সংবাদ শিরোনাম:
বাসাইলে পানিতে ডুবে স্কুল ছাত্রীর মৃত্যু কালিহাতীতে বেগম খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ধনবাড়ীতে সিএনজি’র দখলে সড়ক, জনদুর্ভোগ চরমে টাঙ্গাইলে ২৮ লাখ টাকার ক্রিস্টাল ম্যাথ ও ইয়াবাসহ দুই মাদক কারবারিকে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ সখীপুরে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ ধর্মীয় নেতাদের করণীয় শীর্ষক আলোচনা ত্রাণ নিয়ে সিলেট যাচ্ছেন ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা টাঙ্গাইলে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকদের মানববন্ধন ভুয়া চিকিৎসক আটক, তিন মাসের কারাদন্ড টাঙ্গাইলে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি, পানিবন্দি লাখো মানুষ মাভাবিপ্রবিতে ‘ক্রাইম, ভিক্টিম্স এবং জাস্টিস’ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত
টাঙ্গাইলে স্বামীর সামনে স্ত্রীকে গণধর্ষণ ।। আটক ছয়

টাঙ্গাইলে স্বামীর সামনে স্ত্রীকে গণধর্ষণ ।। আটক ছয়

প্রতিদিন প্রতিবেদক : কালিহাতীর শ্বশুড়বাড়ী থেকে দাওয়াত খেয়ে বাড়ী ফেরার পথে শহরের নতুন বাস টার্মিনাল নাভানা সিএনজি পাম্পের পেছনে স্বামী-স্ত্রী কে জোর পূর্বক ধরে ডিসি লেকে সব কিছু লুটে নিয়ে স্বামীকে মারপিট করে আটকে রেখে স্ত্রীকে ওড়না দিয়ে মূখ বেঁধে গণধর্ষণ করেছে লম্পট যুবকরা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ভিকটিমকে উদ্ধার সহ ছয় ধর্ষণকারীকে গ্রেফতার করেন। গ্রেফতারকৃতদের নামে থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।

গ্রেফতারকৃতদের ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

ভিকটিম বর্তমানে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন

শুক্রবার রাত আড়াইটার দিকে নুতন বাসটার্মিনাল এলাকার নাভানা সিএনজি পাম্পের পেছনে ডিসি লেকে এ ঘটনা ঘটে।

গ্রেফতারকৃত ধর্ষকরা হলো, শহরের পৌর এলাকার কোদালিয়ার আলম মিয়ার ছেলে ইউসুফ রানা (২৫), রবিকুল ইসলামের ছেলে তানজিরুল ইসলাম তাজিন (২২), রশিদের ছেলে মো. রবিন (২৫), দেওলা এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে জাহিদুল ইসলাম (২১), আল বেরুনীর ছেলে ইব্রাহিম ইবনে আল বেরুনী (২০), নাগপুর উপজেলার ধুবুরিয়া গ্রামের মৃত মজনু মিয়ার মো. মফিজ (২১)।

এঘটনায় অপর দুই ধর্ষক, দেওলা এলাকার হাসান সিকদার (২২) ও মো. উজ্জল মিয়া (২৫) কৌশলে পালিয়ে যায়।

ভিকটিম ও স্বামী জানান, শুক্রবার রাত ৭ টায় কালিহাতী শশুর বাড়ি থেকে মির্জাপুরের গোড়াই কর্মস্থলে যাচ্ছিলাম। পথিমধ্যে রাত সাড়ে ৯ টার দিকে টাঙ্গাইল শহরের নুতন বাস টার্মিনাল এলাকায় পৌঁছে গন্তব্যেস্থলে যাবার জন্য অন্য বাসের জন্য অপেক্ষা করছিলাম।

এ সময় কয়েকজন বখাটে কৌশলে একটু দুরে নিয়ে যায়। পরে আমার কাছে থাকা মোবাইল ও টাকা হাতিয়ে নিয়ে মারধর করতে থাকে।

