সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে বন্যা পরিস্থিতি স্থিতিশীল, ৯৮০ হেক্টর রোপা আমন পানির নিচে

টাঙ্গাইলে বন্যা পরিস্থিতি স্থিতিশীল, ৯৮০ হেক্টর রোপা আমন পানির নিচে

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি কোথাও স্থিতিশীল আবার কোন কোন এলাকায় অবনতি ঘটেছে। পানি উন্ন্য়ন বোর্ডের তথ্য মতে গত ২৪ ঘন্টায় সোমবার যমুনা, ধলেশ্বরী ও ঝিনাই নদীর পানি কমলেও বংশাইসহ অনান্য শাখা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। যমুনা নদীর পানি ২৪ সেন্টিমিটার কমে বিপদসীমার ৩৩ সেন্টিমিটার, ঝিনাই নদীর পানি ১৫ সেন্টিমিটার কমে বিপদসীমার ৭২ সেসন্টিমিটার এবং ধলেশ্বরী নদীর পানি ৭ সেন্টিমিটার কমে বিপদসীমার ৭২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অপরদিকে বংশাই নদীর পানি ৪ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপদসীমার ২১ সেন্টিমিটার উপরদিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বংশাই নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে জেলার বাসাইল ও মির্জাপুর উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে।

এদিকে জেলার বন্যা কবলিত ৮টি উপজেলার লক্ষাধিক মানুষ এখনো পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে। বিভিন্নস্থানে কাঁচা-পাকা রাস্তা, বাঁধ, কালভাট ও সেতু ভেঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থা স্থবির হয়ে পড়েছে।

অপরদিকে গত কয়েকদিনে যমুনা, ধলেশ্বরী, ঝিনাই ও বংশাই নদীর পানি বৃদ্ধির কারনে জেলার বিভিন্ন নি¤œাঞ্চল বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়। এতে জেলার ৮টি উপজেলার ৯৮০ হেক্টর জমির রোপা আমন ধান বানের পানির নিচে রয়েছে। উপজেলা গুলোর মধ্যে টাঙ্গাইল সদর উপজেলায় ১৫৫ হেক্টর, কালিহাতী উপজেলায় ২০৫ হেক্টর, নাগরপুর উপজেলায় ৮০ হেক্টর, মির্জাপুর উপজেলায় ১৪০ হেক্টর, ভূঞাপুর উপজেলায় ১৩০ হেক্টর, গোপালপুর উপজেলায় ১২৫ হেক্টর, সখীপুর উপজেলায় ৪০ হেক্টর ও দেলদুয়ার উপজেলায় ১০৫ হেক্টর জমির রোপা আমন পানির নিচে রয়েছে।
টাঙ্গাইল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এ বছর জেলায় রোপা আমনের লক্ষ্য মাত্রা ছিলো ৮৯ হাজার ৮১৫ হেক্টর। অর্জন হয়েছিলো ৯০ হাজার ৪৬৬ হেক্টর। কিন্তু অসময়ে বন্যার পানিতে বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হওয়ায় ৯৮০ হেক্টর জমির রোপা আমান ক্ষতির মুখে পড়েছে। এই অসময়ে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ প্রায় ১ হাজার ৬ শত কৃষকদের মাঝে ৫ কেজি করে বিআর ২২/২৩ জাতের বীজ ইতিমধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।

টাঙ্গাইল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আহসানুল বাসার জানায়, আগামী ১৫ দিনের মধ্যে যদি বন্যার পানি নেমে জমি চাষের জন্য উপযোগী হয় তাহলে বিআর ২২/২৩ জাতের রোপা আমন ধান রোপন করে কৃষকরা তাদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবে। এজন্য ইতিমধ্যে আমরা কৃষি অধিদপ্তরের মাধম্যে ১ হাজার ৬ শত কৃষকদের মাঝে ৫ কেজি করে বীজ বিতরণ করেছি। আর যদি আগামী ১৫ দিন পর বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয় তাহলে লক্ষাধিক কৃষকদের কৃষি পূর্নবাসন ও প্রনোদনার মাধ্যমে কৃষকদের মাঝে ভূট্টা, সরিষা, সূর্যমুখী, সবজি বীজ ও ডাল জাতীয় উচ্চ ফলনশীল বীজ ও সার দেওয়া হবে। এতে করে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা তাদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840