টাঙ্গাইলে বিদ্যুতে নৌকার পাঁচ যাত্রী মারা গেছে

টাঙ্গাইলে বিদ্যুতে নৌকার পাঁচ যাত্রী মারা গেছে

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলের বাসাইলে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে নৌকার পাঁচ যাত্রী মারা গেছে। এরা হলো- বাসাইল উপজেলার গিলাবাড়ী গ্রামের নৌকার মাঝি তাইজ উদ্দিন (৫০) একই এলাকার মিঞ্জু মিয়ার স্ত্রী জমেলা বেগম (৬০) ও তার ছেলে হামিদুর রহমান রনো (৩৫), একই এলাকার আতা মিয়ার ছেলের বউ (৩২) ( নাম জানা যায়নি) ও সখীপুর উপজেলার কৈয়ামধু গ্রামের হায়দার আলীর ছেলে শাহ আলম ( ২৫)। শুক্রবার বিকেলে বাসাইল উপজেলার গিলাবাড়ী বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য রুবেল জানান, নৌকাটি দাঁড়িয়াপুর থেকে গিলাবাড়ীতে আসছিল। এটি গিলাবাড়ী বাজার এলাকায় পৌঁছালে বিলের মধ্যে থাকা বিদ্যুতের তারের সঙ্গে জড়িয়ে যায় নৌকার মাঝি। এসময় নৌকাটি ডুবে যায়। এ ঘটনায় ঘটনাস্থল থেকে পাঁচজনের লাশ উদ্ধার করা হয়।

স্থানীয় ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ফায়ার ম্যান শফিকুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থলে ডুবুরি পাঠানো হয়েছে। এছাড়াও টাঙ্গাইল ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র অপারেশন কর্মকর্তা শফিকুর রহমান ঘটনার সত্যতা শিকার করেছেন। তিনি জানান, পাঁচজনের লাশ পাওয়া গেছে। আরো কেউ নিখোঁজ আছে কিনা বা মারা গেছে কিনা তা নিশ্চিত হতে ডুবুরী দল কাজ করছে।

বাসাইলের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামছুন নাহার স্বপ্না জানান, ৫ জন নিহত হওয়ার ঘটনাটি নিশ্চিত হওয়া গেছে। আরও এক শিশু নিখোঁজ রয়েছে। টাঙ্গাইল থেকে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে।
এর আগে, বাসাইল উপজেলার কাশিল ইউনিয়নের কামুটিয়া এলাকায় পানির উর্ধ্বগতি ও প্রচন্ত চাপে নদী রক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে চারটি ইউনিয়নের ৫০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

একই সাথে বাসাইল-কাঞ্চনপুর সড়কের ছনকাপাড়া এলাকায় সেতু ভেঙে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছেন বাসাইল ও মির্জাপুর উপজেলার প্রায় ৩০টি গ্রামের মানুষ।

বৃহস্পতিবার বিকালে বন্যার পানির স্রোতে সেতু ও নদীর বাঁধ ভেঙে যায়।

স্থানীয়রা জানান, বুধবার বিকাল থেকে বাসাইল-নাটিয়াপাড়া সড়কের বিভিন্ন স্থান ডুবে বন্যার পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এ কারণে বাসাইল-কাঞ্চনপুর সড়কের ছনকাপাড়ার সেতুটির নিচ দিয়ে পানির স্রোতের তীব্রতা বেড়ে যায়। একপর্যায়ে বৃহস্পতিবার বিকালে সেতুটি হঠাৎ করে ভেঙে বিলিন হয়ে যায়।

সেতুটি ভেঙে পড়ায় বাসাইল ও মির্জাপুর উপজেলার কাঞ্চনপুর দক্ষিণপাড়া, ছনকাপাড়া, কাজিরাপাড়া, কোদালিয়াপাড়া, ফতেপুর, পাটদীঘিসহ প্রায় ৩০ গ্রামের মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছেন।

