সংবাদ শিরোনাম:
নাগরপুরে জুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুয়াড়ীসহ গ্রেফতার ১৫ টাঙ্গাইলে ফেনসিডিল ও নগদ অর্থসহ গ্রেফতার এক অবৈধ ড্রেজিংয়ের খেসারত ভেস্তে যাচ্ছে টাঙ্গাইল-তোরাপগঞ্জ সড়কটি মধুপুরে সুইট ফ্লাগ চাষ করে স্বাবলম্ভী মহিউদ্দিন টাঙ্গাইলে নারী ক্ষমতায়ন কর্মসূচি অর্জন কর্মশালা অনুষ্ঠিত ভূঞাপুরে এমপি ছোট মনিরের করোনা মুক্তি কামনায় দোয়া টাঙ্গাইলে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্মচারী পরিষদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত ঘারিন্দা ইউনিয়নে নৌকার মাঝি হলেন তোফায়েল আহমেদ মির্জাপুরে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রস্তুতি কমিটি গঠন অধ্যক্ষ শাহাদতের হোসেন খানের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল
সখীপুরে সন্তানের পিতৃ পরিচয়ের দাবীতে মা’য়ের সংবাদ সম্মেলন

সখীপুরে সন্তানের পিতৃ পরিচয়ের দাবীতে মা’য়ের সংবাদ সম্মেলন

মির্জা সাইদুল ইসলাম (সাঈদ) : টাঙ্গাইলের সখীপুরে দুই শিশু কন্যার পিতৃ পরিচয়ের দাবীতে অসহায় মা লাকী আক্তার (৩৩) সখীপুর রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) বিকালে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, ২০১০ সালের ১০ ফেব্রুয়ারী তারিখে সখীপুর পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডের মো: নুরুল ইসলাম ওরফে বঙ্গনূর মাস্টার-এর ছেলে ইলিয়াস কাশেম ১,০০,০০০/= (এক লক্ষ) টাকা দেনমোহর ধার্য করে গোপালপুর উপজেলার আলমনগর ইউনিয়ন কাজি শেখ মো: আবুল হোসেন মেয়াজীর মাধ্যমে অভিযোগকারীর লাকী আক্তার-এর বিবাহ সম্পন্ন হয়।

প্রকাশ থাকে যে, ইলিয়াস কাশেমের সঙ্গে বিবাহের পূর্বেও ০৩ (তিন) বৎসর আমার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বিবাহের এক বছর পর সখীপুর উপজেলা জেলখানা  মাঠের দক্ষিন পার্শে একটি ভাড়াবাসায় থাকা অবস্থায় ২৪/০৪/১১ইং তারিখে আমার প্রথম মেয়ে সান্তনা ও প্রফেসর কলোনী হামিদ আজাদ স্যারের বাসায় ভাড়া থাকা অবস্থায় ১০/০৯/২০১৫ ইং সালে আমার ছোট মেয়ে সুমাইয়ার জন্ম হয়।

যার জন্ম সনদ হিসেবে হাসপাতালের ছাড়পত্র, ডাক্তারের চিকিৎসাপত্র, ইপিআই টিকাকার্ড ও জন্মসনদের ফটোকপি হলফনামায় সংযুক্ত করলাম। বিবাহের পর ০৫/০৭/২০১১ ইং তারিখে আমাকে বিদেশে পাঠাবার জন্য আমার স্বামী ইলিয়াস কাশেম আমাকে দিয়ে যে পাসপোর্ট করায় তার ফটোকপিও সংযুক্ত করলাম।

এছাড়া ইলিয়াস কাশেম তৎকালীন সৌখিন সিনেমা হলের মালিক থাকা অবস্থায় ব্যবসা পরিচালনার জন্য আমার নিকট টাকা চাইলে আমার মায়ের নামীয় জমি বিক্রির ৬,৫০,০০০/= (ছয় লক্ষ পঞ্চাশ) হাজার টাকা আমার মায়ের নিকট হতে এনে আমি সরল বিশ্বাসে তার হাতে তুলে দেই। 

কিছুদিন পর সিনেমা হলটি বন্ধ হয়ে যায় এবং আমার জীবনে নেমে আসতে শুরু করে অমানবিক নির্যাতন। এক পর্যায়ে সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে সকল অত্যাচার মুখ বুঝে সহ্য করেই চলতে থাকি।

কিছু দিন পর আমার স্বামী ইলিয়াস কাশেম পুনরায় আমাকে ও আমার সন্তানদেরকে ভালভাবে ভরণপোষণ করবে বলে কথা দেয় এবং নতুন ব্যবসার জন্য কিছু টাকা লোন করে দেওয়ার অনুরোধ করলে, আমি তৎকালীন অবস্থা বিবেচনা করে সখীপুরে অবস্থিত বুরো বাংলাদেশ নামক এনজিও হতে ২,০০,০০০/= (দুই লক্ষ) টাকা লোন করে তার হাতে তুলে দেই।

