সংবাদ শিরোনাম:
ভূঞাপুরে পাটের বাম্পার ফলন, জমে উঠেছে হাট গুলো

ভূঞাপুরে পাটের বাম্পার ফলন, জমে উঠেছে হাট গুলো

প্রতিদিন প্রতিবেদক, ভূঞাপুর : টাঙ্গাইলে ভূঞাপুরে পাটের বাম্পার ফলন হয়েছে। ফলে দামও ভালো পাচ্ছে কৃষক‌রা। সোনালী আঁশ পাটের সুদিন আবার ফিরে এসেছে ভূঞাপুরে। পাট চাষে সরকারি সুযোগ-সুবিধা পেয়ে আগের মতো পাট চাষে ঝুঁকছেন কৃষক। উপজেলা পাট অধিদপ্তরের সুষ্ঠু তদারকির কারণে চলতি মৌসুমে পাটের ভালো ফলন হয়েছে। পাট কাটা, জাগ দেয়া, ধোয়া ও শুকানো শেষে হাট-বাজারে বিক্রি করতে ব্যস্থ চাষিরা। পাটের ফলন ও ভালো দাম পেয়ে চাষিদের মুখে ফুটে উঠেছে স্বপ্ন পূরণের হাসি।

বৃহস্পতিবার‌ (২ সেপ্টেম্বর ) উপজেলার গোবিন্দাসী হাটে গিয়ে দেখা যায়, চলতি বছর আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এ বছর উপজেলায় সোনালী আঁশ পাটের বাম্পার ফলন হওয়ায় খুশি পাট চাষিরা। উপজেলার শিয়ালকোল, নলিন ও নিকরাইল হাটে জমে উঠেছে পাটের হাট। পাটের পাশাপাশি পাটকাঠি বিক্রি করেও লাভবান হচ্ছেন চাষিরা। ফলে বাড়তি আয় হচ্ছে তাদের।

উপজেলা পাট অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, গত বছর এ উপজেলায় ৩ হাজার ২শ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছিল। এবার সেখানে বৃদ্ধি পেয়ে ৪ হাজার ৪ শ হেক্টর জমিতে পাট চাষ হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে চলতি পাট মৌসুমে উন্নত প্রযুক্তিনির্ভর পাট ও পাট বীজ উৎপাদন এবং সম্প্রসারণ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ভূঞাপুর উপজেলা পাট অধিদপ্তর পাট চাষিদের বিনামূল্যে বীজ ও সার দিয়েছে। এছাড়াও নিজ উদ্যোগে অনেকে কৃষক উচু এলাকায় সঠিক সময়ে জমিতে পাট বীজ বপন করেছে। আবহাওয়া অনুকূল থাকায় পাটের ফলনও ভালো হয়েছে।এই অঞ্চলের কৃষকরা দেশি, তোষা, মেশতা, রবি-১ ও-৯৮,৯৭, জাতের পাটের আবাদ করেছে। তবে উচ্চ ফলনশীল তোষা জাতের পাট চাষ বেশি হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলা নাগরগাতী, রামপুর, কালিপুর, নদীর চরে বছরের পর বছর অনেক জমি পতিত পড়ে থাকত। এসব পতিত জমিতে বিভিন্ন অসুবিধা থাকায় ভালো কোনো ফসলের চাষ করা সম্ভব হয়নি। কিন্তু ওইসব পতিত জমি পাট চাষের উজ্জল সম্ভাবনা দেখা দেয়ায় পাট চাষে ফলন ও লাভ বেশি হওয়ায় আশায় অনেক শিক্ষিত বেকার যুবকরাও এবার পাট চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছেন।

পাট চাষিরা জানিয়েছেন, প্রতি বিঘা জমিতে চাষ, সেচ, রাসায়নিক সার প্রয়োগ, পাট কাটা, শুকানোসহ খরচ হয়েছে ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা। গত বছরের তুলনায় এবার ফলন ও দাম বেশি হওয়ায় অন্য ফসলের তুলনায় লাভ হবে ৫/৬ গুণ। গত বছর বিঘাপ্রতি ৭/৮ মণ পাট পাওয়া গেছে। কিন্তু এবার ফলন ভালো হওয়ায় বিঘাপ্রতি ১০/১২ মণ পাট পাওয়া যাচ্ছে। পাট শুকানোর পর উপজেলা বিভিন্ন হাটে-বাজারে প্রতিমণ পাট ২ হাজার টাকা হতে ৩ হাজার টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। অল্প পরিশ্রমে চাষিরা চরের জমিতে পাট চাষ করে লাভবান হচ্ছেন। পাট ক্রয়-বিক্রয়কে কেন্দ্র করে স্থানীয় বাজারগুলো সরগরম হয়ে উঠেছে।

উপজেলার ভূঞাপুর ইউনিয়নের বাদশা আলী ও সজল মিয়া জানান, আমরা এবার ২ বিঘা করে জমিতে পাট চাষ করেছি। আবহাওয়া ভালো থাকায় বীজ বপনের প্রথম থেকেই পাটগাছগুলো তড় তড় করে বেরে উঠেছিল। তাছাড়াও এবার বন্যার পানি দেরিতে আসায় চরের পাটের আবাদ খুবই ভালো হয়েছে। আঁশের ধরন খুবই ভালো। উপযুক্ত দামও পেয়েছি। পাটের পাশাপাশি পাটকাঠি বিক্রি করেও লাভবান হচ্ছেন হচ্ছি। ফলে বাড়তি আয় হচ্ছে। এতে আমাদের মতো কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। আগ্রহী হচ্ছে অন্যান্য কৃষকেরা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আল-মামুন রাসেল বলেন, উপজেলা পাট অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে কৃষকদের সঠিক পরামর্শ ও প্রশিক্ষণের কারণে পাট চাষে ঝুঁকে পড়ছেন শিক্ষিত বেকার যুবকরাও। গত বছরের তুলনায় কৃষক এবার পাটের ফলন ভালো পেয়েছেন। বাজারে পাটের দামও ভালো। পাট অধিদপ্তর থেকে বিনামূল্যে বীজ ও সার দিয়ে পাট চাষে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। আমি চাষিদের যাবতীয় কারিগরি সহযোগিতা দিয়ে আসছি। অনুকূল আবহাওয়া থাকায় ফলন ভালো হয়েছে। দাম ভালো পাওয়ায় চাষিদের মুখে হাসির ঝিলিক দেখা দিয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840