এদিকে ঐ দিনই কাশিল ইউনিয়নের কামুটিয় ও দেউলীর মাঝামাঝি এলাকার নদীরক্ষা বাঁধটি ভেঙ্গে ফুলকি, কাশিল ও কাউলজানি ইউনিয়নের বিস্তৃত এলাকা প্লাবিত হয়ে পানি বন্ধি হয়ে পড়ে আরো প্রায় ২০টি গ্রামের মানুষ।

বাসাইলের উপসহকারী প্রকৌশলী সাজেদুল আলম জানান, ১৯৯২-৯৩ সালে ‘কেয়ার বাংলাদেশ’- এর আওতায় সাড়ে ১১ মিটার সেতুটি নির্মাণ করা হয়। সেতুটি এমনিতেই ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। এ কারণে পানির স্রোতে ভেঙে পড়েছে।

বাসাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) শামছুন নাহার স্বপ্না জানান, সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় ইতিমধ্যেই নতুন করে ব্রিজ নির্মাণের প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে।

বন্যার পানি ঢুকে সেতুটি ভেঙে যাওয়ায় এ সড়ক দিয়ে বিকল্প ব্যবস্থায় জনসাধারণের চলাচলের ব্যবস্থা করা হবে বলেও তিনি জানান।

আরো পড়ুন, টাঙ্গাইল সড়র উপজেলার চারাবাড়ি ব্রিজের পূর্বপাড়ের অ্যাপ্রোচের ভাঙনরোধে ফেলা প্রায় ১৩ লাখ টাকার জিও ব্যাগে বালির পরিবর্তে ভিটামাটি ব্যবহার করা হচ্ছে।

অথচ অ্যাপ্রোচের ভাঙনরোধে বালির পরিবর্তে ভিটামাটি ব্যবহারের কোন সুযোগ নেই বললেন এলজিইডি কর্মকর্তা।

ভিটামাটির জিও ব্যাগ ব্যবহারে নদীর পানি কমলেই অ্যাপ্রোচে শুরু হবে আবার ভাঙন।যাতে পূর্ণরায় আবার সংস্কার কাজের জন্য সরকারি অর্থ হাতিয়ে নিতে পারে টাঙ্গাইল এলজিইডি কর্মকর্তারা।

যে কারণে তারা ভাঙনরোধে বালির পরিবতের্ ব্রিজ সংলগ্ন মাটি কেটে জিও ব্যাগ ভরে ফেলা হচ্ছে। এছাড়াও ব্রিজসংলগ্ন ড্রেজার বসিয়ে মাটি উত্তোলন করেও জিও ব্যাগ ভতির্ করা হচ্ছে।

অথচ শুকনো মৌসুমে এলজিইডি কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় সরকার দলীয় নাম ভাঙ্গিয়ে ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সুমন দেওয়ান ও বর্তমান চেয়ারম্যান সহ অন্যান্যরা ব্রিজসংলগ্ন থেকে বেকু ও ড্রেজার বসিয়ে দেদারচ্ছে বালু উত্তোলন করে কোটি কোটি টাকায় বিক্রি করেছে।

তাদের বিরুদ্ধে তখন ও এখনও কোন প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন না কেউ। বালু খেকোদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ না করে পূর্ণরায় সরকারি অর্থ নষ্ট ও হাতিয়ে নিচ্ছেন অসাধু কর্মকর্তারা।

সম্প্রতি স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদফতর (এলজিইডি)র তত্ত্বাবধানে চারাবাড়ি ব্রিজের পূর্বপাড়ের অ্যাপ্রোচের ভাঙনরোধে ১৩ লাখ টাকার জিও ব্যাগে বালির পরিবর্তে ভিটামাটি ফেলে কাজটি সম্পন্ন করা হয়েছে।

এ নিয়ে স্থানীয়দের অভিযোগ এলজিইডির দায়িত্বরত প্রকৌশলীর যোগসাজসে ঠিকাদার বালির পরিবর্তে নদী থেকে ড্রেজারের মাধ্যমে ভিটামাটি উত্তোলন করে ও জিও ব্যাগে ভরে ভাঙন কবলিত ওই অ্যাপ্রোচে ব্যবহার করেছে। এর ফলে নদীর পানি কমলেই অ্যাপ্রোচে শুরু হবে আবার ভাঙন।

