সংবাদ শিরোনাম:
ভূঞাপুরে চড়াই উৎরাইয়ের মধ্য দিয়ে সবার মনোনয়ন বৈধ কালিহাতীতে পৌলীতে রেল সেতুর দুই পাশে বালু বিক্রির মহোৎসব মাদরাসা ছাত্রীর প্রেমের টানে ও ঘর বাঁধতে টাঙ্গাইলে আরেক ছাত্রী মধুপুরে জৈব কৃষি ব্যবস্থাপনা বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত তীব্র গরম ও তাপদাহে অতিষ্ঠ মধুপুরবাসী বাড়ছে নানা রোগ সখীপুরে প্রকৃতি ও শান্তি সংঘের উদ্যোগে গাছের চারা বিতরণ টাঙ্গাইলের বাসাইল থেকে ৪৯ কেজি গাঁজা সহ ০৪ মাদক ব্যবসায়ী আটক পৌর উদ্যানের শতবর্ষী গাছ কাটার প্রতিবাদে মানববন্ধন  টাঙ্গাইলে পারিবারিক কলহে পিতাকে পিটিয়ে আহত করেছে ছেলে সিরাজগঞ্জে পুলিশের উপর হামলা, মদ ও অস্ত্রসহ আ.লীগ নেতার স্ত্রী আটক
ভূঞাপুরে নদীতে বাঁধ দিয়ে জেগে উঠা চর কাটার মহোৎসব

ভূঞাপুরে নদীতে বাঁধ দিয়ে জেগে উঠা চর কাটার মহোৎসব

প্রতিদিন প্রতিবেদক: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে জেগে উঠা কাটার মহোৎসব শুরু হয়েছে। এতে বর্ষা মৌসুমে ব্যাপক ভাঙনের আশংঙ্কা করছেন নদী পাড়ের মানুষজন। দীর্ঘদিন ধরে প্রভাবশালীরা জেগে উঠা চর কেটে বিক্রি করলেও কার্যকর কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না।

সরেজমিনে উপজেলার অর্জূনা ইউনিয়নের জগৎপুরা, কুঠিবয়ড়া, দক্ষিন জগৎপুরা ও নলীন এলাকায় যমুনা নদী থেকে মাটি কাটার যন্ত্র (ভেকু) বসিয়ে দিন-রাত আবাদি জমিসহ চরের বালু কাটা হচ্ছে। তবে এই চর কাটার মহোৎসব বেশি চলে রাতে। স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে ১০ পয়েন্ট থেকে চর কাটা হচ্ছে। শুধু তাই নয় নলীন হতে কুঠিবয়ড়া পর্যন্ত পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাঁধ ঘেষে কাটা হচ্ছে বালু। এই বালু পরবর্তিতে বাঁধ কেটে রাস্তা বানিয়ে সেখান দিয়ে বালুবাহী ট্রাক চলাচল করছে।

তবে বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইনে বলা আছে, ২০১০-এর ধারা ৫-এর ১ উপধারা অনুযায়ী, পাম্প বা ড্রেজিং বা অন্য কোনো মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ বালু বা মাটি উত্তোলণ করা যাবে না। ধারা ৪-এর (খ) অনুযায়ী, সেতু, কালভার্ট, ড্যাম, ব্যারাজ, বাঁধ, সড়ক, মহাসড়ক, বন, রেললাইন ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ও বেসরকারি স্থাপনা হলে অথবা আবাসিক এলাকা থেকে সর্বনি¤œ এক কিলোমিটারের মধ্যে বালু উত্তোলণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এই আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে দুই বছরের কারাদন্ড বা সর্বনি¤œ ৫০ (পঞ্চাশ) হাজার টাকা হইতে ১০ (দশ) লক্ষ টাকা পর্যন্ত অর্থদন্ড বা উভয় দন্ডে দন্ডিত হইবেন। এবং একই অপরাধে ব্যবহৃত ড্রেজার, বালু বা মাটিবাহী যানবাহন বা সংশ্লিষ্ট সামগ্রী সরকারের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করার বিধান রয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার কুঠিবয়ড়া, জগৎপুরা হতে গোপালপুরের নলীন পর্যন্ত যমুনা নদীর ১০টি পয়েন্ট থেকে আওয়ামী লীগের প্রভাবশালীরা কনসোডিয়াম (পালাভিত্তিক) করে বাঁধের কাছ থেকে বালু মাটি কেটে বিক্রি করছে। জমির মালিকদের নামমাত্র টাকা দিয়ে ফসলি জমিও কাটা হচ্ছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা এসব বালুর ঘাট তৈরি করে বিক্রি করছে। প্রতিদিন শত শত ট্রাকযোগে বালু মাটি বিক্রি করা হচ্ছে।

