সংবাদ শিরোনাম:
কালিহাতীর যুবলীগ নেতা শাহালম মোল্লা ও মেয়রের বিরুদ্ধে মামলা

কালিহাতীর যুবলীগ নেতা শাহালম মোল্লা ও মেয়রের বিরুদ্ধে মামলা

প্রতিদিন প্রতিবেদক: জীবনের নিরাপত্তা ও শান্তি শৃংখলা রক্ষার দাবিতে কালিহাতী উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম মোল্লা ও এলেঙ্গা পৌরসভার মেয়র নূর এ আলম সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন আহমাদ মিয়া নামের এক যুবক। টাঙ্গাইল নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট খ অঞ্চল আদালতে মামলা দায়ের করে তিনি তার জীবনের নিরাপত্তা দাবি করেছেন।

জানা গেছে, এলেঙ্গার এই মোল্লা পরিবারের কতিপয় সদস্যের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করেছে স্থানীয়রা। সরকারী দলের নাম ভাঙ্গিয়ে তারা চরম বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও প্রভাব বিস্তারের মাধ্যমে সাধারন মানুষ জিম্মি হয়ে পড়েছে। কিন্তু ভয়ে তাদের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলতে পারছেনা। সে কারনে সাধারন মানুষ এখন আইনের আশ্রয় নিতে বাধ্য হচ্ছে।  

মামলার বিবরণে জানা যায়, এলেঙ্গা পৌরসভার বাসিন্দা মৃত ডা. আব্দুল মান্নান মিয়ার ছেলে আহমাদ মিয়ার সাথে অর্থনৈতিক ও জমিজমা সংক্রান্ত বিষয়ে পুর্ব শত্রুতার জের ধরে একটি প্রভাবশালী মহল বিভিন্ন প্রকার হয়রানী ও ক্ষতি সাধন করে আসছে।

তারই ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি আহমাদ মিয়ার এলেঙ্গা পৌরসভাস্থ পাথাইলকান্দি এলাকার বাড়ির দক্ষিণপাশে আরসিসি পিলার ও গ্রেডভিমের উপর ১১ফুট উচ্চতা বিশিষ্ট ৯৩ফিট বান্ডারী ওয়াল কোন প্রকার পুর্ব নোটিশ ও একোয়ার ব্যতিত এলেঙ্গা পৌরসভা ভেঙ্গে ফেলে।

এ ঘটনার পর আহমাদ মিয়া ক্ষতিপূরণ দাবি করে এলেঙ্গা পৌরসভার মেয়র নূর এ আলম সিদ্দিকীসহ কয়েকজনের নামে উকিল নোটিশ পাঠান। উকিল নোটিশ পাওয়ার পর প্রভাবশালীরা আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। তারা আহমাদ মিয়াকে মিথ্যা চাঁদাবাজী মোকদ্দমাসহ নানা প্রকার হয়রানী, প্রয়োজনে খুন জখম ও লাশ গুম করার হুমকি দিয়ে আসছে।

এতিম ও অসহায় আহমাদ মিয়া তার নিরাপত্তা এবং জানমাল ও সহায় সম্পত্তি রক্ষার জন্য মঙ্গলবার কালিহাতী উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম মোল্লা ও এলেঙ্গা পৌরসভার মেয়র নূর এ আলম সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে টাঙ্গাইল নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট খ অঞ্চল আদালতে মামলা দায়ের করেন।

তবে মামলা করেও জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন আহমাদ মিয়া ও তার স্বজনেরা। সে কারনে তিনি টাঙ্গাইল পুলিশ প্রশাসনের কাছে নিরাপত্তা চেয়েছেন।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই শাহালম মোল্লাসহ মোল্লা পরিবারের কতিপয় সদস্য বেপরোয়া হয়ে উঠে। তাদের পরিবারের আরেক সদস্য নুর ই আলম সিদ্দিকী এলেঙ্গা পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হবার পর থেকে ক্ষমতার প্রভাব বহুগুন বেড়ে যায়। টেন্ডারের মাধ্যমে একচেটিয়া সরকারী উন্নয়ন কাজ, জমি কেনাবেচার কাজ, নদীতে ড্রেজিং এর মাধ্যমে বালু উত্তোলন ও বিচার শালিশসহ সকল কিছুই তাদের নিয়ন্ত্রনে চলে যায়।

আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনে মোল্লাদের যত পদ :

কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক হলেন আনোয়ার হোসেন মোল্লা, কালিহাতী উপজেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক শাহালম মোল্লা,  কালিহাতী পৌর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও এলেঙ্গা পৌরসভার মেয়র হলেন নুর ই আলম সিদ্দিকী। এছাড়াও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক হলেন আনিছুর রহমান মোল্লা, কালিহাতী উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি বেল্লাল হোসেন মোল্লা এবং কালিহাতী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক হলেন আব্দুল লতিফ মো্ল্লা।

জানা গেছে, শাহালম মোল্লা কালিহাতী উপজেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক পদ পাবার পর থেকেই যুবলীগ কালিহাতীতে বেপরোয়ারা হয়ে উঠে।

উপজেলা প্রশাসনের সামনে এলেঙ্গাতে এলেংজানী নদীতে অবৈধ বাংলা ড্রেজার ও ভেকু দিয়ে বালু উত্তোলনের মহোউৎসব শুরু করে।ফলে হুকমীর মূখে পড়ে শত শত গ্রাম, কৃষিজমি, স্কুল ও মসজিদ সহ ব্রীজ-কালভাট।

এলেঙ্গা ব্রিজের উত্তর দিকে চুনিয়াবাড়ী ঘাটে কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম মোল্লার নেতৃত্বে অবৈধ ভেকু বসিয়ে বালু বিক্রীর উৎসব চলে অনেকদিন। যদিও পরবর্তীতে প্রশাসনের নজরে এলে এসব বন্ধ হয়ে যায়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেশ কয়েকজন দলীয় নেতাকর্মীর অভিযোগ, তারা এতই বেপরোয়া হয়ে গেছে যে দলীয় প্রধান ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কথাও মানতে চাচ্ছেনা। গত উপজেলা নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় প্রকাশ্যে।

নির্বাচনের দিন দুপুরের দিকে কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাধারন সম্পাদক শাহ আলম মোল্লা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আনারস প্রতীকের প্রার্থী আনসার আলী বি.কম এর প্রধান নির্বাচনী এজেন্টের সাথে একটি ছবি পোষ্ট দিয়ে তা জানান দেন।

একইভাবে কালিহাতী উপজেলা যুবলীগের সভাপতি নুরনবী সরকারও প্রকাশ্যে ও নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নেন। শুধু তাই নয় কালিহাতী উপজেলা যুবলীগের অধিকাংশ নেতাকর্মী নৌকার বিরুদ্ধে মাঠে নেমে নৌকার ভরাডুবি করে। এর ঘটনায় প্রকৃত আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মাঝে চরম হতাশার সৃষ্টি হয়। এবং ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

তারা দলের বিরুদ্ধে যারা কাজ করেছে তাদের বিচার দাবি করে। আওয়ামী লীগ তথা বর্তমান সরকারের সুনাম রক্ষার্থে এখনি তাদের লাগাম টেনে ধরার দাবি জানিয়েছে সাধারন মানুষ।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840