সংবাদ শিরোনাম:
কুমুদিনী কলেজ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অসংখ্য অভিযোগ

কুমুদিনী কলেজ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অসংখ্য অভিযোগ

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইল কুমুদিনী সরকারি কলেজ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে গোপন টেন্ডারে ক্যান্টিন বরাদ্দের অভিযোগ উঠেছে। তবে ওই নতুন টেন্ডারে এগার বছর যাবৎ ক্যান্টিনটির পরিচালনাকারীও অংশ নেয়ার সুযোগ পাননি। এমনকি তার বরাদ্দ বাতিল বা নতুন বরাদ্দের বিষয়টিও জানেন না তিনি। এছাড়াও ব্যাটমিন্টন কোর্ট নির্মাণ, স্থায়ী ভবনের পাশে একাধিক ছাপড়া আর কলেজ প্রাঙ্গণে থাকা ব্রেঞ্চ সরিয়ে নতুন করে স্থাপন আর ক্যান্টিন সম্প্রসারণের নামে বারান্দা নির্মাণসহ একজন পিয়ন নিয়োগের মাধ্যমে মোটা টাকা হাতিয়ে নেয়ার মত অভিযোগও রয়েছে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে। চলতি বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালনের শেষ কর্মদিবসের আগেই ধারাবাহিক এমন কর্মকান্ডে যেমন বিতর্ক জন্ম নিয়েছে শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীর মাঝে। তেমনি কলেজ ক্যান্টিন বরাদ্দের নামে অধ্যক্ষের ৩ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার গুঞ্জন রয়েছে টেন্ডারে অংশ নিতে না পারা বঞ্চিতদের মাঝেও।

কলেজ সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর টাঙ্গাইল কুমুদিনী সরকারি কলেজ অধ্যক্ষের দায়িত্ব গ্রহণ করেন প্রফেসর মো. আব্দুল মান্নান। আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর কলেজ অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালনের শেষ কর্মদিবস। এর মধ্যেই কলেজ প্রাঙ্গণে ১ লাখ ৯৭ হাজার টাকা ব্যয়ে ব্যাটমিন্টন কোর্ট, স্থায়ী ভবনের পাশে প্রায় ৫ লাখ টাকা ব্যয়ে বাণিজ্য বিভাগের জন্য ১টি ছাপড়া, উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের জন্য ১টি ছাপড়া আর প্রশাসনিক ভবনের পাশে শিক্ষকদের টেবিল টেনিশ খেলার জন্য ১টি ছাপড়াসহ ২ লাখ টাকা ব্যয়ে কলেজ প্রাঙ্গণে থাকা ১৭টি বেঞ্চ সরিয়ে নতুন ভাবে স্থাপন করা হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে কলেজের একাধিক শিক্ষক, কর্মচারির অভিযোগ, কলেজের বার্ষিক কর্মপরিকল্পনা ছাড়াই আর তাঁর অনুসারিদের দিয়ে গঠিত কমিটির সহায়তায় উন্নয়ন কর্মকান্ডের নামে নানা অনিয়ম আর দূর্নীতি করেছেন অধ্যক্ষ। এর মধ্যে কলেজের ইট দিয়ে তৈরি করা ব্যাটমিন্টন কোর্ট নির্মাণে খরচ সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা হওয়ার স্থলে বিল করা হয়েছে ১ লাখ ৯৭ হাজার টাকা। স্থায়ী পাকা ভবনের পাশে নির্মিত তিনটি ছাপড়ায় খরচ হওয়ার কথা সর্বোচ্চ ২ লাখ টাকা হলেও সেখানে ব্যয় ধরা হয়েছে ৫ লাখ আর কলেজ প্রাঙ্গণে ছাত্রীদের বসার ১৭টি ব্রেঞ্চ সরিয়ে নতুন করে স্থাপন আর ভাউচার সমন্বয়ের মাধ্যমে ২ লাখ টাকাসহ ক্যান্টিন সম্প্রসারণের নামে বারান্দা নির্মাণ আর মাস্টার রোলে একটি পিয়ন নিয়োগ চূড়ান্ত আর তিনটি প্রক্রিয়াধীন করে মোটা অংকের টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে।

তারা জানান, এখন শুনতে পাচ্ছি কলেজের ফটোস্ট্যাট আর কম্পিউটার কম্পোজ ব্যবসার জন্য ভাড়া নেয়া দোকানদার সাইফুলকে এবার ক্যান্টিনটিও বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। তবে এ টেন্ডারের জন্য স্থানীয় ও বহুল প্রচারিত একটি দৈনিক পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে টেন্ডার করার নিয়ম রেখে রেজুলেশন করা হলেও, সেটিও মানা হয়নি। স্থানীয় পত্রিকার পরিবর্তে ঢাকার একটি পত্রিকায় সেই বিজ্ঞপ্তিটি দেয়া হয়েছিল। তবে বিজ্ঞপ্তি দেয়া পত্রিকাটিও আমরা দেখেনি। এত গোপনে কেন ক্যান্টিনটি বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে এ নিয়েও প্রশ্নবিদ্ধ তারা।

