সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে পৃথক অভিযানে ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট ও ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার ২ টাঙ্গাইলে করোনায় মৃত্যু ৩, নতুন করে আক্রান্ত ২৩ টাঙ্গাইলে বঙ্গবন্ধু সেতুর উপর বাস ও লরির সংঘর্ষে আগুন, নিহত ২ জন, দীর্ঘ যানজট টাঙ্গাই‌লে পৃথক দুটি এলাকা থেকে দুই‌ ব্যক্তির লাশ উদ্ধার জাতীয় বাজেটে সংখ্যালঘু আদিবাসীদের সম-অধিকার বিষয়ক মতবিনিমিয় সভা সখীপুরে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর এক নারীকে ধর্ষণের চেষ্টা জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে নিজ এলাকার কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে নারীর সংবাদ সম্মেলন টাঙ্গাইলে একদিনে ৭০ জন করোনায় আক্রান্ত টাঙ্গাইলে র‌্যাবের পৃথক অভিযানে দেশীয় চোলাই মদ ও হেরোইনসহ গ্রেফতার ৪ টাঙ্গাইলে দৈ‌নিক দেশের কণ্ঠের চতুর্থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত
ভূঞাপুরে উপহারের ঘরে জ্বলছে না আলো

ভূঞাপুরে উপহারের ঘরে জ্বলছে না আলো

প্রতিদিন প্রতিবেদক : ঘুটঘুটে অন্ধকারে এক হাতে মোমবাতি জ্বালিয়ে আরেক হাত দিয়ে রান্না করছেন সখিনা বেওয়া (৫০)। ঘরের বাইরে বিকল্প আলোতে রান্না করতে পারলেও ঘর রয়েছে অন্ধকারে। একদিকে নিরাপত্তার অভাব অন্যদিকে রান্না শেষ করে সেই মোমের আলোতে ঘরে যেতে হবে তাকে।

শুধু সখিনা বেওয়াই নয়, তার মত টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার গারাবাড়ি এলাকায় প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের প্রায় ২৭টি পরিবার দীর্ঘদিন ধরে অন্ধকারে রয়েছে। পাকা ঘর পেলেও সেখানে বসবাসের উপযোগী কোনো ধরনের সুযোগ-সুবিধা নেই। এতে চরম কষ্টে বসবাস করতে হচ্ছে সেখানে থাকা পরিবারগুলোকে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ভূঞাপুর উপজেলার অর্জুনা ইউনিয়নের গারাবাড়ি এলাকায় মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে দেওয়া পাকা ঘরগুলোতে বিদ্যুৎ সংযোগ নেই। খাবার পানির জন্য বসানো হয়নি কোনো টিউবওয়েল। ফলে সেখানকার বাসিন্দাদের আশপাশের বাড়ি থেকে পানি এনে খেতে হচ্ছে। রাতে বুঝার উপায় নেই এখানে পাকা ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। পুরো এলাকাজুড়ে অন্ধকার।

ফলে সেখানকার বাসিন্দারা দিনের আলোতেই রাতের রান্নার কাজ সেরে ফেলেন। বৃষ্টি হলেই সেখানে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। দিনের বেলায় অন্যের বাড়ি থেকে কলসিতে পানি সংগ্রহ করে আনলেও রাতে সেই পানি খাওয়া কষ্টকর হয়ে যায়। কারণ প্রচণ্ড গরমে পানি গরম হয়ে যায়।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন (পিআইও) কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে উপজেলার গারাবাড়ি এলাকায় অসহায় ২৮ পরিবারের জন্য পাকা ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। এতে ঘর প্রতি সরকারের খরচ হয়েছে এক লাখ ৭১ হাজার টাকা। এতে একটি ঘরে থাকার জন্য দুটি রুম, একটি বারান্দা, বাথরুম, কিচেন রুম ও ইউটিলিটি রয়েছে। গত অসহায় ও হতদরিদ্র এসব মানুষজন ঘরে বসবাস শুরু করলেও এখন পর্যন্ত সেখানে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হয়নি। এছাড়া পানির ব্যবস্থাও করা হয়নি।

পাকা ঘর পাওয়া সখিনা বেওয়া বলেন, ঘরে ওঠার আগেই বলা হয়েছিল সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হবে। কিন্তু সেই কথার বাস্তবায়ন দেখছি না। আমরা চরের মানুষ চরেই ভালো ছিলাম। এখানে বিদ্যুৎ নেই। খাবার পানি নেই। বৃষ্টি হলে ঘরের সামনে পানি জমে থাকে।

আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দা লাল মিয়া বলেন, তিন মাস হলো ঘরে উঠেছি। কিন্তু খাওয়ার পানির ব্যবস্থা এখনও হয়নি। এছাড়াও এই গুচ্ছপাড়ায় বিদ্যুৎ নেই। ঘোর অন্ধকারে রাত কাটাতে হয় ভয় আর আতঙ্কে। অন্ধকারে রাতে ছেলে-মেয়েরা পড়াশোনা করতে পারে না। সরকারের পক্ষ থেকে যদি সোলার বিদ্যুতের ব্যবস্থা করা হতো সেটা দিয়ে আপাতত অন্ধকার দূর হত।

আরেক বাসিন্দা সাজেদা বেগম বলেন, ছেলে-মেয়েরা বৃষ্টি নামলে উঠানে যেতে পারে না। হাঁটু পানি জমে থাকে। রাতে অন্ধকার। পুরো গুচ্ছপাড়াতে (আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরগুলো) একটি টিউবওয়েলও দিতে পারেনি প্রশাসন।

হনুফা বেগম নামে আরেক বাসিন্দা বলেন, সরকার আমাদের জন্য থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছে কিন্তু খাবার পানির ব্যবস্থা করেনি। বিদ্যুতের ব্যবস্থা করেনি। প্রচণ্ড গরমে ঘরে থাকা দায় হয়ে পড়েছে। এখানে যারা গর্ভবতী নারী রয়েছে গরমে তাদের কষ্টের সীমা নেই। পাশের বাড়ি থেকে পানি আনতে গেলে অনেক কথা শুনতে হয়।

নুপুর নামে এক শিশু শিক্ষার্থী জানায়, রাতে দোয়াতের আলোতে পড়তে সমস্যা হয়। ঘরে বিদ্যুৎ নেই, প্রচণ্ড গরম। খাওয়ার জন্য পানি নেই। অন্যের বাড়ি থেকে পানি আনলে সেই পানি রাতে খাওয়া যায় না, গরম হয়ে যায়।

ভূঞাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. ইশরাত জাহান বলেন, আশ্রয়ণ প্রকল্পে পানি ও বিদ্যুতের ব্যবস্থা করা হবে। জেলার অনেক উপজেলাতেই আশ্রয়ণ প্রকল্পে বিদ্যুৎ সংযোগ চালু হয়েছে। ভূঞাপুরেও দ্রুতই পানির ব্যবস্থা ও বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার কাজ শুরু হবে। সেখানে বৃষ্টি নামার পর পানি জমার বিষয়টি সরেজমিন পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840