জানা যায়, ২০০৬ সালের ১ জুন এলাজিইডির তত্ত্বাবধানে নির্মিত হয় ১৭০.৬৪২ মিটার চারাবাড়ি তোরাপগঞ্জ সড়কের ধলেশ^রী নদীর উপর এই ব্রিজ। টাঙ্গাইলের চরাঞ্চলের কাতুলী, হুগড়া, কাকুয়া, মাহমুদনগর আর নাগরপুরের ভাড়রা ইউনিয়নে লক্ষাধিক মানুষ এ ব্রিজটি দিয়ে চলাচল করে।

চলতি বছরের ১৮ জুলাই ব্রিজটির বাম তীরের অ্যাপ্রোচ ধসে পশ্চিমাঞ্চলের সাথে যানচলাচল বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এর ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েন চরাঞ্চলের লক্ষাধিক মানুষ।

পরবর্তিতে ব্রিজটির ভাঙন ঠেকাতে আর চলাচল স্বাভাবিক রাখতে স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদফতর (এলজিইডি) টাঙ্গাইল আপতকালীন হিসেবে জিও ব্যাগ ফেলার সিদ্ধান্ত নেন।

অ্যাপ্রোচ ভাঙনের পরিমাপ করে ১২ লাখ ৯৭ হাজার টাকায় মোট ৩ হাজার বালির জিও ব্যাগ ফেলার কাজটি পান ওই এলাকার মেসার্স মিতু এন্টার প্রাইজের স্বত্তাধিকারী ইমরান হোসেন। গত ২৩ জুলাই কাজটি শুরু করে আর শেষ হয় ২৯ জুলাই।

তবে এ নিয়ে আব্দুর রৌফ, গৃহিনী মমতা, মর্জিনাসহ একাধিক ব্যক্তির অভিযোগ, বছর জুড়ে ব্রিজটির পাশ থেকে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে ভিটামাটি উত্তোলন আর বিক্রি করে আসছেন স্থানীয় প্রভাবশালী মহল।

এ কারণে বর্ষা এলেই নদী ভাঙনের শিকার হন তারা। যার ফলে চলতি বন্যায় ভাঙনের কবলে পরেছে এই ব্রিজটির অ্যাপ্রোচ। এছাড়াও ব্রিজের ওপারের ঘোষপাড়ায়ও দেখা দেয় ভাঙন।

ভিটামাটি উত্তোলন বন্ধে দফায় দফায় অভিযোগ দেয়ার পর প্রশাসন আসলে কয়েকদিন তা বন্ধ থাকে। তবে সেটি স্থায়ীভাবে হয়না বন্ধ। ব্রিজটি সংস্কারের আগে অবৈধ মাটি বিক্রি বন্ধের দাবি জানিয়েছেন তারা।

স্থানীয় সিরাজুল ইসলামসহ কয়েকজনের অভিযোগ, ব্রিজটির ভাঙন কবলিত অ্যাপ্রোচে বালি ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলার কথা থাকলেও ভিটামাটি দিয়ে ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলেছেন ঠিকাদার।

এরপরও ওজনে দেয়া হয়েছে কম। বালির পরিবর্তে মাটি দেয়ায় নদীর পানি কমার সাথে সাথে জিও ব্যাগ গুলো অ্যাপ্রোচের স্থলে থাকবে বলেই অভিযোগ তাদের।

এছাড়াও স্থানীয় অবৈধ ভিটামাটি বিক্রেতাদের এই নদী থেকে ড্রেজারের মাধ্যমে উত্তোলনকৃত মাটি দ্বারা আর কোন রকমে ভর্তি করে জিও ব্যাগ গুলো ফেলেছেন এর ঠিকাদার। একই সাথে ধার্যকৃত পরিমান জিও ব্যাগ ফেলা হয়নি বলেও দাবি করেছেন তারা।