ক্যান্টিন বরাদ্দের টেন্ডারে অংশ নিতে না পারা পারভেজ, রফিকসহ কয়েকজনের অভিযোগ, কুমুদিনী সরকারি কলেজের ক্যান্টিন বরাদ্দ হবে এমন গুঞ্জন চলছিল বেশ কিছুদিন যাবৎ। আমরা ওই টেন্ডারে অংশগ্রহণ করতেও ইচ্ছুক ছিলাম। হঠাৎ জানতে পারলাম তিন লাখ টাকার বিনিময়ে আর গোপন টেন্ডারের মাধ্যমে অধ্যক্ষ কলেজের ফটোস্ট্যাট ও কম্পিউটার কম্পোজের দোকানদার সাইফুলকে দিয়েছেন। সরকারি কলেজে এমন অনিয়ম হবে সেটি আমরা ভাবতেও পারিনি।

কুমুদিনী সরকারি কলেজের ক্যান্টিন পরিচালনাকারী শেফালী বেগম বলেন, আমার বাবা মৃত. হযরত আলী আর মা জহুরা খাতুন কুমুদিনী কলেজেই কর্মরত ছিলেন। বাবার মৃত্যু আর মায়ের অবসরে যাওয়ার ফলে ২০১০ সালের তৎকালিন কলেজের অধ্যক্ষ শামসুল হক ক্যান্টিনটি আমার মাকে পরিচালনার দায়িত্ব দিয়েছিলেন। এ সময় থেকেই মায়ের নামে বরাদ্দকৃত ওই ক্যান্টিনটি আমি পরিচালনা করে আসছি। সরকারি নিয়মানুসারে সে সময় থেকে এক ঘর বিশিষ্ট ওই ক্যান্টিনের জন্য ভাড়া দিয়েছি ৩০০ টাকা। এরপর থেকে ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে ওই ক্যান্টিনের ভাড়া। তবে ২০১৭ সাল থেকে টানা ২০২০ সাল পর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে ক্যান্টিনের ভাড়া আমি ২১০০টাকা করে দিয়ে এসেছি। তবে প্রফেসর মো. আব্দুল মান্নান কলেজের অধ্যক্ষের দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই ক্যান্টিন বাবদ ২ লাখ টাকা জামানত দেয়ার জন্য আমাকে চাপ প্রয়োগ করা শুরু করেন কলেজ কর্তৃপক্ষ। করোনার কারণে কলেজ আর ক্যান্টিনটি বন্ধ হয়ে যায়। এরই মধ্যে ক্যান্টিনের ভাড়া বাড়ানোর জন্য তিনদিকে বারান্দা নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু এখন শুনছি কলেজে ফটোস্ট্যাট ও কম্পিউটার কম্পোজের দোকানদার সাইফুলকে ২১০০ টাকা ভাড়াতেই ক্যান্টিনটি বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। তাকে কেন বাদ দেয়া হলো আর নতুন করে ক্যান্টিন বরাদ্দ দেয়ার ব্যাপারে কিছুই জানেননা তিনি। কলেজে একটি দোকান থাকতেও সাইফুলকে কেন ক্যান্টিনটি বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে এ নিয়ে প্রশ্নবিদ্ধ তিনি।

ক্যান্টিনের নতুন বরাদ্দপ্রাপ্ত সাইফুল বলেন, টেন্ডারের মাধ্যমে আর জামানত হিসেবে ৩০০০টাকার পে-অর্ডার ও মাসিক ২১০০টাকা ভাড়ায় ক্যান্টিনটি বরাদ্দ পেয়েছেন তাঁর বউ। পত্রিকার বিজ্ঞপ্তি দেখে আর তিনজন টেন্ডারে প্রতিযোগিতা করে তার বউ সর্বোচ্চ দরদাতা হয়েছেন। তবে কোন পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তিটি দেয়া হয়েছে সেটি বলতে পারেননি সাইফুল।

বিভ্রান্তি নিয়ে টেন্ডার কমিটির সভাপতি ও কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর আলিম আল রাজী বলেন, পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে ক্যান্টিন বরাদ্দের টেন্ডার করা হয়েছে। সর্বোচ্চ দরদাতাই ক্যান্টিনটি বরাদ্দ পাচ্ছেন। এতে সর্বোচ্চ দরদাতা ৩০০০টাকা জামানতসহ মাসিক ভাড়া দিবেন ২১০০ টাকা। স্থানীয় ও বহুল প্রচারিত একটি দৈনিক পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে টেন্ডার করার নিয়ম রেখে রেজুলেশন করা হয়েছে স্বীকার করে তিনি জানান, কবে আর কোন পত্রিকার টেন্ডারটি দেয়া হয়েছিল সেটি কলেজে গিয়ে বলতে পারবেন। এছাড়াও কলেজে একাধিক ছাপড়াসহ বেঞ্চ পূর্ণস্থাপন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, অবকাঠামোগত সমস্যায় ছাপড়া গুলো নির্মাণ করা হয়েছে আর ই-টেন্ডারের মাধ্যমে বেঞ্চ গুলো স্থাপন করা হয়।

এ বিষয়ে কুমুদিনী সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. আব্দুল মান্নান বলেন, ঢাকার সোনালী বার্তা নামের একটি দৈনিক পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে ক্যান্টিনের টেন্ডারটি করা হয়েছে। এতে অংশগ্রহণ করেছেন তিনজন প্রতিযোগি। কমিটিতে টেন্ডার প্রক্রিয়ার মূল্যায়ন চলছে। এতে সম্ভবত সর্বোচ্চ দরদাতা হয়েছে মাসিক ২১০০টাকা ভাড়া নির্ধারণকারী।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840