফতার করে। তাদের দুজনকে পরদিন আদালতে হাজির করে রিমান্ড চাওয়া হলে আদালত তিনদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পুলিশ জানিয়েছে, স্বপন কুমার দাসসহ অন্য আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

পুলিশ সুপার জানান, মামলাটি বর্তমানে তদন্ত করছেন টাঙ্গাইল সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউর রহমান। চাঞ্চল্যকর এ মামলাটিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে তদন্তের জন্য একটি সহায়ক কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

কমিটির প্রধান করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আহাদুজ্জামানকে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- পরিদর্শক শ্যামল দত্ত, উপ-পরিদর্শক হাফিজুর রহমান, উপ সহকারী পরিদর্শক হাফিজুর রহমান এবং কনস্টেবল শামসুজ্জামান।

নিহতের ছেলে এ মামলার বাদী নির্মল কুমার দাস হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটিত হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840