টাকাগুলো পাবার পর পরই সে তার পূর্বে চরিত্রে ফিরে যায় এবং আমি ও আমার সন্তানদের সঙ্গে মারাত্মকভাবে দুর্ব্যবহার শুরু করে। আমি আবার এক বিশাল কষ্টের সাগরে ভাসমান হয়ে যাই।

প্রকাশ থাকে যে, উক্ত ঋনের একটি কিস্তিও সে পরিশোধ না করায় এনজিও অফিস কিস্তির টাকার জন্য আমাকে  চাপ দিতে থাকায় বহু কষ্টে আমি আমার স্বর্ণালঙ্কারসহ আসবাবপত্র বিক্রয় ও আমার ভাইয়ের নিকট হতে ধার পূর্বক যতটুকু পরিশোধ করতে পেরেছি তার সকল প্রমাণপত্রাদি হলফনামায় সংযুক্ত করলাম।

তারপর দীর্ঘদিন সে আমাদের কোন খোঁজখবর এবং ভরণপোষন না করায় নিরুপায় হয়ে গত ১৬/০১/২০২০ ইং তারিখে বিজ্ঞ সিনিঃ জুডি: ম্যাজিস্ট্রেট সখীপুর আমলী আদালত, টাঙ্গাইল-এ  যৌতুক নিরোধ আইনের ৩ ধারায় ইলিয়াস কাশেমের বিরুদ্ধে আমি একটি মামলা দায়ের করি।

পরবর্তীতে, আমার বিবাহের রেজিস্টার কাজি কর্তৃক কাবিনের বিপক্ষে একটি সনদ সংগ্রহ করে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ পূর্বক আমাকে সে স্ত্রী হিসেবে আদালতে অস্বীকার করে এবং আদালত তাঁর জামিন মঞ্জুর করলে আসামি ইলিয়াস কাশেম কাজি কর্তৃক প্রাপ্ত সনদের ভিত্তিতে আমার বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালতে একটি প্রতারণা মামলা দায়ের করেছে, যা তদন্তাধীন আছে।

বর্তমানে সে আমাকে এবং আমার মাকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রকম হুমকি-ধামকি দিয়ে আসতেছে। বিগত দিনে আমাকে নিয়ে সে (কাশেম) যে সকল ভাড়া বাসায় দাম্পত্য জীবনযাপন করেছে, সে সকল বাসার মালিকসহ আমার মানিত মামলার সাক্ষীগণ ও মোঃ শামসুল আলম পিতা মৃত হোসেন আলী ওরফে হোসেন মেকার গ্রাম কাদের নগর মোজিব কলেজ সংলগ্ন।

সে বিবাহ থেকে শুরু করে আমার হলফনামার যাবতীয় বিষয়াদি বিস্তারিত জানেন কিন্তু ওদের ভয়ে এখন পাশকাটিয়ে চলেন। এ ছড়া আমাকে নিয়ে এ যাবত যত গুলো ভাড়া বাসায় সংসার করেছন আমার স্বামী, প্রয়োজন মাফিক জিজ্ঞাসা করলে তারা সকলেই উল্লেখিত বিষয়ের সত্যতা অবশ্যই নিশ্চিত করবেন।

বর্তমানে, আমি আমার জীবন ও সন্তানদের ভবিষ্যৎ নিয়ে অনিশ্চয়তার এক বিশাল অন্ধকারে ডুবে আছি। কাশেমের উপস্থাপনকৃত নিকাহ রেজিস্টারের এক টুকরো কাগজ আমার দুটি অবুঝ সন্তানের পিতৃ পরিচয়কে ধ্বংশ করে আমাকে সামাজিকভাবে এবং তাদেরকে বেচেঁ থাকার অধিকার টুকু কেড়ে নিয়েছে।

উল্লেখ্য যে, যদি নিকাহ রেজিস্টারের কতৃক প্রদেয় আমার বিবাহের কাবিনের নকল ভূয়া হয়ে থাকে তাহলে তো সে এখানেও আমার সরলতার সঙ্গে মারাত্বক ভাবে জালিয়াতি করিয়াছে। যা আমি ও আমার সন্তানদের সামাজিকভাবে মান-সম্মান নিয়ে বেচেঁ থাকার মৌলিক অধিকার টুকুও হারাতে বসেছি।

এমতাবস্থায় প্রধানমন্ত্রীসহ  সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ের কাছে আমার  উল্লেখ্য বিষয়ের তদন্ত সাপেক্ষে প্রকৃত সত্য উদঘাটন পূর্বক, এই প্রতাররক ইলিয়াস কাশেমের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও আমার ও সন্তানদের স্বিকৃতী দাবী করছি। এ বিষয়ে ইলিয়াছ কাশেম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে সে তার দ্বিতীয় স্ত্রী লাকী ও দুই কন্যা শিশুকে অস্বীকার করেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সখীপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মোহাম্মদ শরিফুল ইসলাম, সহসভাপতি ও বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন সখীপুর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান ভূইয়া, সখীপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম বাবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম, সদস্য মির্জা সাঈদ, মো. আ. হামিদ মুকুল।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840