আমার স্ত্রী এঘটনা দেখে আমাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসে। পরে আমার গলায় ছুরি ধরে আমার স্ত্রীকে পাম্পের পিছনে ডিসি লেকের রাস্তার উপর পাশের নির্জন ডিসি লেকের পিছনে নিয়ে ওড়না দিয়ে মূখ বেঁধে প্রথম দফায় তিন জন ধর্ষক গণধর্ষণ করে। আমি বাধা দেয়ার চেষ্টা করলে আমাকে মেরে ফেলবে হুমকি দিতে থাকে এবং কিল ঘুষি মারতে থাকে ।

পরে স্বামী ডাক-চিৎকার ও চেচামেচি করলে আরো কয়েকজন যুকব এগিয়েে এসে স্বামীকে মারধর করে স্ত্রীকে সেখান থেকে পাশের একটি জঙ্গলে নিয়ে দ্বিতীয় দফায় গণধর্ষণ করেন।

এরপর সাবালীয়ার চোরজানা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বারান্দায় নিয়ে তৃতীয় দফায় গণধর্ষণ করা হয়।

সেখান থেকে কৌশলে পালিয়ে থানায় গিয়ে বিষয়টি জানাই। পরে পুলিশের সহায়তায় ভোর রাতে আমার স্ত্রীকে খুজে পাই। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। এসময় ঘটনাস্থল থেকে ছয় ধর্ষককে আটক করা হয়।

ভিকটিম বর্তমানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন।

ধর্ষীতা নারী জানান, শুক্রবার রাতে বাবার বাড়ী কালিহাতি থেকে কর্মস্থল যাবার পথে স্বামীকে জিম্মি করে এলাকার চিহ্নিত বখাটেরা সদরের ডিসি লেক ও কোদালিয়ার এলাকার তিনটি স্থানে নিয়ে রাতভার কয়েক দফায় পাশবিক নির্যাতন চালান তারা। পরে পুলিশ এসে আমাকে উদ্ধার করে । এঘটনায় জরিতদের ফাঁসি দাবি করেন তিনি ।

সদর ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশারফ হোসেন জানান, রাত দেড়টার দিকে সখীপুর উপজেলার প্রতিমা বংকী গ্রামের মৃত বশির উদ্দিনের ছেলে ফজলু (৩৫) নামের এক লোক দৌড়ে সদর ফাঁড়িতে এসে তার স্ত্রীকে কয়েক জন যুবক জোর পূর্বক ডিসি লেকে নিয়ে ধর্ষক করতেছে বলে অভিযোগ করেন।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাৎক্ষণিক পুলিশ অভিযান চালিয়ে ভিকটিমকে উদ্ধার করেন।

পরে রাতভর অভিযান চালিয়ে ছয় ধর্ষককে আটক করা হয়। এ সময় অপর দুই ধর্ষক কৌশলে পালিয়ে যায়

টাঙ্গাইল মডেল থানার ওসি সায়েদুর রহমান জানান, রাতে সংবাদ পেয়ে পুলিশ ভিকটিমকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। একই সাথে পুলিশ রাতভর বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চাল অভিযুক্ত ছয় জনকে আটক করা হয়। আটকৃত কয়েক হনের নামে থানায় ইতিপূর্বে একাধিক মামলা রয়েছে।

বাকী আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এ ঘটনায় আটজনকে আসামী করে মডেল থানায় গণধর্ষণ মামলা দায়ের করা হয়েছে।

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. নারায়ণ চন্দ্র সাহা জানান, শনিবার ভোর ৫ টার দিকে ওই ধর্ষিতাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ধর্ষিতার শারীরিক পরীক্ষা নীরিক্ষা শেষ হয়েছে। তবে প্রাথমিক ভাবে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে বলেও জানান তিনি।

শনিবার বিকেল সাড়ে ৩ টায় পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় সংবাদ সম্মেলের মাধ্যমে জানান,শহরের তিনটি স্থানে ওই গৃহবধুকে গনধর্ষণ করা হয়। খবর পেয়ে পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ছয় জনকে গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতারকৃতদের ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হবে। অপর আসামীদের গ্রেফতারের অভিযান অভ্যাহত রয়েছে। এর মধ্যে ইউসুফের নামে এর আগেও ৪ টি, রবিনের নামে ২ টি ও মফিজের নামে ৫টি মামলা রয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840