সংবাদ শিরোনাম:
পূবালী ব্যাংকের আর্মড গার্ডদের জোর পূর্বক ডিউটির অভিযোগ

পূবালী ব্যাংকের আর্মড গার্ডদের জোর পূর্বক ডিউটির অভিযোগ

প্রতিদিন প্রতিবেদক : পূবালী ব্যাংকের আর্মড গার্ডদের জোর পূর্বক ২৪ ঘন্টা ডিউটি করানোর অভিযোগ এনে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছেন আর্মড গার্ড কল্যাণ পরিষদ। ইতিপূর্বে তারা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্শনের জন্য সংবাদ সম্মেলন ও মানবন্ধন করেছেন।

এর পরও প্রশাসনের উদ্ধর্তন কর্মকর্তাদের পক্ষ থেকে কোন প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় প্রতিটি আর্মড গার্ড পরিবারের মাঝে নানা সমস্যা ও কলহের সৃষ্টি হচ্ছে বলে জানান তারা।

আমর্ড গার্ড আব্দুল আলিম মির্জা, পাকুটিয়ার সোহেল রানা, করটিয়ার তারেকুল ইসলাম, পাথরাইলের জুয়েল হোসেন, মাহমুদুল হাসান, আব্দুর রহিম সহ অন্যান্যরা জানান, কোন প্রকার সরকারি নিয়মের তোয়াক্কা না করে প্রতিমাসে ৫৪৪ ঘন্টা ওভার টাইমের পারিশ্রমিক মাত্র ৫০০ টাকা দেওয়া হয়। যা আজ পর্যন্ত কোথাও কোন নজির নেই বলেও তারা জানান।

সংবাদকর্মীদের আক্ষেভ করে তারা জানান, নেই তাদের কোন আবসর, একটানা ডিউটি করার জন্য লিখিত ভাবে তাদের অফিস আদেশ দেওয়া হয়। সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত অস্ত্র নিয়ে তারা গেটে ডিউটি করেন। সন্ধ্যা ৬টার পর অস্ত্র ভল্ট কক্ষে চলে যায়। এর পর তাদেও পক্ষে আর ডিউটি করা সম্বভ নয় বলে তারা জানান। পূবালী ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আমাদেরকে কৃতদাস বানিয়ে রেখেছে, আমাদেরকে ২৪ ঘন্টা বাধ্যতামূলক ডিউটি করতে বাধ্য করেছে। আমরা এ অমানবিক নির্যাতন হতে বাঁচতে অনেক বার লিখিত ও মৌখিকভাবে জানালেও কর্তৃপক্ষের টনক নরেনি ।

এ ব্যাপারে আমরা কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ, বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভনর ও বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যানসহ পূবালী ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানালেও কোন প্রতিকার পাইনি।

এ ব্যাপারে চলতি বছর ২৬ জানুয়ারি জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ২৪ ঘন্টা ডিউটি প্রত্যাহারসহ ১০ দফা দাবীতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছি। সংবাদ সম্মেলনে ২৪ ঘন্টা ডিউটি প্রত্যাহারসহ ১০ দফা দাবী পেশ করা হয়। দাবী মানা না হলে আগামীতে রাজপথে এবং পূবালী ব্যাংক প্রধান কার্যালয় ঘেরাওসহ কঠোর কর্মসূচিত দিতে বাধ্য হবো।

সংবাদ সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, দাবী আদায়ের ব্যপারে আমরা কঠোর কর্মসূচি দিলে কোন অনভিপ্রেত ঘটনা ঘটলে তার দায়-দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকেই বহন করতে হবে। সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন সংগঠনের সাধারন সম্পাদক মো. আতিউর রহমান। এ ব্যাপারে পূবালী ব্যাংকের এমডি হালিম চৌধুরী সংঙ্গে ফোনে যানতে চাইলে তিনি ডিজিএম রফিকুল ইসলাম এর সঙ্গে আলাপ করতে বলেন। ডিজিএম রফিকুল ইসলামকে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কিছুই না বলে ফোন কেটে দেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840