সংবাদ শিরোনাম:
বাসাইলে পানিতে ডুবে স্কুল ছাত্রীর মৃত্যু কালিহাতীতে বেগম খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ধনবাড়ীতে সিএনজি’র দখলে সড়ক, জনদুর্ভোগ চরমে টাঙ্গাইলে ২৮ লাখ টাকার ক্রিস্টাল ম্যাথ ও ইয়াবাসহ দুই মাদক কারবারিকে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ সখীপুরে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ ধর্মীয় নেতাদের করণীয় শীর্ষক আলোচনা ত্রাণ নিয়ে সিলেট যাচ্ছেন ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা টাঙ্গাইলে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকদের মানববন্ধন ভুয়া চিকিৎসক আটক, তিন মাসের কারাদন্ড টাঙ্গাইলে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি, পানিবন্দি লাখো মানুষ মাভাবিপ্রবিতে ‘ক্রাইম, ভিক্টিম্স এবং জাস্টিস’ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত
টাঙ্গাইলে কোন হাসপাতালেই ডোপ টেস্ট চালু হয়নি, ভোগান্তিতে চালকেরা

টাঙ্গাইলে কোন হাসপাতালেই ডোপ টেস্ট চালু হয়নি, ভোগান্তিতে চালকেরা

মাছুদ রানা: প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী গত ৩০ শে জানুয়ারি থেকে পেশাদার মোটরযান চালকদের নতুন লাইসেন্স গ্রহণ এবং নবায়নের জন্য ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। কিন্তু পরীক্ষা করাতে গিয়ে ভোগান্তিতে পড়ছেন লাইসেন্স প্রত্যাশীরা। সরকারিভাবে এই টেস্ট চালুর কথা থাকলেও টাঙ্গাইল জেলায় এখন পর্যন্ত কোথাও এ পরীক্ষা চালু হয়নি। এ অবস্থায় লাইসেন্স প্রত্যাশীদের ডোপ টেস্টের প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার পর থেকে দেখা দিয়েছে নানা জটিলতা। এই সনদ ছাড়া চালকরা নতুন লাইসেন্স ও পুরনো লাইসেন্স নবায়ন করতেও পারছেন না। এতে করে চালকদের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। সরকারিভাবে ডোপ টেস্ট পরীক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ল্যাব কিংবা টেস্টের যন্ত্রাংশ না থাকায় এখন পর্যন্ত পরীক্ষা চালু করা সম্ভব হয়নি বলে জানান টাঙ্গাইলের সিভিল সার্জন।

জানা যায়, সড়ক দুর্ঘটনার জন্য অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বেপরোয়া গাড়ি চালানোকে অধিকাংশে দায়ী করা হয়। আর এই বেপরোয়া গাড়ি যারা চালান তাদের অনেকেই মাদকাসক্ত বলেও অভিযোগ উঠে। এরই প্রেক্ষিতে ৩০ জানুয়ারি থেকে পেশাদার মোটরযান চালকদের নতুন লাইসেন্স গ্রহণ এবং নবায়নের জন্য ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। লাইসেন্স পেতে হলে ডোপ টেস্টের নেগেটিভ সনদ দাখিল করতে হবে। অন্যথায় নতুন ড্রাইভিং লাইসেন্স দেওয়া হবে না বা নবায়ন করা হবে না।

বিআরটিএর তথ্য অনুযায়ী, ঢাকায় এই ডোপ টেস্টের জন্য ছয়টি হাসপাতাল নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া এই পরীক্ষা সারাদেশে সকল পর্যায়ের সরকারি হাসপাতাল থেকে করা যাবে। এই ডোপ টেস্টের কারণে পেশাদার চালকদের লাইসেন্স পেতে বা নবায়ন করতে অতিরিক্ত ৯০০ টাকা লাগবে। তবে টাঙ্গাইল জেলায় এখনও কোন সরকারি হাসপাতাল অথবা প্রতিষ্ঠানে এ পরীক্ষা চালু হয়নি।

