অনুসন্ধান রিপোট-১: ভূঞাপুরে অফিস সহায়কের বিরুদ্ধে ৩ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

অনুসন্ধান রিপোট-১: ভূঞাপুরে অফিস সহায়কের বিরুদ্ধে ৩ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলা পরিষদের অফিস সহায়ক পিয়নের বিরুদ্ধে স্বাক্ষর জাল করে ৩ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ ওঠেছে। অনুসন্ধানে জানা যায়, অফিস সহায়ক কামরুল তার সহদর ভাই লুৎফর রহমান কালু, উজ্জল এবং তার মায়ের নামে একাধিক ব্যাংকে প্রায় ৪০ লাখ টাকা জমা রেখেছে। পরবর্তীতে টাকা গুলো উত্তোলন করেছে বলে বিশ^স্ত সূত্রে জানা যায়। এলাকাবাসী টাঙ্গাইল প্রতিদিন প্রতিবেদককে জানান, তিনি কাগমারী পাড়া গ্রামে কামরুল, তার ভাই এবং তার মায়ের নামে অন্য মানুষের কাছ থেকে ২০ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার জমি বন্দকী নিয়েছেন। এদের মধ্যে দিলরুবা ইয়াসমিন সালমা, আক্তার, গুডু আজিজ শেক সহ আরো অনেকের কাছ থেকে জমি বন্দকী নিয়েছেন। বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় ও অনলাইনে নিউজ প্রকাশ হওয়ায় তাদের একাউন্ট থেকে টাকা উত্তোলন করে তার শুশুর বাড়িতে রেখেছে। আরও জানা যায় টাকা গুলো শুশুর বাড়িতে কোথায় রেখেছে এবং সুধে কোথায় কোথায় ব্যাবহার হচ্ছে এ বিষয়ে অনুসন্ধান চলছে যা পরবর্তীতে প্রকাশ করা হবে।

কামরুরলর নামে উপজেলার সচেতন নাগরিকবৃন্দ দুর্নীতি দমন কমিশন বরাবরে আবেদন করেন এবং আবেদন পত্রে উল্লেখ করা হয়, মো. কামরুল ইসলাম চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর জাল করে বিভিন্ন প্রকল্প এবং উন্নয়ন মূলক কাজ থেকে ৩ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। অভিযোগপত্র থেকে জানা যায়, ভূঞাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোছাঃ নার্গিস বেগম এর অফিস সহায়ক মো. কামরুল ইসলাম গরিব ঘরের সন্তান তার এক ভাই চায়ের দোকান করেন। উপজেলা পরিষদের চেযারম্যান আব্দুল হালিমের মৃত্যুর পর তার স্ত্রী মোছাঃ নার্গিস বেগম উপজেলা পরিষদের চেয়াম্যান পদে দায়িত্ব গ্রহন করেন। তিনি নতুন চেয়ারম্যান হওয়ায় কিছু বুঝতে না পারার সুযোগে উপজেলার বিভিন্ন প্রকল্প, বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক প্রকল্প শুধু মাত্র কাগজ কলমে দেখিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান মোছাঃ নার্গিস বেগমের স্বাক্ষর জাল করে ৩ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় অফিস সহায়ক মো. কামরুল। এ বিষয়ে চেয়াম্যানকে অবগত করলে তিনি চুপ থাকেন। অভিযোগপত্র থেকে আরো জানা যায়, অফিস সহায়ক কামরুল ঢাকা মোহাম্মদপুরে ২১০০ স্কয়ার ফিটের একটি ফ্ল্যাট কিনেছে। যার মূল্য ১ কোটি ২০ লক্ষ টাকা। গাজীপুর উপজেলা শ্রীপুরের মাধখোলা শিল্প এলাকায় ৬ শতাংশ জমি কিনেছে। যার মূল্য ৭০ লক্ষ টাকা। ১০ লক্ষ টাকা অফিস সহায়ক কামরুলের বিভিন্ন একাউন্টে জমা রয়েছে। এ বিষয়টি সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অবিহত হলে তিনি উপজেলার চেয়ারম্যানের সাথে আলোচনা করেন। তিনি বলেন অফিস সহায়ক কামরুলকে বদলী করা উচিত। উপজেলা চেয়ারম্যান তার বদলীর বিরোধিতা করেন। এ বিষয়ে অভিযুক্ত অফিস সহায়ক কামরুল ইসলাম জানান, আমার বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ মিথ্যা ও ষড়যন্ত্র। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মামুনূর রশিদ বলেন, অভিযোগটি দুর্নীতি দমন কমিশনে দেয়া হয়েছে। আমি একটি অনুলিপি পেয়েছি। দুর্নীতি দমন কমিশন নিজেরা পদক্ষেপ নিতে পারে অথবা আমাকে দায়িত্ব দিলে আমি পদক্ষেপ গ্রহণ করবো।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840