জগৎপুরা গ্রামের মঞ্জুর আশরাফ জমাদ্দার বলেন, জোরপূর্বক যমুনা নদীর চর কেটে বিক্রি করা হচ্ছে। কেউ যদি জমি দিতে না চায় তাহলে তার জমি জোর করে কাটা হয়। প্রতিবছরই নদীতে চর জাগলেও বালু খেকোদের কারণে সেটা থাকেই না উল্টো বর্ষা সময় আরো ভাঙনের সৃষ্টি হয়। প্রশাসনও জড়িত বালু উত্তোলণ কাজে।

অর্জুনার এলাকার মোফাজ্জল হোসেন সরকার বলেন, অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলণের ফলে ভূঞাপুর-তারাকান্দি বাঁধ হুমকিতে পড়েছে। এছাড়া ওই সড়কের পাড় কেটে ট্রাক চলাচলের রাস্তা তৈরি করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ নেতাদের নেতৃত্বে বালু উত্তোলণের মহোৎসব চলছে যমুনা নদীতে।

দক্ষিণ জগৎপুরা গ্রামের ছানোয়ার বলেন, প্রশাসন যেখানে নিরব সেখানে অভিযোগ দিয়ে নিজের ক্ষতি ছাড়া কিছুই হবে না। সাংবাদিকরাও লিখে কি করবে। চর কাটা কেউ বন্ধ করবে না। এখানকার কাঁচা টাকা সবাইকে ভাগ দিয়ে প্রভাবশালীরা নদীর চর কাটছে।

বালু উত্তোলণকারী শহীদ খান বলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক তাহেরুল ইসলাম তোতার নেতৃত্বে সবগুলো ঘাট। তিনিই সব দেখভাল করেন। আমরা শুধু দেখাশোনার দায়িত্বে আছি।

অর্জুনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দিদারুল আলম খান মাহবুব বলেন, যারা নদীর চর কেটে বিক্রি করছেন তারা প্রভাবশালী। বিষয়টি বন্ধে বার বার উপজেলা মিটিংয়ে কথা বলেছি কিন্তু বন্ধ হচ্ছে না। কেন বন্ধ হচ্ছে না আপনারাতো জানেন। অবৈধভাবে বালু উত্তোলণের ফলে বাঁধ যেমন ঝুঁকিতে পড়েছে তেমনি বর্ষা মৌসুমে ব্যাপক ভাঙনের কবলে পড়বে ওই এলাকাগুলো। দ্রুতই চর কাটা বন্ধ হওয়া দরকার।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক তাহেরুল ইসলাম তোতা বলেন, এখন আর বালুর ঘাটের দায়িত্বে আমি নেই। যারা নাম বলছে তারাই বালু উত্তোলণ করছে।

জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের পাশাপাশি পুলিশ প্রশাসনকে লিখিতভাবে জানানো হয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য। একবার অভিযান হওয়ার পর কয়েকদিন বন্ধ থাকে বালু উত্তোলণ। কিন্তু পরে আবার চালু করা হয়। উপজেলা প্রশাসনকে এই বিষয়টি বারবার জানানো হয়েছে যাতে বারবার অভিযান পরিচালনা করা হয়। এখন তারা যদি আইনগত ব্যবস্থা না গ্রহণ করেন তাহলে আমাদের কিছু করার থাকে না। তারপরও কিছু অসাধু চক্র তারা এই বালু উত্তোলণের মহোৎসব শুরু করে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাহিদুর রহমান বলেন, অবৈধ বালু উত্তোলণ বন্ধে নিয়মিত ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। অভিযোগ পাওয়ার পর অভিযানে গিয়ে কিছু পাওয়া যায় না। তারা প্রশাসনের অগোচরে এসব করে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840