সংবাদ শিরোনাম:
ধনবাড়ীতে অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতারের নির্দেশ

ধনবাড়ীতে অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতারের নির্দেশ

হাফিজুর রহমান মধুপুর: জাতীয় দৈনিক পত্রিকায়“ শিক্ষকের বিরুদ্ধে সমকামীতার অভিযোগ ”শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর বিষয়টি মধুপু সার্কেল এ এস পি কামরান বিষয়টি নজরে আসে। তাতক্ষনিক ভাবে ধনবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার ইনচার্জ ওসি তদন্ত হাসান মোস্তফা কে ঐ অভিযুক্ত শিক্ষক কে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেন।

ধনবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার ইনচার্জ ওসি তদন্ত হাসান মোস্তফা জানান, বিষয়টি নিয়ে আমাদের ধনবাড়ী থানায় কোন অভিযোগ কেন্দুয়া উচ্চ বিদ্যালয় কৃর্তপক্ষ বা মানেজিং কমিটি, উপজেলা শিক্ষা অফিস, উপজেলা নির্বাহী অফিসার কেউ আমাদের কে ঘটনাটি জানায়নি।

বিষয়টি ১০ জুলাই১৯ইং তারিখে “শিক্ষকের বিরুদ্ধে সমকামীতার অভিযোগ ” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর বিষয়টি টাঙ্গাইলের মধুপু সার্কেল এ এস পি কামরান বিষয়টি নজরে আসে। কেন্দুয়া উচ্চ বিদ্যালয় এর প্রধান শিক্ষক হাফিজুর রহমান কে থানায় ডেকে আইনী প্রক্রিয়া করার পর তাতক্ষনিক ভাবে ঐ অভিযুক্ত শিক্ষক কে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেন। আমি আমার ধনবাড়ী থানা পুলিশ কে মাঠে নামিয়ে দিয়েছি অভিযুক্ত শিক্ষক ওবাইদুল ইসলাম দ্রুত গ্রেপ্তার করতে।

উল্লেখ, টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলার কেন্দুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ইংরেজী শিক্ষক মো: ওবাইদুল ইসলামের বিরুদ্ধে ছাত্রদের কে দিয়ে বাধ্য করিয়ে পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে শিক্ষক ওবাইদুল ইসলাম ছাত্রদের কে দিয়ে সমকামীতা ও ছাত্রীদের বিভিন্ন স্পর্শকাতর জায়গায় হাত দেওয়া সহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য ও অভিভাবকরা বিক্ষোভ প্রদর্শন এবং উপ-পরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক ময়মনসিংহ অঞ্চলিক শিক্ষা অফিস, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে।

লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়, কেন্দুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ইংরেজী শিক্ষক ওবাইদুল ইসলাম নিয়মনীতির কোন তোয়াক্কা না করে শিক্ষার্থীদের কে দিয়ে জোর পূর্বক তার সাথে সকাীতায় বাধ্য হচ্ছে। ছাত্রদের বাড়ীতে রাত্রি যাপন করে। এ ছাড়া বিদ্যালয় চলাকালীন সময়ে শিক্ষার্থীদের ছাত্র ছাত্রীদের কে তার কাছে ডেকে নিয়ে ইচ্ছার বিরোদ্ধে সকল শিক্ষার্থীদের সামনে জরিয়ে ধরা, বিয়ে পড়ানোর রীতি সম্পন্ন করার অভিযোগ উঠেছে। এতে করে শিক্ষার্থীরা পড়েছে বেকায়দায়।

এঘটনা এলাকায় জানাজানি হলে এলকাবাসী এ ন্যাক্কারজনক ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ করলে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কান ব্যবস্থা না নিলে এলাকাবাসী আরো ফুসে উঠে।

বিদ্যালয়ের ম্যানিজিং কমিটির সভাপতি বীরতারা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আহমদ আল ফরিদ এর সাথে কথা বলার চেষ্টা করলে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840