ধলেশ্বরী নদীর চারাবাড়ি এলাকায় চলা অবৈধ উত্তোলন বন্ধের দাবি জানিয়েছেন টাঙ্গাইল সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ মাহমুদ ফরিদ।

মেসার্স মিতু এন্টার প্রাইজের স্বত্তাধিকারী ইমরান হোসেন জানান, ভাঙন কবলিত অ্যাপ্রোচে ৩ হাজার জিও ব্যাগ নির্ধারন করা হলেও তিনি ফেলেছেন ২ হাজার ৬’শ ৭১টি জিও ব্যাগ। এছাড়া অবশিষ্ট ৩২৯টি জিও ব্যাগ পরিষদ ভবনে মজুত রাখা হয়েছে।

তবে জিও ব্যাগে ২৫০ কেজি ওজন ধরা থাকলেও তিনি দিয়েছেন ৩’শ থেকে সাড়ে ৩’শ কেজি। জিও ব্যাগ ডাম্পিং সমস্যা জনিত কারণে দুটি নৌকায় কিছু পরিমান ভিটামাটি এনে অ্যাপ্রোচের ভাঙন এলাকায় ফেলা হয়। জনস্বার্থে আর বালির অভাবে স্থানীয় মাটি ব্যবসায়ির সহায়তায় কাজটি সম্পন্ন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

টাঙ্গাইল স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদফতর (এলজিইডি)’র সহকারি প্রকৌশলী মো. ফিরোজ রেজা জানান, চারাবাড়ি ব্রিজের অ্যাপ্রোচের ভাঙনরোধে তিন হাজার জিও ব্যাগ ফেলা হয়েছে। কাজটি তদারকি করেছেন তিনি। এতে .৫ বালি নির্ধারণ করা হয়েছিল।

কাজে ২ হাজার ৬’শ ৭১টি জিও ব্যাগ ফেলা সম্পন্ন হলেও অতিরিক্ত ৩২৯ ব্যাগ আপতকালীন হিসেবে মজুত রাখা হয়েছে।

সম্পন্নকৃত কাজে নির্ধারনকৃত বালির পরিবর্তে ভিটামাটি ব্যবহারের কোন সুযোগ নেই। তবে এরপরও যদি কোন অনিয়ম হয়ে থাকে তাহলে সে ব্যাপারেও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেছেন তিনি।

এরআগে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের যমুনা নদীর পাড়ে যাত্রী ছাউনীর একাংশ ফাটল ধরে নদী গর্ভে বিলীন হওয়ার পথে। যেকোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের পশ্চিম পাশ দিয়ে বয়ে চলেছে যমুনা নদী। এই নদী পথে পার্শ্ববর্তী সিরাজগঞ্জ জেলা ও নদীর ভিতরে শতাধিক চরের প্রায় লক্ষাধিক মানুষ নৌকা দিয়ে গোবিন্দাসী ঘাট হয়ে বাজারে চলাচল করে।

এই লক্ষাধিক মানুষের নৌকার অপেক্ষারত ও বিশ্রাম করার জন্য স্থানীয় সরকার (এলজিইডি) একটি যাত্রী ছাউনি তৈরি করে। যা সত্যিকার অর্থে নৌপথে চলাচল করা যাত্রীদের জন্য বেশ আরামদায়ক হয়।

বিশেষ করে বর্ষাকালে বৃষ্টির সময় ও অতি রোদে গরমে যাত্রী ছাউনিটি সকল যাত্রীদের উপকার হয়।যাত্রী ছাউনির একটি দেয়াল ব্যবহার করে স্থানীয় সামাজিক সংগঠন ইবরাহীম খাঁ’র আলোকিত ভূঞাপুর গ্রুপ গরীব অসহায়দের জন্য একটি মানবতার দেয়াল স্থাপন করে। যেখানে যাত্রীরা অসহায় যাত্রীরা পছন্দমত কাপড় সংগ্রহ ও বিশ্রাম করতে পারে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840