সরেজমিন বিআরটিএ অফিসে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিদিন গড়ে প্রায় ২৫ থেকে ৩০ জন নতুন লাইসেন্স এবং পুরনো লাইসেন্স নবায়ন করতে আসে। কিন্তু সরকারি নতুন নির্দেশনা অনুযায়ী ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক করলেও জেলার কোথাও এ পরীক্ষা চালু না হওয়ায় লাইসেন্স প্রত্যাশীরা তাদের কাজ করতে পারছে না। এদিকে বিআরটিএ কর্মকর্তারাও ডোপ টেস্টের রিপোর্ট ছাড়া কোন লাইসেন্সের কাজ করতে পারছেন না। এতে করে চালকদের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হচ্ছে।

বিআরটিএ অফিস আঙ্গীনায় কথা হয় কয়েকজন চালকের সাথে। তারা জানান, লাইসেন্স করতে এসে জানতে পারি ডোপ টেস্ট রিপোর্ট লাগবে। পরে আমরা সদর হাসপাতালে গিয়ে ডোপ টেস্ট করাতে চাইলে তারা আমাদের জানান এ ধরনের কোন টেস্ট এখনও চালু করা হয়নি। পন্যবাহি ট্রাক ড্রাইভার একরাম হোসেন জানান, এ নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে বিআরটিএ অফিস ও হাসপাতালে ঘুরাঘুরি করে কোন লাব হয়নি। কবে নাগাত টেস্ট চালু করবে আর কবেই বা আমরা টেস্ট করাবো তাও জানি না। কিন্তু পেটের দায়ে আমাদের রাস্তায় গাড়ি নিয়ে বের হতে হয়। আর লাইসেন্স না থাকলে কিংবা লাইসেন্সের মেয়াদ উর্ত্তীণ থাকলে রাস্তায় মামলা খেতে হয়। এতে করে আমাদের এখন আমারা উভয় সংকটে পড়েছি।

বিআরটিএ সদর সার্কেল টাঙ্গাইলের সহকারী পরিচালক (ইঞ্জ:) মো: আলতাব হোসেন জানান, গত ৩০ শে জানুয়ারি থেকে নতুন লাইসেন্স এবং পুরনো লাইসেন্স নবায়ন করতে ডোপ টেস্ট এর রিপোর্ট ছাড়া কেউ লাইসেন্স করতে পারবে না এমন নির্দেশনা পাওয়ার পর আমরা বিআরটিএ টাঙ্গাইল সদর সার্কেল থেকে জেলা সিভিল সার্জন ও ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল ও শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোতে চিঠি প্রেরণ করা হয়েছে। তারা আমাদের জানিয়েছেন ডোপ টেস্ট করতে যে সকল সরঞ্জাম প্রয়োজন তা তাদের নেই। এ বিষয়ে তারা স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে পরামর্শ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

তিনি আরো জানান, এ নির্দেশনার পর পুলিশ সদস্য ছাড়া আর কেউ লাইসেন্স এর জন্য ডোপ টেস্ট এর রিপোর্ট দিতে পারেনি। সরকারি এ নির্দেশনা সকলকে মেনে চলতে হবে। দুর্ঘটনা রোধে এই কাজ করা খুবই জরুরি। তবে ডোপ টেস্ট এর প্রক্রিয়াটি দ্রুত বাস্তবায়ন না করতে পারলে জনগনের ভোগান্তি আরো বেড়ে যাবে।

টাঙ্গাইলের সিভিল সার্জন ডা. আবুল ফজল মো. সাহাবুদ্দিন খান বলেন, এ বিষয়ে আমরা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে বরাদ্দ চেয়েছি। বরাদ্দ পাওয়া মাত্র সরকারি চাকুরি প্রার্থী ও সাধারণ মানুষদের ডোপ টেস্টের ব্যবস্থা করতে পারবো। আশা করছি আগামী এক মাসের মধ্যে এ সমস্যার সমাধান হবে। এরপর ডোপ টেস্ট করতে জনগনের আর কোন সমস্যা হবে না।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840